1. dailyfulki04@gmail.com : dfulki :
  2. fulki04@yahoo.com : Daily Fulki : Daily Fulki
বুধবার, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২২, ১২:৪৪ পূর্বাহ্ন

জাহাঙ্গীরনগরে উপাচার্য প্যানেলে আমির, নূরুল ও অজিত

  • আপডেট : শুক্রবার, ১২ আগস্ট, ২০২২
  • ৮৬ বার দেখা হয়েছে
জাবি উপাচার্য প্যানেল নির্বাচনে জয়ী আমির-নূরুল-অজিত

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে উপাচার্য প্যানেল নির্বাচনে বর্তমান উপাচার্যসহ তিন জন নির্বাচিত হয়েছেন। সিনেটের সচিব ও রিটার্নিং কর্মকর্তা নিবন্ধক রহিমা কানিজ শুক্রবার সন্ধ্যায় নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা করেন।

নির্বাচিত তিনজনের মধ্যে ৪৮ ভোট পেয়েছে প্রথম হন সাবেক উপ-উপাচার্য অধ্যাপক আমির হোসেন, ৪৬ ভোট পেয়ে দ্বিতীয় হন বর্তমান উপাচার্য অধ্যাপক নূরুল আলম এবং ৩২ ভোট পেয়ে তৃতীয় হয়েছেন বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিসংখ্যান বিভাগের অধ্যাপক অজিত কুমার মজুমদার।

রহিমা কানিজ জানান, মোট আট জন নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। বাকি প্রার্থীদের মধ্যে প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক সুফি মুস্তাফিজুর রহমান ২৩, আন্তর্জাতিক সম্পর্কের অধ্যাপক আব্দুল্লাহ হেল কাফী ২০, গণিতের অধ্যাপক লায়েক সাজ্জাদ এন্দেল্লাহ ১৯, বাংলার অধ্যাপক পৃথ্বীলা নাজনীন নীলিমা ১৫ এবং রসায়ন বিভাগের অধ্যাপক তপন কুমার সাহা ৭ ভোট পেয়েছেন।

সর্বোচ্চ ভোট পেয়ে অধ্যাপক আমির হোসেন তাৎক্ষণিক প্রতিক্রিয়ায় সাংবাদিকদের বলেন, “আমি মনে করেছিলাম প্রথম হব, সেটাই হয়েছে। যদি আচার্য আমাকে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের দায়িত্ব দেন তাহলে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে অনেক পরিবর্তন আসবে। আমি শিক্ষার্থীবান্ধব হয়ে কাজ করব। কখনোই চাইব না, আমার ছাত্ররা মশার কামড় আর ছাড়পোকার কামড় খেয়ে বেড়াক। শিক্ষার্থীদের যত ধরনের সুযোগ-সুবিধা আমাদের সামর্থ্য অনুযায়ী দিতে পারি তা আমরা দিব। সবাইকে আস্থায় নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় পরিচালনা করব।”

বিশ্ববিদ্যালয়ের নিবন্ধক রহিমা কানিজ সাংবাদিকদের জানান, এই নির্বাচনে মোট ভোটার ছিলেন ৮১ জন সিনেটর; ভোট দিয়েছেন ৭৯ জন। সিনেট সভা চলাকালে একজন প্রস্তাবকারী ও সমর্থনকারীর মাধ্যমে প্রার্থিতা ঘোষণা দেওয়া হয়। এ ছাড়া সভা চলাকালে এক ঘণ্টা প্রচারের জন্য বরাদ্দ রাখা হয়েছিল। পরে গোপন ব্যালটে ভোট গ্রহণ হয়।

তিনি জানান, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় অ্যাক্ট ১৯৭৩-এর ১১ (১) ধারা অনুযায়ী প্রথম তিন জনের নাম আচার্য তথা মহামান্য রাষ্ট্রপতির কাছে মনোনয়নের জন্য পাঠানো হবে। তিনি তিন জনের এই তালিকা থেকে একজনকে উপাচার্য নিয়োগ দেবেন।

‘বঙ্গবন্ধু শিক্ষক পরিষদ’র একাংশ হিসেবে অধ্যাপক নূরুল আলমের নেতৃত্বে এই প্যানেল গঠিত হয়।

একই দিন বিকালে কলা অনুষদের শিক্ষক লাউঞ্জে কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক রাশেদা আখতারের নেতৃত্বে ‘বঙ্গবন্ধু শিক্ষক পরিষদ’র একাংশ আরও একটি প্যানেল ঘোষণা করে।

ওই প্যানেলে কোষাধ্যক্ষ নিজে অংশগ্রহণ করবেন না বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন। সেখানে ছিলেন শিক্ষক সমিতির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মোতাহার হোসেন, প্রাধ্যক্ষ কমিটির সভাপতি অধ্যাপক আবদুল্লা হেল কাফি ও রসায়ন বিভাগের অধ্যাপক তপন কুমার সাহা।

তবে অধিবেশনের শুরুতে এই প্যানেলের অধ্যাপক মোতাহার হোসেন তার প্রার্থিতা প্রত্যাহার করে নেন।

বুধবার রাতে আওয়ামীপন্থী শিক্ষকদের একাংশের সংগঠন ‘বঙ্গবন্ধুর আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী প্রগতিশীল শিক্ষক সমাজ’-এর পক্ষ থেকে সাবেক উপ-উপাচার্য অধ্যাপক আমির হোসেন একটি প্যানেল ঘোষণা করেন। সেখানে প্যানেল সহযোগী হিসেবে ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রত্নতত্ত্ব বিভাগের অধ্যাপক সুফি মোস্তাফিজুর রহমান এবং বাংলা বিভাগের অধ্যাপক পৃথ্বিলা নাজনীন নীলিমা।

এই প্যানেল থেকে সর্বোচ্চ ৪৮ ভোট পেয়েছেন অধ্যাপক আমির হোসেন।

গত ২৭ জুলাই উপাচার্য অধ্যাপক নূরুল আলমের নির্দেশে ১২ অগাস্ট বিশেষ সিনেট সভা আহ্বান করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের নিবন্ধক রহিমা কানিজ।

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও খবর

সত্যের সন্ধানে নির্ভীক কিছু তরুণ সংবাদকর্মী নিয়ে আমাদের পথচলা

তথ্য মন্ত্রণালয়ের অধীন ডিএফপি’র মিডিয়া তালিকাভুক্ত ঢাকা জেলার একমাত্র স্থানীয় পত্রিকা