হাতে গোনা কয়েকটি নাটকে অভিনয় করেই আলোচনায় আসেন তিনি। গত ঈদুল আযহায় বৈশাখী টিভিতে প্রচারিত ‘মধ্য রাতের সেবা’ নাটকের মাধ্যমে সর্বপ্রথম সোস্যাল মিডিয়ায় ভারইরাল হন রাশেদ সীমান্ত।

এর আগে দুয়েকটি নাটক প্রচারিত হলেও এ নাটকটি প্রচারের পরপরই আলোচনায় চলে আসেন তিনি। আসন্ন ঈদের একটি নাটকেও অভিনয় করেছেন তিনি। নাটকের নাম ‌‌‘আমি রেকর্ড করতে চাই’।

বৈশাখী টিভির উপব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান সম্পাদক টিপু আলম মিলনের গল্পে এ নাটকটি পরিচালনা করেছেন জিয়াউর রহমান জিয়া। নাটকে রাশেদ সীমান্তর বিপরীতে অভিনয় করেছেন তানিয়া বৃষ্টি। এখানে রাশেদ সীমান্তের চরিত্রের নাম নূরে আলম। তানিয়া বৃষ্টি অভিনয় করেছেন সুমনা চরিত্রে।

নাটকে দেখা যাবে, নূরে আলম দুইবারের মাথায় অনেক কষ্টে মেট্রিক পাস করলেও পরপর তিনবার ইন্টার ফেল করে এলাকায় সে এখন তামাশার পাত্র। নূরে আলমকে সবচেয়ে বেশী দুর্বব্যহার সহ্য করতে হয় তার কৃপন বাবা জানে আলমের কাছ থেকে।

চায়ের দোকানদার খালেক একদিন নূরে আলমকে বুঝায় ব্রোজেন দাস সাঁতার দিয়ে ইংলিশ চ্যানেল পাড়ি দিয়েছিলো এবং রেকর্ড করে গিনেজ বুকে নাম উঠিয়েছিলো। গিনেজ বুকে নাম উঠলে কত সম্মান এবং কি পরিমাণ অর্থ পাওয়া যায় তাও নূরে আলমকে বুঝায়।

এরপর নূরে আলমের মাথায় ভূত চাপে সে সাঁতার দিয়ে বিশ্ব রেকর্ড করে গিনেজ বুকে নাম উঠাবে। সুমনা বার বার নূরে আলমকে বুঝায় এসব পাগলামির কোন মানে হয় না। সুমনা শর্ত দেয় তাকে পেতে হলে এসব বাদ দিয়ে পড়ালেখায় মনোযোগী হতে হবে। তারপর কী হয়? দেখতে হবে নাটকে।

রাশেদ সীমান্ত বলেন, ‘সত্যিই নাটকটি অন্যরকম। অভিনয় করে প্রাণ পেয়েছি। বরাবরের মতো এ নাটকটিও দর্শকদের অনেক ভালো লাগবে বলে আমার বিশ্বাস।’

নাকটটিতে আরও অভিনয় করেছেন অলিউল হক রুমি, শফিক খান দিলু, হায়দার আলী, নীলা ইসলামসহ অনেকে। বৈশাখী টিভিতে ঈদের দ্বিতীয় দিন রাত ৮টা ১০ মিনিটে প্রচার হবে নাটকটি।