প্রকৃতিতে এখন মৌসুম বদলের হাওয়া। বছরের এই সময়টায় সর্দি-কাশি কিংবা জ্বর হওয়া অস্বাভাবিক নয়। এগুলো সাধারণ জীবনযাপনের অংশ ভেবেই চলেছি এতকাল। কিন্তু করোনাভাইরাস এসে সব হিসাব-নিকাশে তালগোল পাকিয়ে দিয়েছে। যেহেতু করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার লক্ষণ ভাইরাল ফিভারের প্রায় কাছাকাছি, তাই বেড়েছে বিপদ। কারো মধ্যে এধরনের কোনো লক্ষণ দেখতে পেলেই আশপাশের সবাই অবিশ্বাসের চোখে তাকাচ্ছেন। এই পরিস্থিতিতে দুটো কাজ করুন সবার আগে-

আরো পড়ুন : তিন উপাদানে তৈরি করুন ট্রেন্ডি ডালগোনা কফি
উদ্বিগ্ন না হয়ে প্রথমেই নিজেকে অন্যদের থেকে আলাদা করে নিন, আর বারবার হাত ধুতে হবে।

kashi

এখনো পর্যন্ত আমাদের দেশে করোনা সংক্রান্ত পরিসংখ্যান যে জায়গায় রয়েছে তাতে বিগত দুই সপ্তাহের ভেতরে যদি আপনি বিদেশ থেকে না ফেরেন, কোনো বিদেশির সংস্পর্শে না আসেন তাহলে এখনই ভয় পাওয়ার কোনো কারণ নেই, এমনটাই বলছেন বিশেষজ্ঞরা।

আরো পড়ুন : এক পানীয়তেই বাড়বে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা!

চিকিৎসকের সঙ্গে যোগাযোগ রাখুন ফোনের মাধ্যমে। সাধারণত গরম পানির ভেপার নিলে, হালকা প্যারাসিটামল বা অ্যান্টি অ্যালার্জিক খেলেই এই সমস্যা দু‌’-একদিনে কমে যাওয়ার কথা। তা না হলে চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতেই হবে। তবে এই সময়টা নিজেকে একটা ঘরে রাখা উচিত। তাহলেই সংক্রমণ ঠেকানো সম্ভব।

kashi

মনে রাখবেন, এই পরিস্থিতিতে উদ্বিগ্ন হওয়াটা স্বাভাবিক। আপনি কাশি দিলেও অন্যরা সন্দেহের চোখে তাকাবে। তার চেয়েও বড় কথা, রোগটা আরও বিরাট আকার ধারণ করবে কি না, সে সম্পর্কে নিশ্চিত হয়ে কিছু বলা যাচ্ছে না। তাই সতর্ক থাকা ভালো, তবে অযথা আতঙ্কিত হয়েও লাভ নেই।