1. dailyfulki04@gmail.com : dfulki :
  2. fulki04@yahoo.com : Daily Fulki : Daily Fulki
বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২, ১২:৫৯ অপরাহ্ন
সর্বশেষ খবর
আশুলিয়ায় চিকিৎসকের বাসায় প্রেমিকার আত্মহত্যা সাভারে শেখ পরশের সুস্থতা কামনায় যুবলীগ নেতার দোয়া মাহফিল অবৈধভাবে মালয়েশিয়া যাওয়ার পথে সাগরে ট্রলারডুবি, সাঁতরে সৈকতে ফিরলেন ৩১ রোহিঙ্গা আশুলিয়ায় সড়ক দূর্ঘটনায় ওয়ালটন শ্রমিকের মৃত্যু বাংলাদেশে গ্রহণযোগ্য অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন জরুরি : সাভারে ব্রিটিশ হাইকমিশনার সাভারে চাঁদার দাবিতে হাত-পা বেঁধে মারধর পঞ্চগড়ে যৌতুকের দাবিতে স্ত্রীকে হত্যা, সাভারে গ্রেফতার ধামরাইয়ে পূজা মন্ডপে নিরাপত্তায় আনসারদের খোঁজ রাখেন না কেউ সিংগাইরে রাইস মিল মেকানিক্সকে তুলে নিলো যুবলীগ নেতা, মিলছে না হদিস সাভারে হলমার্ক গ্রুপের ভেতর নিরাপত্তা প্রহরী খুন, হত্যাকান্ডটি রহস্যময়

সাভার সেন্ট্রাল হাসপাতালে আবারও ভুল চিকিৎসায় প্রাণ গেল কিশোরে

  • আপডেট : রবিবার, ১১ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ৪৫ বার দেখা হয়েছে

