কক্সবাজারে পুলিশের গুলিতে মেজর (অব.) সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান নিহতের পর মাদক মামলায় গ্রেফতার শিপ্রা দেবনাথ জামিনে মুক্তি পেয়েছেন। রবিবার বিকাল সোয়া ৩টার দিকে কক্সবাজার জেলা কারাগার থেকে মুক্তি পেয়ে বেরিয়ে আসেন তিনি।আজ রোববার রামুর সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে তাঁর জামিন মঞ্জুর করা হয়।

গত ৩১ জুলাই কক্সবাজারের শামলাপুর এলাকায় পুলিশের গুলিতে নিহত হন সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মো. রাশেদ খান। ওই ঘটনায় টেকনাফ থানায় একটি ও রামু থানায় পুলিশ বাদী হয়ে পৃথক দুটি মামলা দায়ের করেছিল। রামু থানার মামলায় আসামি করা হয়েছিল স্ট্যামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী শিপ্রা দেবনাথকে। শিপ্রা দেবনাথকে আইন ও সালিশ কেন্দ্র আইনি সহযোগিতা দিচ্ছে।

শিপ্রার পক্ষে আইনজীবী অরূপ বড়ুয়া বলেন, দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে তাঁরা আদালতে জামিন আবেদন করেন। তাঁরা আদালতকে বলেন, শিপ্রা আসামি নন, তিনি ঘটনার শিকার হয়েছেন। মেজর (অব.) সিনহা মো. রাশেদ খান হত্যার ঘটনাটিকে ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করতে পুলিশ একটি বানোয়াট মামলা করেছে। রাষ্ট্রপক্ষ জামিন আবেদনের বিরোধিতা করেছিলেন। আদালত শিপ্রাকে জামিন দেন।

গত ৩ জুলাই স্ট্যামফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ফিল্ম অ্যান্ড মিডিয়া বিভাগের তিন শিক্ষার্থী শিপ্রা দেবনাথ, সাহেদুল ইসলাম সিফাত ও তাহসিন ইফাত নূর কক্সবাজারে যান। ‘জাস্ট গো’ শিরোনামে মেজর (অব.) সিনহা যে তথ্যচিত্র নির্মাণের কাজ করছিলেন, সেখানে কাজ করছিলেন এই তিন শিক্ষার্থী।

তাঁদের মধ্যে তাহসিনকে পুলিশ আগেই ছেড়ে দেয়। হত্যাকাণ্ডের প্রত্যক্ষদর্শী সিফাত এখনো কারাগারে। নয় দিন ধরে কারাগারে আছেন শিপ্রা দেবনাথও। পুলিশ ১ আগস্ট শিপ্রাকে গ্রেপ্তার দেখায় এবং পাঁচ দিনের রিমান্ড আবেদন করে।