মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি : গত ২৪ ঘণ্টায় মানিকগঞ্জের শিবালয় উপজেলার আরিচা পয়েন্টে যমুনা নদীর পানি বিপৎসীমার ৭৯ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। পানি বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে আঞ্চলিক নদ-নদীর পানি জেলার ৬টি উপজেলা নতুন নতুন এলাকা প্লাবিত হয়েছে।

বন্যার পানিতে তলিয়ে গেছে হাজার হাজার হেক্টর ফসলি জমি, ভেসে গেছে শত শত মাছের খামার।

রোববার (২৬ জুলাই) সন্ধ্যায় এ তথ্য নিশ্চিত করেন মানিকগঞ্জ পানি বিজ্ঞান শাখার পানির স্তর পরিমাপক মো. ফারুক আহম্মেদ।

মানিকগঞ্জ জেলা প্রশাসক (ডিসি) এস এম ফেরদৌস বলেন, বন্যায় ক্ষতিগ্রস্তদের মধ্যে ১৩০ মেট্রিক টন চাল ও ১৭শ প্যাকেট শুকনো খাবার বিতরণ করা হয়েছে এবং ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রম অব্যাহত রয়েছে। জেলায় মোট আশ্রয়কেন্দ্র প্রস্তুত রয়েছে ১০৪টি।

তিনি বলেন, বন্যাদুর্গতদের জন্য ত্রাণ হিসেবে ১৫০ মেট্রিক টন চাল, ২ হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার, শিশুখাদ্য এবং দেড় লাখ টাকা বরাদ্দ রয়েছে। ত্রাণ বিতরণ চলছে, পর্যায়ক্রমে ক্ষতিগ্রস্ত প্রতিটি পরিবারের মধ্যে ত্রাণ সামগ্রী পৌঁছে দেওয়া হবে।

এছাড়া জিআর প্রকল্পের ১০০ মেট্রিক টন চাল ও নগদ ৪ লাখ ৫০ হাজার টাকা, শুকনো খাবার ১৩শ প্যাকেট, শিশুখাদ্যের জন্য ৫০ হাজার টাকা, গো-খাদ্যের জন্য ৪ লাখ ৫০ হাজার টাকা। অতিরিক্ত জিআর ১ হাজার মেট্রিক টন চাল, ৫০ লাখ টাকা, ৫০০ বান্ডিল টিন এবং আড়াই হাজার প্যাকেট শুকনো খাবার মজুদ আছে। যা প্রয়োজন হলে বন্যাদুর্গতদের মধ্যে সরবরাহ করা হবে।