স্টাফ রিপোর্টার : সাভার প্রেসক্লাবের গঠনতন্ত্র পরিপন্থি কাজের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগে দু’জনকে বহিষ্কার এবং দু’ জন অস্থায়ী সদস্যের সদস্যপদ বাতিল করা হয়েছে। রোববার (১৭-০৫-২০২০) সাভার প্রেসক্লাবে অনুষ্ঠিত কার্যনির্বাহী সভায় তাদের বিরুদ্ধে এই ব্যবস্থা নেয়া হয়।

সাভার প্রেসক্লাবের সাংগঠনিক সম্পাদক রওশন আলী ও অর্থ সম্পাদক তৌকির আহমেদকে বহিষ্কার এবং অস্থায়ী সদস্য ওমর ফারুক ও রেজাউল করিম ওরফে কাজী বিপ্লবের সদস্যপদ বাতিল করা হয়েছে। তাদের বিরুদ্ধে সাভার মডেল থানায় তথ্যপ্রযুক্তি আইনে পৃথক দুটি মামলা হওয়ায় তারা পলাতক রয়েছে।

জানা যায়, সম্প্রতি প্রেসক্লাবের সাংগঠনিক সম্পাদক রওশন আলী ও অর্থ সম্পাদক তৌকির আহমেদ এবং অস্থায়ী সদস্য রেজাউল করিম ওরফে কাজী বিপ্লব সাভার থানা রোডের ক্যাফে মেট্রো নামে একটি রেস্টুরেন্ট থেকে চাঁদা দাবী করে। কিন্তু চাঁদা না পেয়ে ক্যাফে মেট্রোতে গিয়ে তারা বিভিন্ন হুমকী-ধমকী দেয়। পরে ক্যাফে মেট্রোর মালিক মো: আশরাফুজ্জামানকে নিয়ে ফেসবুকে আপত্তিকর পোস্ট করে সাংগঠনিক সম্পাদক রওশন আলী।

এছাড়া তাদের চাঁদা দাবীর একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক সমালোচনার ঝড় উঠে। পরে ক্যাফে মেট্রোর মালিক মো: আশরাফুজ্জামান ৯ মে সাভার মডেল থানায় তাদের বিরুদ্ধে তথ্যপ্রযুক্তি আইনে একটি মামলা করেন। এছাড়া তিনি সাভার প্রেসক্লাবের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক বরাবর তাদের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগও দেন। ক্লাবের আরেক সদস্য ইমদাদুল হককে হুমকি দেয়ায় সেও সাভার মডেল থানায় তাদের বিরুদ্ধে একটি সাধারণ ডাইরী করেন।

এছাড়া রওশন আলীর বাড়িওয়ালা সাভার প্রেসক্লাবের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের কাছে তার বাসায় মাদক সেবন, প্রতিবেশী ভাড়াটিয়াদের মারধর এবং বাসা ভাড়া না দেওয়ার অভিযোগ লিখিতভাবে জানান।

এ ঘটনায় সাভার প্রেসক্লাবের কার্যনির্বাহী পরিষদের জরুরী সভা আহবান করা হয়। সভায় গঠনতন্ত্র মোতাবেক ঘটনাটি তদন্তে তিন সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়। তদন্ত কমিটি তদন্তে ঘটনার সত্যতা পেয়ে রবিবার সকালে সাভার প্রেসক্লাবে অনুষ্ঠিত কার্যনির্বাহীর সভায় তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন। পরে নির্বাহী সভার সিদ্ধান্তে সাংগঠনিক সম্পাদক রওশন আলী ও অর্থ সম্পাদক তৌকির আহমেদ বহিষ্কার করা হয়। এছাড়া একই অভিযোগে নবাগত অস্থায়ী সদস্য কাজী বিপ্লবের সদস্যপদ বাতিল করা হয়।

এছাড়া সাপ্তাহিক নিউজ গার্ডেন পত্রিকার সম্পাদক ওমর ফারুক তথ্য গোপন করে সদস্য নেয়। এ অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় তার সদস্যপদও বাতিল করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, ওমর ফারুকের বিরুদ্ধে সাভারে চুল বেঁচে শিশুর দুধ কেনার মিথ্যা ঘটনা ফেসবুকে প্রচারের অভিযোগে ২৩ এপ্রিল রাতে সাভার মডেল থানায় তথ্য প্রযুক্তি আইনে মামলা হওয়ার পর থেকে সে পলাতক রয়েছে। রওশন আলীর বাড়িওয়ালা সাভার প্রেসক্লাবের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের কাছে তার বাসায় মাদক সেবন, প্রতিবেশী ভাড়াটিয়াদের মারধর এবং বাসা ভাড়া না দেওয়ার অভিযোগ লিখিতভাবে জানান। তিনি একই ঘটনায় সাভার মডেল থানায় রওশন আলীর বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন। তবে এ রিপোর্ট লেখার সময় পর্যন্ত মামলাটি নথিভুক্ত হয়নি।