তথ্য মন্ত্রণালয়ের অধীন ডিএফপি’র মিডিয়া তালিকাভুক্ত ঢাকা জেলার একমাত্র স্থানীয় পত্রিকা

নরসিংদীতে ট্রেনে কাটা পড়া ৫ জনের লাশ বেওয়ারিশ হিসেবে দাফন

- Advertisement -

নরসিংদী সংবাদদাতা : নরসিংদীর রায়পুরায় ট্রেনে কাটা পড়া পাঁচজনের মরদেহের ময়নাতদন্ত শেষে বেওয়ারিশ লাশ হিসেবে দাফন করা হয়েছে। সোমবার রাতেই ময়নাতদন্তের পর রেলওয়ে কবরস্থানে দাফন সম্পন্ন করে রেলওয়ে পুলিশ।

২৪ ঘণ্টা পার হলেও তাদের পরিচয় শনাক্ত করা যায়নি। পিবিআই (পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন) ও সিআইডির প্রযুক্তি দল এখনো পর্যন্ত নিহতদের পরিচয় শনাক্ত করতে পারেননি বলে নিশ্চিত করেছেন নরসিংদী রেলওয়ে পুলিশ ফাঁড়ির উপপরিদর্শক মো. শহিদুল্লাহ।

মো. শহিদুল্লাহ বলেন, সোমবার রাত ১০টা থেকে ১২টার মধ্যে নরসিংদী সদর হাসপাতালের মর্গে পাঁচ লাশের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন করা হয়। পরে মরদেহগুলো নরসিংদী রেলওয়ে পুলিশ ফাঁড়িতে নিয়ে আসা হলে প্রচণ্ড দুর্গন্ধ ছড়িয়ে পড়ে। পরে বাধ্য হয়েই লাশগুলো রেলস্টেশনের কাছের কবরস্থানে বেওয়ারিশ লাশ হিসেবে দাফন করা হয় ৷ তবে তাদের পরনের কাপড় সংগ্রহে রাখা হয়েছে, মুখের লালা এবং দাঁত সংগ্রহে রাখা হয়েছে ফরেনসিক এবং ডিএনএ টেস্ট করার জন্য।

পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ডের স্বীকার কি না—এমন প্রশ্নের জবাবে রেলওয়ে ফাঁড়ির ইনচার্জ মো. শহিদুল্লাহ আরও বলেন, ‘ফরেনসিক রিপোর্ট এলেই বোঝা যাবে। এ ছাড়া পরিচয় শনাক্তের জন্য নরসিংদীসহ পার্শ্ববর্তী জেলায় আমাদের সদস্য এবং সাধারণ মানুষ কাজ করছেন।

পিআইবির উপপরিদর্শক মো. জমির বলেন, পাঁচ মরদেহের কারও ফিঙ্গারের ছাপের সঙ্গে কোনো আইডি কার্ডের যোগসূত্র পাওয়া যায়নি। নিহতরা উদ্বাস্তু ধরনের মানুষ ছিলেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। এ ছাড়া তাঁদের বয়স সম্পর্কেও নিশ্চিত হওয়া যাচ্ছে না।

এর আগে, গতকাল সোমবার সকাল সাড়ে ৫টা থেকে ৬টার মধ্যে রায়পুরা উপজেলার খাকচক এলাকায় তূর্ণা নিশীথা এক্সপ্রেস ট্রেনের নিচে কাটা পড়ে তাঁদের মৃত্যু হয় বলে ধারণা পুলিশের।

সকাল সাড়ে ৮টার দিকে রেললাইনের পাশে পাঁচটি মরদেহ ছিন্নবিচ্ছিন্ন অবস্থায় দেখা যায়। খবর পেয়ে ৯টার দিকে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় রেলওয়ে পুলিশসহ জেলা পুলিশ, সিআইডি ও পিবিআই। নিহতরা ট্রেন থেকে পড়ে গিয়ে কাটা পড়েছেন, নাকি রেললাইনে বসা অবস্থায় কাটা পড়েছেন, তা নিশ্চিত করতে পারেনি পুলিশ।

- Advertisement -

এ বিভাগের আরও সংবাদ