1. dailyfulki04@gmail.com : dfulki :
  2. fulki04@yahoo.com : Daily Fulki : Daily Fulki
বৃহস্পতিবার, ১৮ অগাস্ট ২০২২, ১০:২৪ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ খবর
ইতালির বাংলাদেশ দূতাবাসে ভাংচুর, ১৫ দিনের মধ্যে পাসপোর্ট না পেলে দলবদ্ধ আত্মহত্যার হুমকি হাজারও প্রবাসীর রাজধানীতে আওয়ামী লীগের ‘শোডাউন’, যানজটে দুর্ভোগ জাতিসংঘ প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বিএনপির বৈঠক, যেসব তথ্য দিল বায়ুদূষণে ২০১৯ সালে ঢাকায় ২২ হাজার মানুষের মৃত্যু চুরি হওয়া রিকশা খুঁজতে গিয়ে চোর চক্র গড়ে তোলেন কামাল ‘হাওয়া’ সিনেমার পরিচালকের বিরুদ্ধে মামলা সাভারে মাদ্রাসা শিক্ষার্থীকে পাশবিক নির্যাতন অভিযোগ আশুলিয়ায় কমার্স ব্যাংকে ডাকাতি ও খুন: ছয়জনের মৃত্যুদণ্ড হাইকোর্টে বহাল সিংগাইরে মরণ ফাঁদে প্রাণ গেল মাদরাসা ছাত্রীর! যাত্রাবাড়ীতে ইউনিট আওয়ামী লীগ সভাপতি খুন

আশুলিয়ায় নূর বিশ্বাস হত্যা: কথিত স্ত্রী গ্রেফতার

  • আপডেট : বুধবার, ৩ আগস্ট, ২০২২
  • ৬৯ বার দেখা হয়েছে

শাহাদাৎ হোসেন,  আশুলিয়া প্রতিনিধি : বিয়ে না করেই তিন বছর বিভিন্ন বাসায় স্বামী-স্ত্রী পরিচয়ে বাসা ভাড়া নিয়ে থাকতেন আলী নূর বিশ্বাস ও আহিনা খাতুন। সম্প্রতি আলী নূরের গ্রামের বাড়িতে বিয়ের কথা শুনে ক্রোধে তাকে বটি দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেন আহিনা খাতুন।

আশুলিয়ায় এমন ক্লুলেস হত্যা মামলার মূল আসামি আহিনা খাতুনকে (২৯) নারায়ণগঞ্জের কাঁচপুর এলাকা থেকে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-৪। সেই সঙ্গে বেরিয়ে এসেছে আরও চাঞ্চল্যকর সব তথ্য।

মঙ্গলবার (০৩ আগস্ট) দুপুরে এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন র‌্যাব-৪ এর কোম্পানি কমান্ডার লেফটেন্যান্ট কমান্ডার রাকিব মাহমুদ খাঁন।

এরআগে মঙ্গলবার  রাতে নারায়ণগঞ্জ জেলার কাঁচপুর এলাকায় অভিযান পরিচালনা তাকে গ্রেফতার করে র‌্যাব।

জানা গেছে, ভুক্তভোগী আলী নূর বিশ্বাস মাগুড়া জেলার শ্রীপুর থানার হোগলডাঙ্গা গ্রামের বাসিন্দা। চাকরির সন্ধানে ২০১৪ সালে ঢাকায় এসে প্রথমে গার্মেন্টসকর্মী হিসেবে কাজ শুরু করেন। পরে কিছুদিন হলো অটোরিকশা চালিয়ে সংসার চালাচ্ছিলেন তিনি। আসামি আহিনা খাতুনের বক্তব্য অনুযায়ী প্রায় তিন বছর আগে ভিকটিমের সঙ্গে তার পরিচয়ের সূত্র ধরে তাদের মধ্যে গভীর সখ্য গড়ে ওঠে। সম্পর্কের এক পর্যায়ে তারা দুজনই একসঙ্গে বসবাস করার সিদ্ধান্ত নেন।

এমতাবস্থায় বিবাহ ছাড়াই তারা নিজ নিজ পরিবারকে না জানিয়েই স্বামী-স্ত্রীর পরিচয়ে আশুলিয়া এলাকায় বিভিন্ন বাসায় ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাস করতে থাকেন। এই তিন বছরে তারা পাঁচ বার বাসা পরিবর্তন করেছেন।

আরও জানা গেছে, জুলাই মাসের শুরুতে হত্যার শিকার আলী নূর বিশ্বাস কিছু দিনের জন্য মাগুরা জেলার শ্রীপুর থানার গ্রামের বাড়ি গেলে আহিনা খাতুন জানতে পারেন ১৪ জুলাই গ্রামের বাড়িতে ভুক্তভোগী অন্য একটি মেয়েকে বিয়ে করেছেন। পরে আলী নূর ১৭ জুলাই ঢাকায় ফিরে আসেন। আলী নূরের বিয়ের কথা জানতে পেরে আহিনার মনে ক্রোধ এবং প্রতিহিংসার সৃষ্টি হয়।

