মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি : মানিকগঞ্জের দৌলতপুরে নৌকাডুবির ঘটনায় ভাই-বোনসহ তিনজনের লাশ উদ্ধার হয়েছে। নিখোঁজ রয়েছে আরো দুই শিশু। নিখোঁজ ও নিহতরা একে অপরের আত্মীয়। তারা ঈদের সময় আত্মীয়ের বাড়িতে বেড়াতে এসেছিলেন।

মঙ্গলবার দুপুরে মর্মান্তিক এই ঘটনা ঘটে উপজেলায় চরমাস্তল এলাকায়। এই ঘটনায় এলাকায় শোকের ছায়া নেমে এসেছে।

দৌলতপুর থানা পুলিশ ও পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, আব্দুল হক ঈদের আগে সাভার থেকে পরিবার পরিজন নিয়ে দৌলতপুর উপজেলার আবুডাঙ্গা গ্রামে শ্বশুর মামুদ আলীর বাড়িতে বেড়াতে আসেন। মঙ্গলবার দুপুরে শ্বশুড় বাড়ি থেকে একই উপজেলার চরমাস্তল গ্রামে ভায়রাভাই সেলিমের বাড়িতে নৌকা যোগে বেড়াতে যান। পরে সেলিমের ছেলে মনির হোসেনের নৌকায় চড়ে ঘুরতে বের হন আব্দুল হক, তার স্ত্রী হালিমা বেগম, ছেলে জিয়াউল হক জিয়া (১৩), মেয়ে রোকসান (১৭), মিথিলা (৬), শ্যালিকা শামিমা ও হুনুফা (৩০) এবং তার ছেলে শান্ত (১২)।

নৌকা কিছু দুর যাওয়ার পর দুপুর দুইটার দিকে ঝড়ো হাওয়ার সৃস্টি হয়। এতে মনির হোসেন নিয়ন্ত্রণ রাখতে না পারায় নৌকা ডুবে যায়। নৌকার ৯ জনের মধ্যে ৪ জন সাঁতরে তীরে উঠতে পারলেও সাঁতার না জানার কারণে পানিতে তলিয়ে যায় ৫ জন। তারা হলেন- আব্দুল হকের ছেলে জিয়াউল হক জিয়া (১৩), মেয়ে রোকসানা (১৭) ও মিথিলা (৬), শ্যালিকা হনুফা বেগম (৩০) ও তার ছেলে শান্ত (১২)। কিছুক্ষণ পর স্থানীয় লোকজনের সহায়তায় পানিতে তলিয়ে যাওয়া ৫ জনের মধ্যে রোকসানা, জিয়াউল হক জিয়া ও হনুফা বেগমের লাশ উদ্ধার করা হয়। এই নিউজ লেখা পর্যন্ত মিথিলা ও শান্তর কোন খোঁজ পাওয়া যায়নি।