1. dailyfulki04@gmail.com : dfulki :
  2. fulki04@yahoo.com : Daily Fulki : Daily Fulki
সোমবার, ০৮ অগাস্ট ২০২২, ০২:০৭ অপরাহ্ন

সিংগাইরে কোরবানী ঈদে বিক্রির জন্য প্রস্তুত ২৫ হাজার গরু-ছাগল

  • আপডেট : রবিবার, ৩ জুলাই, ২০২২
  • ১৫২ বার দেখা হয়েছে

গো-খাদ্যের উচ্চ মূলের কারণে গরু-ছাগল লালন-পালনে খরচ বেশি পড়ায় বিক্রিত দাম নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছেন রাজধানীর উপকন্ঠ মানিকগঞ্জের সিংগাইর উপজেলার পারিবারিকভাবে পশু পালনকারীসহ খামারিরা। আসন্ন পবিত্র ঈদুল আযহা উপলক্ষ্যে গবাদি পশু সমৃদ্ধ এ অঞ্চলে প্রায় ২৫ হাজার পশু প্রস্তুত করেছেন ছোট বড় সব খামারিরা। শনিবার (২ জুলাই) সরেজমিনে ঘুরে দেখা যায় উপজেলার ১১ টি ইউনিয়ন ও ১ টি পৌরসভায় তালিকাভূক্ত ৩শত ৭৪ জন বানিজ্যিক খামারি, প্রান্তিক কৃষক ও মওসুমী ব্যবসায়ীসহ প্রায় ১১‘শ খামারে এসব গরু-ছাগল পালন করা হচ্ছে।

উপজেলা প্রাণীসম্পদ অফিসের তথ্যমতে, সিংগাইর উপজেলায় বানিজ্যিক খামারি ১৬হাজার ৭শত গরু-ছাগল মোটাতাজা করছেন। এর মধ্যে গরু ৯ হাজার ৫’শত, মহিষ ২৫ টি, ছাগল ৭ হাজার ৮২টি ও ভেড়া ৯৩টি। এছাড়াও প্রান্তিক কৃষক ও মওসুমী বেপারী পর্যায়ের সব মিলে প্রায় ২৫ হাজারের অধিক পশু কোরবানীর জন্য প্রস্তুত রয়েছে। এ উপজেলায় দেশী জাতের গরু মোটাতাজা করা হচ্ছে ৮০ ভাগ। এ ছাড়া শংকর জাত যেমন- রেড চিটাগাং, ক্যাটেল শাহিয়াল, ফ্রিজিয়ান ও জার্সি মিলিয়ে রয়েছে ২০ ভাগ।

সবকিছুরপর ভারতীয় গরু কিংবা প্রাকৃতিক কোনো দুর্যোগ না হলে ভাল দাম পাবেন এমনটাই আশা করলেও চলমান গো-খাদ্য মূলের উর্ধ্বগতির কারণে পশু মোটাতাজাকরণকারী ব্যক্তিরা চরম হতাশায় ভুগছেন।

গত কয়েক সপ্তাহের ব্যবধানে উপজেলার বিভিন্ন বাজারে সব ধরনের ভুসি, চিটাগুড়, ভুট্টাভাঙা, ফিড, খুদ, খৈলসহ সবুজ ঘাসের দাম বেড়েছে। গো-খাদ্যের দাম অস্বাভাবিক হারে বৃদ্ধি পাওয়ায় উপজেলায় দুধ উৎপাদন ও পশু মোটাতাজাকরণে ব্যয় বেড়েছে খামারিদের। ঈদ যতই এগিয়ে আসছে গো-খাদ্যের দাম ততই বাড়ছে। এতে খামারিদের খরচও বাড়ছে। ফলে গবাদি পশু পালনে হিমশিম খেতে হচ্ছে খামারিদের। বর্তমানে এ উপজেলার শতকরা ৮০ ভাগ লোক এ পেশার সাথে জড়িত রয়েছে। খামারি ছাড়াও কৃষকেরা বাড়তি আয়ের জন্য অধিকাংশ বাড়িতেই দু’একটি করে হলেও গরু ছাগল মোটাতাজা করে থাকেন।

