এক যুগেরও অধিক সময় ধরে টানা রাজত্ব করে আসছেন ঢালিউডের শীর্ষ নায়ক শাকিব খান। সেরা ব্যবসা সফল ছবির তালিকায় অধিকাংশ ছবিই থাকে তার অভিনীত। প্রতি ঈদেই চমক হিসেবে সিনেমা হলে মুক্তি পেয়ে এসেছে শাকিবের সিনেমা। ব্যতিক্রম হয়েছে এ ঈদে।

করোনাভাইরাসের কারণে এবার বড় পর্দার শাকিবের ঈদ কেটেছে পুরোনো সিনেমা দিয়ে ছোট পর্দায়।

করোনাভাইরাস থমকে দিয়ে সবকিছু। ঢাকার শীর্ষ নায়কের ক্যারিয়ারেও পড়েছে তার প্রভাব। তবে করোনার প্রকপ কমলে আবারও নতুন করে এগিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা করছেন তিনি। আরও শক্তভাবে ঢাকাই সিনেমার হাল ধরার পরিকল্পনা করছেন ঢালিউডের কিং খান। এরমধ্যেই হঠাৎ করে চারদিকে ছড়িয়ে পড়েছে শাকিব খানের পারিশ্রমিক কমে যাওয়ার খবর।

বেশ কয়েক বছর থেকেই শোনা যায় একটি সিনেমায় অভিনয়ের জন্য প্রায় ৬০ লাখ টাকা পারিশ্রমিক নিয়ে থাকেন শাকিব। সম্প্রতি বেশ কিছু গণমাধ্যমে খবর প্রকাশ হয় শাকিবের পারিশ্রমিক নেমে এসেছে ১৫ লাখে। সেসব সংবাদে দাবি করা হয় প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান শাপলা মিডিয়ার সঙ্গে সম্পর্কের উন্নয়ন ঘটাতেই নাকি এই পারিশ্রমিকে কাজ করতে চলেছেন শাকিব।

এ বিষয়ে শাকিব খান বলেন, ‘আমি পারিশ্রমিক কমানো প্রসঙ্গে কারও সঙ্গে কোনো কথা বলিনি। আর আমি কতো টাকা পারিশ্রমিক নিই এটাও কিন্তু কখনো বলিনি। এটাও বিভিন্ন প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকেই আগে ছড়ানো হয়েছে। আমি কোন প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে কাজ করবো, কতো টাকা নেব এটা একান্তই আমার ব্যপার। আমার নিজের প্রোডাকশন হাউজ আছে, এটা সকলেই জানেন।’

শাকিব খান আরও বলেন, ‘করোনা কেটে গেলে সব ইন্ডাস্ট্রির সিনেমাতেই পরিবর্তন আসবে। আমাদের ইন্ডাস্ট্রিতেও আসবে। করোনার পরও নিজের মনের মতো কাজ করে যেতে চাই। একটা কথা বলতে চাই, আমি কোনো মানহীন সিনেমায় অভিনয় করবো না।’

চলতি বছরের জানুয়ারির শেষের দিকে কলকাতার একটি প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে মিটিংয়ে বসতে কলকাতা যাওয়ার কথা শোনা যায় শাকিব খানের। সেই মিটিং না হলেও শোনা যাচ্ছে লকডাউন উঠলেই কলকাতার চার সিনেমায় অভিনয় করবেন শাকিব খান। এরই মধ্যে কলকাতার এসকে মুভিজ ও সুরিন্দর ফিল্মসের সঙ্গে নাকি মুঠোফোনে মিটিংও সেরেছেন শাকিব। এখন শুধু করোনাকাল কাটিয়ে সুদিনের অপেক্ষা।