মাধ্যমিকের পর এবার সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের শ্রেণি কার্যক্রম (ক্লাস) ভিডিও করে সংসদ টিভিতে প্রচারের উদ্যোগ নিয়েছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতর। এছাড়া শ্রেণি কার্যক্রমের এসব এসব ভিডিও সারাবছর শিক্ষার্থীদের জন্য উন্মুক্ত রাখতে  আলাদা অনলাইন পোর্টাল তৈরি উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। প্রসঙ্গত, গত রবিবার (২৯ মার্চ) থেকে ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণির শ্রেণি কার্যক্রম সংসদ টিভিতে প্রচার করা হচ্ছে।

জানতে চাইলে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালক মো. ফসিহ্উল্লা বলেন, ‘আমরা ভিডিও ক্লাসের জন্য কাজ শুরু করেছি। যেসব ভিডিও ক্লাস শিক্ষার্থীদের জন্য তৈরির ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে, সেগুলো সংসদ টেলিভিশনে প্রচার করা হবে। ইতোমধ্যে সংসদ টেলিভিশনের সঙ্গে কথা হয়েছে। এখন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে কথা বলতে হবে বিষয়টি সমন্বয়ের জন্য।’

এর আগে অধিদফতর থেকে জানানো হয়েছিল, করোনাভাইরাসের প্রকোপের কারণে ছুটি বাড়তে পারে এমন পরিস্থিতি বিবেচনায় গত কয়েকদিন ধরে শ্রেণি কার্যক্রমের ভিডিও তৈরির পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে। প্রতিটি শিক্ষার্থীর কাছে এই ভিডিও ক্লাস পৌঁছানোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, শিক্ষার্থীদের ভিডিও পৌঁছানো এবং সবার দেখার ব্যবস্থা করা সম্ভব নয়। তাই সীমাবদ্ধতার কথা চিন্তা করে ভিডিও ক্লাস প্রস্তুত করা হচ্ছে। কিন্তু নানা সীমাবদ্ধতা ও পরিস্থিতি বিবেচনায় শ্রেণি কার্যক্রমের ভিডিও প্রচারের জন্য সংসদ টেলিভিশনের জন্য উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। যেহেতু মাধ্যমিক পর্যায়ের ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণির শ্রেণি কার্যক্রম সংসদ টেলিভিশনে প্রচার করা হচ্ছে। সে কারণে কবে থেকে এটি সংসদ টেলিভিশনে প্রচার করা যাবে তা নিয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে আলোচনা করা হচ্ছে।

মহাপরিচালক জানান, প্রথম ও দ্বিতীয় শ্রেণির জন্য ২০ মিনিটের একটি করে এবং তৃতীয় থেকে পঞ্চম শ্রেণির জন্য একটি করে ক্লাস সংসদ টিভিতে প্রচারের জন্য উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।   

অনলাইন পোর্টালে শ্রেণি কার্যক্রম

প্রাথমিক শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার সার্বিক উন্নয়নে জরুরি ও গুরুত্ব বিষয়গুলোর শ্রেণি কার্যক্রমের ভিডিও অনলাইনে আপলোড করার উদ্যোগ নিয়েছে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতর। মহাপরিচালক মো. ফসিহ্উল্লা বলেন, ‘আমরা ভিডিও ধারণ শুরু করার সব ব্যবস্থা নিয়েছি। কিছু কাজ শুরু করেছি। ভিডিও ক্লাস সংসদ টেলিভিশনে প্রচারের পাশাপাশি অনলাইন পোর্টালে আপ করবো। শিশুদের জন্য আকর্ষণীয় হয় এমন একটি নাম দিয়ে পোর্টাল তৈরি করে আপলোড করে রাখবো। এসব ভিডিও ইউটিউবেও সংরক্ষণ করা হবে। যাতে শিক্ষার্থীরা যখন প্রয়োজন মনে করবে তখনই ভিডিও ক্লাস থেকে তারা বিষয়ভিত্তিক পাঠ নিতে পারবে।’