কিছু দিন আগেও যে গমের ভুসি ১ হাজার ৮৫০ টাকা ছিল তা এখন বেড়ে দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ৪’শত টাকায়। খৈল ২ হাজার ৮০০ টাকা থেকে বেড়ে হয়েছে ৩ হাজার ৩’শত টাকা। এ ছাড়া দাম বৃদ্ধির তালিকায় রয়েছে চিটাগুড়, ভুট্টাভাঙা, ফিড, খুদ, খৈলসহ সবুজ ঘাস।
খামারিদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, গত কয়েক সপ্তাহের ব্যবধানে গো-খাদ্যের দাম অস্বাভাবিকভাবে বৃদ্ধি পাওয়ায় উপজেলার অধিকাংশ খামারিরা পরিমাণ মতো খাদ্যের যোগান দিতে না পেরে গবাদিপশুর খাবার কমিয়ে দিয়েছেন। তারা আরও জানান, এতদিন ভালো চললেও গো-খাদ্যের দাম বৃদ্ধির ফলে আর্থিক সংকটের মুখে পড়েছেন। এজন্য সরকারের কাছে সহযোগীতাও চান তারা। অন্যথায় বন্ধ হয়ে যেতে পারে এ এলাকার অধিকাংশ গবাদিপশুর খামার।

সরেজমিনে বিভিন্ন বাজারে গিয়ে দেখা গেছে, বর্তমানে খোলা বাজারে প্রতি কেজি গমের ভুসি বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকায়, চালের খুদ বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকা ও খৈল বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকা কেজি দরে। এ ছাড়া চিটা, ভুট্টাভাঙা, ফিড, খুদ, খৈলসহ সবুজ ঘাস খুচরা বাজারে কেজিপ্রতি বেড়েছে ১০-২০ টাকা।

প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী , সিংগাইর উপজেলায় স্থায়ীভাবে ৫ টি হাটে গবাদি পশু বেচাকেনা হয়। স্থানীয়রা জানিয়েছেন, দূর-দুরান্ত থেকেও ক্রেতারা এ উপজেলায় এসে স্থানীয় হাট-বাজার ছাড়াও খামার থেকে গরু ক্রয় করে নিয়ে যান। উপজেলার হাটগুলোর মধ্যে বায়রা,সিংগাইর, জয়মন্টপ, সিরাজপুর ও মানিক নগর হাট ।

এ ব্যাপারে সিংগাইর উপজেলা প্রাণী সম্পদ কর্মকর্তা ডা. ফারুক আহাম্মদ বলেন, আমি যতটুকু জানি এ এলাকায় গবাদিপশুর গুনগত মান ভালো। কৃত্রিম উপায়ে না করে প্রাকৃতিক উপায়ে মোটাতাজাকরণ করা হয়। বাজারে গো-খাদ্যের দাম অনেক বেশি হওয়ায় অধিকাংশ খামারিরা বিপাকে পড়েছেন। এতে যারা গরু, ছাগল মোটাতাজা করেছেন তাদের আর্থিক ক্ষতির সম্ভাবনা দেখা দিয়েছে। এজন্য গবাদিপশু পালনকারী ও খামারিদের দানাদার খাবারের উপর চাপ কমিয়ে ঘাস উৎপাদনের দিকে মনোযোগ বাড়ানোর পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও খবর

সত্যের সন্ধানে নির্ভীক কিছু তরুণ সংবাদকর্মী নিয়ে আমাদের পথচলা

তথ্য মন্ত্রণালয়ের অধীন ডিএফপি’র মিডিয়া তালিকাভুক্ত ঢাকা জেলার একমাত্র স্থানীয় পত্রিকা