ধামরাই প্রতিনিধি : ধামরাইয়ে যাদবপুর ইউনিয়নের নিজ বাড়ির শয়নকক্ষ থেকে জুলেখা আক্তার শিখা নামে এক গৃহবধূর গলায় ওড়না পেঁচানো অবস্থায় রহস্যজনক মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিহতের স্বামী মেহেদী হাসানকে আটক করেছে পুলিশ।

শুক্রবার (১১ সেপ্টেম্বর) সকালে উপজেলার যাদবপুর ইউনিয়নের উত্তরপাড়া গ্রামের ওই গৃহবধূর শ্বশুর বাড়ি থেকে এ মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

নিহত জুলেখা আক্তার শিখা (২৫) ধামরাইয়ের যাদবপুর ইউনিয়নের উত্তরপাড়া গ্রামের মেহেদি হাসানের স্ত্রী। তার বাবার বাড়ি আশুলিয়া উপজেলার শিমুলিয়া ইউনিয়নের গোয়ালবাড়ি এলাকায়।

পুলিশ জানায়, বৃহস্পতিবার রাত পৌনে ২ টার দিকে হঠাৎ প্রসাবের বেগে পেলে ঘুম ভেঙ্গে যায় স্বামী মেহেদী হাসানের। এসময় তার স্ত্রী জুলেখাকে গলায় ওড়না পেঁচানো অবস্থায় কক্ষের ভিতরে ফাইল কেবিনেটের সাথে হেলানো দিয়ে বসে থাকতে দেখে।

পরে মেহেদীর ডাকে পরিবারের অন্য সদস্যরা এসে গৃহবধূ জুলেখাকে মৃত অবস্থায় দেখতে পায়। খবর পেয়ে পুলিশ সকাল ৭টার দিকে ঘটনাস্থলে পৌঁছে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করে।

এ বিষয়ে ধামরাই থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আজাহারুল ইসলাম বলেন, নিহত গৃহবধূ জুলেখার পরিবারের অভিযোগ থাকায় মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য রাজধানার সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণের প্রস্তুতি চলছে।

তবে নিহতের গলায় দাগ পাওয়া গেলেও মৃত্যুর কারণ প্রাথমিক সুরতহালে নিশ্চিত হওয়া যায়নি। এঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিহতের স্বামী মেহেদী হাসানকে আটক করা হয়েছে। তবে এ বিষয়ে থানায় একটি মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলেও জানান তিনি।