1. dailyfulki04@gmail.com : dfulki :
  2. fulki04@yahoo.com : Daily Fulki : Daily Fulki
বৃহস্পতিবার, ১৮ অগাস্ট ২০২২, ১১:৩৮ পূর্বাহ্ন
সর্বশেষ খবর
ইতালির বাংলাদেশ দূতাবাসে ভাংচুর, ১৫ দিনের মধ্যে পাসপোর্ট না পেলে দলবদ্ধ আত্মহত্যার হুমকি হাজারও প্রবাসীর রাজধানীতে আওয়ামী লীগের ‘শোডাউন’, যানজটে দুর্ভোগ জাতিসংঘ প্রতিনিধি দলের সঙ্গে বিএনপির বৈঠক, যেসব তথ্য দিল বায়ুদূষণে ২০১৯ সালে ঢাকায় ২২ হাজার মানুষের মৃত্যু চুরি হওয়া রিকশা খুঁজতে গিয়ে চোর চক্র গড়ে তোলেন কামাল ‘হাওয়া’ সিনেমার পরিচালকের বিরুদ্ধে মামলা সাভারে মাদ্রাসা শিক্ষার্থীকে পাশবিক নির্যাতন অভিযোগ আশুলিয়ায় কমার্স ব্যাংকে ডাকাতি ও খুন: ছয়জনের মৃত্যুদণ্ড হাইকোর্টে বহাল সিংগাইরে মরণ ফাঁদে প্রাণ গেল মাদরাসা ছাত্রীর! যাত্রাবাড়ীতে ইউনিট আওয়ামী লীগ সভাপতি খুন

ডিইপিজেডে বন্ধ কারখানার ১১শ’ শ্রমিক আড়াই বছর পর বকেয়া বেতন পেলেন ১৮ কোটি টাকা

  • আপডেট : সোমবার, ৪ জুলাই, ২০২২
  • ১৫৯ বার দেখা হয়েছে

আশুলিয়া প্রতিনিধি : বাংলাদেশ রপ্তানী প্রক্রিয়াকরণ এলাকা কর্তৃপক্ষ’ বেপজার উদ্যোগে দীর্ঘ আড়াই বছর পরে ঢাকা ইপিজেডে অবস্থিত একটি বন্ধ কারখানার সাড়ে ১১শ শ্রমিকদের বকেয়া প্রায় সাড়ে ১৮ কোটি পাওয়ানাদি বুঝে পেল শ্রমিকরা।

সোমবার (৪ জুলাই) দুপুরে ১২ টার দিকে সাভারে ঢাকা ইপিজেডের অডিটরিয়ামে এ ওয়ান বিডি লিমিটেড নামে বন্ধ হওয়া কারখানার প্রায় সাড়ে ১১ শত শ্রমিকদের এই পাওয়ানাদি পরিশোধের কার্যক্রম উদ্বোধন করা হয়। এসময় সেই কারখানার ৮ শ্রমিককে টাকার প্রতীকী হিসেবে পে-অর্ডার তুলে দেয়া হয়।

ঢাকা ইপিজেডের নির্বাহী পরিচালক আব্দুস সোবাহান হিসেবে উপস্থিত থেকে তাদের হাতে এই প্রতীকী পে-অর্ডার তুলে দেন। এছাড়া আজকে প্রায় ১ হাজার শ্রমিককে তাদের ব্যাংক একাউন্টে বকেয়া পাওয়ানাদি জমা দিয়েছে ঢাকা ইপিজেড। বাকি শ্রমিকরা তাদের প্রয়োজনীয় কাগজপত্র জমা দিলে তাদের বকেয়া পাওনা তাদের ব্যাংক একাউন্টে জমা দেয়া হবে।

নির্বাহী পরিচালক আব্দুস সোবাহান বলেন, ২০২০ সালের এপ্রিলে ঢাকা ইপিজেডে অবস্থিত এ ওয়ান বিডি লিমিপটেড নামে একটি কারখানা বন্ধ ঘোষণা করে। এসময় কারখানায় প্রায় ১১৩১ শ্রমিক তাদের বকেয়া পাওনা বুঝে পাইনি। পরে বিভিন্ন সময় শ্রমিকরা আন্দোলন করলেও তাদের আশ্বাস্ত করা হয়েছে। সেই ধারাবাহিকতায় এ ওয়ান কারখানাটি দীর্ঘ প্রক্রিয়া শেষে নিলামের মাধ্যমে সুইডেনভিত্তিক প্রতিষ্ঠানের কাছে প্রায় ৪৩ কোটি ২০ লাখ টাকা বিক্রি করা হয়। পরে সেখান থেকে শ্রমিকদের পাওনা প্রায় সাড়ে ১৮ কোটি টাকা পরিশোধের উদ্যোগ নেয় ইপিজেড। শ্রমিকদের তাদের ব্যাংক একাউন্টের মাধ্যমে এই বকেয়া পরিশোধ করা হচ্ছে।

বন্ধ হওয়া সেই কারখানার শ্রমিক আব্দুর রশিদ বলেন, আমি আমার পাওনা দুই লাখ ৮০ টাকা বুঝে পেয়েছি। আমি খুবই আনন্দিত। বেপজার প্রতি আমাদের আস্থা ছিলো। তাই আমরা বুঝে পেয়েছি।

আরেক শ্রমিক আঁখি আক্তার বলেন, কারখানা যখন বন্ধ হয়ে যায়, তখন খুব আতঙ্কে ছিলাম। এই টাকা আর পাবো কিনা, এই নিয়ে। কিন্তু বেপজা কর্তৃপক্ষ বারবার আশ্বাস্ত করছে। আমরা খুশি, যে আমার পাওনা টাকা বুঝে পাইছি।

দীর্ঘদিন পরে হলেও শ্রমিকরা তাদের বকেয়া পাওয়া পেয়ে আনন্দিত। এসময় ঢাকা ইপিজেডের অন্যান্য কর্মকর্তা উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও খবর

সত্যের সন্ধানে নির্ভীক কিছু তরুণ সংবাদকর্মী নিয়ে আমাদের পথচলা

তথ্য মন্ত্রণালয়ের অধীন ডিএফপি’র মিডিয়া তালিকাভুক্ত ঢাকা জেলার একমাত্র স্থানীয় পত্রিকা