তিনি আলী নূরকে গোপনে হত্যার পরিকল্পনা করেন। তাদের মধ্যকার মান-অভিমান চলতে থাকলেও কৌশলে ২৯ জুলাই আশুলিয়ার জিরাবো নামাপাড়া এলাকায় দেলোয়ার বেপারীর টিনশেড বাসায় স্বামী-স্ত্রী পরিচয় দিয়ে ভাড়াটিয়া হিসেবে বসবাস করতে শুরু করেন। ৩০ জুলাই রাতের খাবার শেষে উভয়েই ঘুমিয়ে পড়েন। আহিনা খাতুন সেদিন ভোররাতে আলী নূরকে ঘুমন্ত অবস্থায় বটি দিয়ে মাথা, গলা এবং বুকে নৃশংশভাবে কুপিয়ে হত্যা করেন।

আসামির বক্তব্যের সূত্র ধরে র‌্যাব আরও জানায়, রক্তাক্ত মরদেহ দেখে কিছুটা ভয় পেয়ে কাঁথা চাপা দিয়ে রাখেন আহিনা খাতুন। হত্যার পরে তার থালা-বাসন, কাপড় এবং নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদি একটি বস্তায় ভরে ভোরেই ঘর তালা দিয়ে বস্তাটি নিয়ে হেঁটে প্রথমে জিরাবো বাসস্ট্যান্ড এলাকায় আসেন। সেখান থেকে বাস যোগে নারায়ণগঞ্জের কাঁচপুর এলাকায় আসেন তিনি।

সেখানে আহিনা নিজেকে চাকরিপ্রত্যাশী গার্মেন্টসকর্মী পরিচয় দিয়ে ২২০০ টাকায় ভাড়ায় জনৈক মজিবুরের সহযোগিতায় একটি টিনশেড বাসায় ভাড়াটিয়া হিসেবে ওঠেন এবং আত্মগোপনে চলে যান। আহিনা বিবেকের তাড়নায় ৩১ জুলাই বিকেলের দিকে আলী নূরের মোবাইলের মাধ্যমে ভিকটিমের ভগ্নিপতি জাকিরকে জানান যে, আলী নূর অসুস্থ, তাকে বাঁচাতে তার পরিবার যেন দ্রুত আশুলিয়ার জিরাবো এলাকায় দেলোয়ার বেপারীর টিনশেড ভাড়া বাসায় যান।

০১ আগস্ট দুপুরে সংবাদ পেয়ে ভিকটিমের পরিবারের লোকজন জিরাবোর সেই টিনশেড বাসায় গিয়ে দেখতে পান যে রুমের দরজা বাইরে থেকে তালাবদ্ধ। তারা বাসার মালিক ও স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় জানালা খুললে রুমের ভেতর হতে তীব্র দুর্গন্ধসহ মেঝেতে কাঁথা মোড়ানো অবস্থায় চিৎ হয়ে ভিকটিম আলী নূরের মরদেহ দেখতে পান।

পুলিশকে জানালে আশুলিয়া থানা পুলিশ ঘরের তালা ভেঙে রুমের ভেতর থেকে মরদেহ বের করে। উক্ত ঘটনাটি প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক্স মিডিয়াসহ এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করে। পরবর্তীতে সুরতহাল ও ময়না তদন্ত শেষে ২ আগস্ট ভুক্তভোগীর বড় ভাই বাদী হয়ে আশুলিয়া থানায় অজ্ঞাতনামা আসামিদের বিরুদ্ধে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এর পরই র‌্যাব-৪ আসামি গ্রেফতারে ছায়া তদন্ত শুরু করে। গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে আহিনা খাতুনকে গ্রেফতার করে র‌্যাব সদস্যরা।

র‌্যাব-৪ এর কোম্পানি কমান্ডার লেফটেন্যান্ট কমান্ডার রাকিব মাহমুদ খান জানান, আসামিকে প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানা গেছে আসামি নীলফামারীর একটি স্কুল থেকে তৃতীয় শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশোনা করেন। তাদের পাঁচ ভাইবোনের মধ্যে তিনি চতুর্থ। ২০১২ সালে জনৈক মিজানুর রহমানের সঙ্গে তার প্রথম বিবাহ হলেও পারিবারিক কলহের কারণে দেড় বছর পরে তাদের বিচ্ছেদ ঘটে। উক্ত পরিবারে তার ০১ টি ছেলে সন্তান রয়েছে। পরবর্তীতে জীবিকার তাগিদে তার সন্তানকে মায়ের কাছে রেখে ২০১৮ সালে ঢাকায় আসেন এবং আশুলিয়ার একটি গার্মেন্টসে চাকরি নেন। চাকরির সুবাদে ভুক্তভোগী আলী নুরের সঙ্গে তার পরিচয় হয়। সেখান থেকেই শুরু হয় তাদের সম্পর্ক ও শেষ পর্যন্ত তাকে হত্যা করেন আহিনা খাতুন। আসামিকে আশুলিয়া থানায় হস্তান্তরের প্রক্রিয়া চলছে।

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও খবর

সত্যের সন্ধানে নির্ভীক কিছু তরুণ সংবাদকর্মী নিয়ে আমাদের পথচলা

তথ্য মন্ত্রণালয়ের অধীন ডিএফপি’র মিডিয়া তালিকাভুক্ত ঢাকা জেলার একমাত্র স্থানীয় পত্রিকা