1. dailyfulki04@gmail.com : dfulki :
  2. fulki04@yahoo.com : Daily Fulki : Daily Fulki
বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২, ০২:৩৫ অপরাহ্ন
সর্বশেষ খবর
আশুলিয়ায় চিকিৎসকের বাসায় প্রেমিকার আত্মহত্যা সাভারে শেখ পরশের সুস্থতা কামনায় যুবলীগ নেতার দোয়া মাহফিল অবৈধভাবে মালয়েশিয়া যাওয়ার পথে সাগরে ট্রলারডুবি, সাঁতরে সৈকতে ফিরলেন ৩১ রোহিঙ্গা আশুলিয়ায় সড়ক দূর্ঘটনায় ওয়ালটন শ্রমিকের মৃত্যু বাংলাদেশে গ্রহণযোগ্য অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন জরুরি : সাভারে ব্রিটিশ হাইকমিশনার সাভারে চাঁদার দাবিতে হাত-পা বেঁধে মারধর পঞ্চগড়ে যৌতুকের দাবিতে স্ত্রীকে হত্যা, সাভারে গ্রেফতার ধামরাইয়ে পূজা মন্ডপে নিরাপত্তায় আনসারদের খোঁজ রাখেন না কেউ সিংগাইরে রাইস মিল মেকানিক্সকে তুলে নিলো যুবলীগ নেতা, মিলছে না হদিস সাভারে হলমার্ক গ্রুপের ভেতর নিরাপত্তা প্রহরী খুন, হত্যাকান্ডটি রহস্যময়

গুলশান থানা থেকে নারী আসামি ‘লাপাত্তা’

  • আপডেট : রবিবার, ২৮ আগস্ট, ২০২২
  • ৭২ বার দেখা হয়েছে

ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) গুলশান থানা থেকে চুরির মামলার এক আসামি পালিয়ে গেছেন। তার নাম মোসা. খাদিজা আক্তার (১৮)।

শনিবার (২৭ আগস্ট) রাত সাড়ে ৮টার দিকে সে পালিয়ে যায়। গুলশানের একটি বাসা থেকে গৃহপরিচারিকার বেশ ধরে টাকা ও স্বর্ণালংকার নিয়ে পালিয়েছিল খাদিজা। এঘটনায় করা মামলায় গত শুক্রবার গভীর রাতে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সদর থানা থেকে তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। রবিবার (২৮ আগস্ট) পর্যন্ত তার কোনও সন্ধান পায়নি পুলিশ।

নাম প্রকাশ না করে গুলশান থানা পুলিশের এক কর্মকর্তা বলেন, ‘থানা থেকে এক আসামি পালিয়েছে। তাকে খোঁজা হচ্ছে।’

তবে চুরির ওই মামলার তদন্ত কর্মকর্তা উপপরিদর্শক (এসআই) মো. রবিউল বলেন, আসামি পালানোর বিষয়টি সত্য নয়।

গত ২৩ আগস্ট গুলশান থানায় আলমগীর হোসেন (৪২) নামে এক ব্যক্তি বাদী হয়ে দুই জনের বিরুদ্ধে চুরির মামলা করেন। মামলার এক নম্বর আসামি মোসা. খাদিজা আক্তার ও দুই নম্বর আসামি ‘আশা মেইড এজেন্সি লিমিটেড’-এর ম্যানেজার লোকমান হোসেন।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা গেছে, রাজধানী গুলশান-২ এর ৬৮ নম্বর রোডের ৬ নম্বর বাসার ম্যানেজার আলমগীর হোসেন। ওই বাসার মালিক হুমায়ন কবির সুজন ‘আশা মেইড এজেন্সি লিমিটেড’ নামে একটি প্রতিষ্ঠান থেকে গত ১২ আগস্ট কাজের মহিলা হিসেবে খাদিজা আক্তারকে আনেন। গত ১৬ আগস্ট হুমায়ন কবির তার স্ত্রী ও সন্তানদের নিয়ে বাসার বাইরে গেলে বিকাল তিনটার দিকে খাদিজা আক্তার আলমারি খুলে স্বর্ণের একটি চেইন, চারটি আংটি, ৬টি নাকফুল ও নগদ ১ লাখ ৭৫ হাজার টাকা চুরি করে। হুমায়ন কবির বাসায় ফেরার পর খাদিজা জানান, তিনি অসুস্থ বোধ করছেন। বিষয়টি আশা মেইড এজেন্সি লিমিটেডের ম্যানেজার লোকমান হোসেনকে জানালে পরদিন ১৭ আগস্ট সকালে তিনি একজন লোক পাঠিয়ে খাদিজাকে বাসা থেকে নিয়ে যান এবং বলেন অন্য একজন কাজের মহিলা দেবেন।

এদিন সন্ধ্যায় হুমায়ন কবিরের স্ত্রী আলমারি খুলে দেখেন স্বর্ণালংকার ও টাকা নেই। পরে বাসার সিসি (ক্লোজ সার্কিট) ক্যামেরার ফুটেজ ঘেটে দেখেন ১৬ আগস্ট বেলা ৩টা ১২ মিনিট থেকে ৩টা ১৪ মিনিটের দিকে খাদিজা আলমারি খুলে চুরি করেছে। বিষয়টি প্রথমে ‘আশা মেইড এজেন্সি লিমিটেড’ ম্যানেজার লোকমান হোসেনকে জানালে তিনি ব্যবস্থা নেবেন বলে জানান। পরবর্তীতে লোকমান আর কোনও সহায়তা করেনি।

মামলার বাদী আলমগীর হোসেন বলেন, আমি নিজে পুলিশের সঙ্গে থেকে ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে গত শুক্রবার রাত ২টার দিকে খাদিজাকে গ্রেফতার করিয়েছি। তার কাছ থেকে চুরি হওয়া চেইনটি উদ্ধার করা হয়েছে। অন্যান্য স্বর্ণালংকার ও টাকা খাদিজার মা ও চাচির কাছে রয়েছে বলে জানিয়েছে। শনিবার দিনভর থানাতেই ছিল খাদিজা। এদিন রাত সাড়ে ৮টার দিকে সে পালিয়ে গেছে। এ ঘটনায় দায়ি পুলিশ কর্মকর্তাদের বিরুদ্ধে তিনি মামলা করবেন বলে জানান।

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও খবর

সত্যের সন্ধানে নির্ভীক কিছু তরুণ সংবাদকর্মী নিয়ে আমাদের পথচলা

তথ্য মন্ত্রণালয়ের অধীন ডিএফপি’র মিডিয়া তালিকাভুক্ত ঢাকা জেলার একমাত্র স্থানীয় পত্রিকা