বয়সকে যতই একটি সংখ্যা বলে উড়িয়ে দিন না কেন, বয়স তার ছাপ রেখেই যায় চেহারায়। বয়স বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে চেহারায় তার প্রভাব পড়তে থাকে। বিশ আর ত্রিশের মধ্যে তাই সহজেই পার্থক্য করে দেয়া যায়। যাদের বয়স ত্রিশের কোঠায়, তাদের ত্বকের প্রতি বাড়তি যত্নশীল হতে হবে। কারণ ঠিকভাবে যত্ন নিলে চল্লিশেও আপনি ঝলমল করবেন। আবার যত্নের অভাবে ত্রিশেও দেখতে বয়স্ক লাগে অনেককে।

বছর ত্রিশের নারীরা সাধারণত ব্যস্ত জীবন পার করেন। অফিস, ঘর সামলিয়ে নিজেদের দিকে নজর দেয়ার সময় খুব একটা পাওয়া যায় না। তাই জেনে নিন খুব সহজ কিছু টিপস। যার মাধ্যমে ধরে রাখা যাবে ত্বকের স্বাভাবিক সৌন্দর্য-

Age-4.jpg

এই বয়সে ত্বকের স্বাভাবিক আর্দ্রতা এমনিতেই কমে যায়। তাই ফেস ওয়াশ ত্বকের ওপর কড়া হতে পারে। মুখ পরিষ্কার করতে হালকা কোনো ক্লিনজার ব্যবহার করাই ভালো।

শুধু ময়েশ্চারাইজার নয়, ত্বকে লাগান স্কিন সিরাম। ভিটামিন সি আছে এরকম সিরাম বেছে নিন। এটি ওপেন পোর এবং পিগমেন্টেশনের হাত থেকে আপনাকে রক্ষা করবে।

Age-4.jpg

এই বয়সে খুব সম্ভবত আপনি সদ্য মা হয়েছেন। মা হওয়ার পর মহিলাদের ত্বক শুষ্ক হয়ে যায়। ত্বকের পিএইচ ব্যালান্স ঠিক রাখতে বিনা অ্যালকোহলের টোনার বেছে নিন।

রাতে আমাদের সঙ্গে আমাদের ত্বকও ঘুমায়। এই সময় ত্বকের পুষ্টি জোগানো প্রয়োজন। তাই রাতে শোয়ার আগে ভালো কোনো নাইট ক্রিম অবশ্যই ব্যবহার করুন।

Age-4.jpg

বয়স ত্রিশের কোঠায় পৌঁছানোর পরই চোখের চারপাশের চামড়া ঢিলে হতে শুরু করে। এই সময় চোখের নিচে প্রথম বলিরেখা পড়তে শুরু করে। তাই আন্ডার ক্রিম ব্যবহার করতে ভুলবেন না।

স্কিনকেয়ার রুটিনের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গ হল সানস্ক্রিন। ক্ষতিকর সূর্যালোক ত্বকের বারোটা বাজিয়ে দেয়। তাই দিনের বেলা অবশ্যই সানস্ক্রিন লাগাবেন।