1. dailyfulki04@gmail.com : dfulki :
  2. fulki04@yahoo.com : Daily Fulki : Daily Fulki
বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২, ০২:৩২ অপরাহ্ন
সর্বশেষ খবর
আশুলিয়ায় চিকিৎসকের বাসায় প্রেমিকার আত্মহত্যা সাভারে শেখ পরশের সুস্থতা কামনায় যুবলীগ নেতার দোয়া মাহফিল অবৈধভাবে মালয়েশিয়া যাওয়ার পথে সাগরে ট্রলারডুবি, সাঁতরে সৈকতে ফিরলেন ৩১ রোহিঙ্গা আশুলিয়ায় সড়ক দূর্ঘটনায় ওয়ালটন শ্রমিকের মৃত্যু বাংলাদেশে গ্রহণযোগ্য অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন জরুরি : সাভারে ব্রিটিশ হাইকমিশনার সাভারে চাঁদার দাবিতে হাত-পা বেঁধে মারধর পঞ্চগড়ে যৌতুকের দাবিতে স্ত্রীকে হত্যা, সাভারে গ্রেফতার ধামরাইয়ে পূজা মন্ডপে নিরাপত্তায় আনসারদের খোঁজ রাখেন না কেউ সিংগাইরে রাইস মিল মেকানিক্সকে তুলে নিলো যুবলীগ নেতা, মিলছে না হদিস সাভারে হলমার্ক গ্রুপের ভেতর নিরাপত্তা প্রহরী খুন, হত্যাকান্ডটি রহস্যময়

ধামরাইয়ে কৃষ্ণনগরের সাত্তারের আক্ষেপ, হাসপাতাল না গামের্ন্টের জন্য জমি দিলে মানুষের উপকার হতো

  • আপডেট : রবিবার, ৪ সেপ্টেম্বর, ২০২২
  • ৫৭ বার দেখা হয়েছে

 

ধামরাই প্রতিনিধি : ‘আমার ৫৫ শতাংশ জমি এই হাসপাতাল নির্মাণের জন্য নামমাত্র দামে ছেড়ে দিয়েছি। কিন্তু এখানে কোনো সেবা পায় না মানুষ। তিনি দুঃখ করে বলেন, হাসপাতাল না হয়ে এটা গার্মেন্ট কারখানা হলেই ভালো হতো। এলাকার মানুষ চাকরি করে জীবিকা নির্বাহ করার সুযোগ পেত।

Ôকথাগুলো আক্ষেপ করে বলেন, ধামরাই উপজেলার কৃষ্ণনগর গ্রামের আবদুস সাত্তার। তাঁর গ্রামে কয়েক কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত ২০ শয্যার হাসপাতালটি নিয়েই এই আক্ষেপ।

বাড়ির কাছেই স্বল্প খরচে স্বাস্থ্যসেবা পাওয়ার আশায় হাসপাতাল নির্মাণের জন্য এলাকাবাসী নামমাত্র মূল্যে প্রায় চার একর ফসলি জমি ছেড়ে দেন। ঢাকা জেলার ধামরাই উপজেলার রোয়াইল ইউনিয়নের কৃষ্ণনগরে এই হাসপাতাল নির্মাণ হয় ২০০৬ সালে। কিন্তু ১৬ বছর পর তাঁরা এখানে মনোরম পরিবেশে কয়েকটি ভবনই দেখতে পাচ্ছেন, সেবা পাচ্ছেন না।

ধামরাই সদর থেকে প্রায় ২৩ কিলোমিটার দূরের এই প্রত্যন্ত অঞ্চলে সাধারণ মানুষের দোরগোড়ায় চিকিৎসাসেবা পৌঁছে দিতে প্রতিষ্ঠা করা হয় আধুনিক মানের এই হাসপাতাল। স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের নির্মাণ ও রক্ষণাবেক্ষণ ব্যবস্থাপনা ইউনিট (সিএমএমইউ) এটি প্রতিষ্ঠা করে। ওই সময় কৃষ্ণনগর গ্রামের কর্নেল মো. বজলুর রশীদ মৃধা ছিলেন ওই ইউনিটের প্রধান প্রকৌশলী। তিনি নিজ এলাকায় হাসপাতালটি সরকারি অর্থায়নে প্রতিষ্ঠা করেন।

সরেজমিন দেখা যায়, হাসপাতালের প্রধান ভবনসহ চিকিৎসকদের জন্য চারটি আবাসিক ভবন রয়েছে। ভবনগুলোতে কেউ থাকে না, তালাবদ্ধ। গাড়ি রাখার গ্যারেজ ও পানির পাম্প রয়েছে। সেগুলোতেও তালা দেওয়া।

সাবেক ইউপি সদস্য জালাল উদ্দিন বলেন, ‘এখানে নিয়মিত ডাক্তার আসেন না। মাঝেমধ্যে এলেও ঘণ্টাখানেক থেকে চলে যান। এলাকার মানুষ চিকিৎসা নিতে এসে সময়মতো ডাক্তার পায় না। হাসপাতাল থেকে কোনো ওষুধও দেওয়া হয় না।’

স্থানীয় মহসিন জানান, হাসপাতাল রক্ষণাবেক্ষণে কেউ না থাকায় ভেতরে চলে মাদকসেবীদের আড্ডা।

উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. নূর রিফফাত আরা বলেন, ‘জনবলের অভাবে হাসপাতালটি পুরোপুরি চালু করা যাচ্ছে না। এ ছাড়া ওই হাসপাতালের জন্য আলাদাভাবে কোনো ওষুধ বরাদ্দ নেই। তবে এটি পুরোদমে চালু করা দরকার। ’

 

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও খবর

সত্যের সন্ধানে নির্ভীক কিছু তরুণ সংবাদকর্মী নিয়ে আমাদের পথচলা

তথ্য মন্ত্রণালয়ের অধীন ডিএফপি’র মিডিয়া তালিকাভুক্ত ঢাকা জেলার একমাত্র স্থানীয় পত্রিকা