স্টাফ রিপোর্টার : সাভারের একটি অনুমোদনহীন হাসপাতালে ভুল চিকিৎসায় তাপস (১৪) নামে এক কিশোরের মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। রোববার দুপুরে হাসপাতালে সাংবাদিকদের কাছে এমন অভিযোগ করেন নিহতের স্বজনেরা।
এর আগে শনিবার রাতে সাভার পৌরসভার তালবাগ এলাকার সাভার সেন্ট্রাল হাসপাতালে আপারেশনের জন্য অ্যানেস্থেসিয়া ইনজেকশন পুশ করলে সে মারা যায়। এ ঘটনায় স্বজনদের টাকা দিয়ে ম্যানেজ করার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হয় হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। এর আগেও এ হাসপাতালে ভুল চিকিৎসায় একাধিক রোগী মারা গিয়েছে।
তাপস গাজীপুর জেলার কালিয়াকৈর থানার কান্দাপাড়া গ্রামের সুশীল সরকারের ছেলে। সে স্থানীয় আশরাফ আলী উচ্চ বিদ্যালয়ের অষ্টম শ্রেণীর শিক্ষার্থী।
নিহতের স্বজনদের অভিযোগ, গত শুক্রবার রাতে হাত ভাঙার চিকিৎসা নিতে গাজীপুরের কালিয়াকৈর থেকে এসে সাভার সেন্ট্রাল হাসপাতালে ভর্তি করা হয় তাপসকে। স্থানীয় ফার্মেসী ব্যবসায়ী আবুলের মাধ্যমে ৩৫ হাজার টাকার চুক্তিতে আপরেশনের সিদ্ধান্ত হয়। পরে শনিবার রাতে আপারেশনের জন্য তাকে অ্যানেস্থেসিয়া ইনজেকশন পুশ করেন ডা. কামরুজ্জামান জনি। কিছুক্ষণ পর অসুস্থ হয়ে মারা যায় তাপস। মৃত্যুর বিষয়টি ধামাচাপা দিতে দ্রুত তাকে সুপার মেডিকেল হাসপাতালে পাঠিয়ে দেয় সেন্ট্রাল হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।
নিহতের মামা উত্তম কুমার বলেন, ফুটবল খেলতে গিয়ে আমার ভাগনের হাত ভেঙে যায়। হাতের অপারেশন করলে মানুষ মারা যায় কীভাবে? শনিবার ডাক্তার আসার আগেই রাত ১০টায় তাকে অ্যানেস্থেসিয়া ইনজেকশন দেয়া হয়। পরে রাত ১টায় অপারেশনের ডাক্তার এসে বলেন- সমস্যা আছে, অপারেশন নাকি করা যাবে না। পরে ডাক্তার চলে গেলে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ জানায় আইসিইউতে নিতে হবে। এরপর মৃত্যু হলেও তাকে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ অন্য ক্লিনিকে নিয়ে যায়।
কান্নাজড়িত কন্ঠে তাপসের বাবা সুশীল সরকার বলেন, আমার ছেলেটার অবস্থা এতটা খারাপ ছিল না যে সে মারা যাবে। হাতের অপারেশন করতে গিয়ে ইনজেকশন দিয়ে ওরা আমার আদরের ছেলেটারে মেরে ফেলল। আমি ছেলে হত্যার কঠিন বিচার চাই।
এদিকে ওই কিশোরের মৃত্যুর সংবাদ শুনে তার আত্মীয় স্বজনরা রোববার সকাল থেকে হাসপাতাল প্রঙ্গণে ভীড় করেন। এসময় স্থানীয়রা ওই হাসপাতালটির বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেয়ার জন্য প্রশাসনের কাছে দাবি জানান।
সাভার সেন্ট্রাল হাসপাতালের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মো. অহিদ বলেন, আমি হাসপাতালে ছিলাম না। এ ব্যাপারে কিছুই জানি না। অ্যানেস্থেসিয়া ইনজেকশন দিয়েছেন ডা. কামরুজ্জামান। তাকে সুপার ক্লিনিকে নিয়ে যাওয়া হলো কেন এমন প্রশ্নের সদুত্তর দিতে পারেননি তিনি।
সাভার সেন্ট্রাল হাসপাতালের চেয়ারম্যান ডা. আবু তাহের ভুল চিকিৎসার বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, চিকিৎসা করতে গেলে একটু ভুল হবেই। তবে প্রায়ই তার হাসপাতালে ভুল চিকিৎসায় রোগীর মৃত্যুর অভিযোগের ব্যপারে জানতে চাইলে তিনি প্রতিবেদকের কাছে এর উত্তর এড়িয়ে যান।
সাভার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী মাইনুল ইসলাম বলেন, অভিযোগ পেলে হাসপাতালটির বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ ঘটনায় মামলা দায়ের করবেন বলে জানিয়েছে নিহতের পরিবার।
এ ব্যাপারে সাভার উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. সায়েমুল হুদার সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলে তাকে পাওয়া যায়নি।

উল্লেখ্য, এর আগেও বেশ কয়েকবার ভুল চিকিৎসায় কয়েকজন রোগী মারা যাওয়ার ঘটনা ঘটেছে বলে আভিযোগ রয়েছে এই হাসপাতালটির বিরুদ্ধে। চিকিৎসার নামে প্রতারণা, প্রতিষ্ঠানটির সীমাহীন অনিয়ম ও বৈধ অনুমোদন না থাকায় প্রতিষ্ঠানটিকে সিলগালা করে দেয়া হয়। তবে প্রশাসনের চোঁখ ফাকি দিয়ে ও স্বাস্থ্য বিভাগের অসাধু কর্মকর্তাদের ম্যানেজ করে আবারও প্রতিষ্ঠানটির কার্যক্রম চালু করা হয়েছে।

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও খবর

সত্যের সন্ধানে নির্ভীক কিছু তরুণ সংবাদকর্মী নিয়ে আমাদের পথচলা

তথ্য মন্ত্রণালয়ের অধীন ডিএফপি’র মিডিয়া তালিকাভুক্ত ঢাকা জেলার একমাত্র স্থানীয় পত্রিকা