1. dailyfulki04@gmail.com : dfulki :
  2. fulki04@yahoo.com : Daily Fulki : Daily Fulki
বৃহস্পতিবার, ১৮ অগাস্ট ২০২২, ১০:২৫ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ খবর
ইতালির বাংলাদেশ দূতাবাসে ভাংচুর, ১৫ দিনের মধ্যে পাসপোর্ট না পেলে দলবদ্ধ আত্মহত্যার হুমকি হাজারও প্রবাসীর রাজধানীতে আওয়ামী লীগের ‘শোডাউন’, যানজটে দুর্ভোগ জাতিসংঘ প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বিএনপির বৈঠক, যেসব তথ্য দিল বায়ুদূষণে ২০১৯ সালে ঢাকায় ২২ হাজার মানুষের মৃত্যু চুরি হওয়া রিকশা খুঁজতে গিয়ে চোর চক্র গড়ে তোলেন কামাল ‘হাওয়া’ সিনেমার পরিচালকের বিরুদ্ধে মামলা সাভারে মাদ্রাসা শিক্ষার্থীকে পাশবিক নির্যাতন অভিযোগ আশুলিয়ায় কমার্স ব্যাংকে ডাকাতি ও খুন: ছয়জনের মৃত্যুদণ্ড হাইকোর্টে বহাল সিংগাইরে মরণ ফাঁদে প্রাণ গেল মাদরাসা ছাত্রীর! যাত্রাবাড়ীতে ইউনিট আওয়ামী লীগ সভাপতি খুন

মাসে একটি পিৎজা খাওয়ানোর চুক্তিতে বিয়ে

  • আপডেট : রবিবার, ১৭ জুলাই, ২০২২
  • ৭২ বার দেখা হয়েছে

বিয়েতে বর-কনের মধ্যে বিভিন্ন বিষয়ে চুক্তি হয়। সারাজীবন যার সঙ্গে থাকবেন তার সঙ্গে আগে থেকেই বিভিন্ন বিষয়ে প্রতিশ্রুতি দেওয়া বা নেওয়া একটি স্বাভাবিক বিষয়। কিন্তু ভারতের এক দম্পতি তাদের বিয়েতে যে চুক্তি করেছেন তা নিয়ে রীতিমত আলোচনা শুরু হয়েছে। সামাজিক মাধ্যমেও এ সংক্রান্ত একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে।

ওই নবদম্পতি একটি চুক্তিতে সই করেছেন যেখানে বলা আছে যে, বিয়ের পর কী করা যাবে, আর কী করা যাবে না। বর ও কনের বন্ধুরা এই তালিকা তৈরিতে সাহায্য করেছেন।

গত ২২ জুন তাদের বিয়ের পরদিন এই চুক্তি ইন্সটাগ্রামে আপলোড করা হয়। ১৬ সেকেন্ডের ওই ভিডিও ইতোমধ্যেই ভাইরাল হয়ে গেছে। ৪৫ মিলিয়ন মানুষ এই ভিডিও দেখেছে।

india-3

এর আগেও বিয়েতে এ ধরনের চুক্তির ঘটনা দেখা গেছে। বিয়েতে বর কনে বা বন্ধু-বান্ধবদের এমন চুক্তির ঘটনা নতুন কিছু নয়। কিন্তু সাম্প্রতিক এই ভিডিও সবাইকে আকর্ষণ করেছে ভিন্ন কারণে। এই চুক্তির একেবারে ওপরের দিকে বলা হয়েছে, প্রতি মাসে শুধু একটি পিৎজা খাওয়াতে হবে।

শান্তি প্রসাদ নামে ২৪ বছর বয়সী কনে জানিয়েছেন, তার বন্ধুরা তাকে ‘পিৎজাপ্রেমী’ হিসেবে জানেন। কলেজ জীবন থেকেই মিন্টু রায়ের (২৫) সঙ্গে তার প্রেম। উত্তর-পূর্ব ভারতের আসাম রাজ্যের গোহাটিতে প্রথা অনুযায়ীই তাদের বিয়ে হয়েছে। বন্ধুত্ব থেকে প্রেম তারপর বিয়ে।

india-3

মিন্টু বলেন, কলেজে থাকতে শেষ ক্লাস ফাঁকি দিয়ে কাছের একটি পিৎজার দোকানে চলে যেতাম আমরা। আমি এটা জানতাম যে তাকে আমার পিৎজার দোকানে নিয়ে যেতে হবে। কারণ সে সব সময় পিৎজার কথা বলতো।

অপরদিকে শান্তি বলেন, পিৎজা আমার খুব পছন্দের। কোথাও ঘুরতে গেলেই আমি তাকে বলতাম চল পিৎজা খাই। মিন্টুরও পিৎজা পছন্দ কিন্তু সে একই জিনিস প্রতিদিন খেতে চাইতো না। সে মাঝে মাঝেই বলতো, আর কত পিৎজা খাবে, এবার অন্য কিছু খাই। তবে খাবার নিয়ে তাদের মধ্যে কখনও ঝগড়া হয়নি।

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও খবর

সত্যের সন্ধানে নির্ভীক কিছু তরুণ সংবাদকর্মী নিয়ে আমাদের পথচলা

তথ্য মন্ত্রণালয়ের অধীন ডিএফপি’র মিডিয়া তালিকাভুক্ত ঢাকা জেলার একমাত্র স্থানীয় পত্রিকা