জুতায় থাকতে পারে করোনাভাইরাস?

0
81

প্রাণঘাতী কোভিড-19 করোনাভাইরাস সম্পর্কে প্রতিদিনই নতুন তথ্য পাওয়া যাচ্ছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা তাদের ওয়েবসাইটে করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে বারবার হাত ধোয়ার কথা বলেছেন। মেডিকেল বিশেষজ্ঞরা ঘরের মেঝে, পরার কাপড় পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন রাখতে বলেছেন।

আরো পড়ুন : করোনা থেকে সুস্থদের ফুসফুস ধ্বংস ২০-৩০ শতাংশ

তবে জুতা নিয়ে তেমন কিছু শোনা যায়নি। প্রশ্ন হলো, জুতায় কী থাকতে পারে করোনাভাইরাস? জুতা পরেই আমরা বিভিন্ন জায়গায় যাতায়াত করি। কিন্তু বাসায় এসে জুতা পরিষ্কার খুব কম মানুষই করেন।

এ বিষয়ে পক্ষে-বিপক্ষে নানা তথ্য পাওয়া যাচ্ছে যা মানুষকে বিভ্রান্ত করছে। ২৫ মার্চ বেশ কয়েকজন চিকিৎসক ও রোগ বিশেষজ্ঞের সঙ্গে কথা বলে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে হাফিংটন পোস্ট। সেখানে জনস্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ ক্যারল উইনার জানিয়েছেন, জুতার মাধ্যমে করোনাভাইরাস ঘরে আসে এমন কোনও প্রমাণ এখনো পাওয়া যায়নি। 

আরো পড়ুন : শিশুদের খাবার হোক আনন্দময়

এদিকে অস্ট্রেলিয়া গবেষকরা জানিয়েছেন, জুতার তলায় সবচেয়ে বেশি জীবাণু লাগে। ব্যাকটেরিয়া, ছত্রাক থেকে শুরু করে ভাইরাসও বাদ যায় না। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ব্যক্তির ড্রপলেট কিংবা হাঁচি-কাশির মাধ্যমে বের হওয়া থুতু রাস্তায় পড়ে থাকলে জুতার মাধ্যমে করোনাভাইরাস আপনার ঘরে হাজির হতে পারে।

জুতার তলা সচরাচর টেকসই হয়। রাবার কিংবা অন্য সিনথেটিক পদার্থ দিয়ে তৈরি হয় তলা। প্লাস্টিকের তৈরি হলেও উচ্চমাত্রার ব্যাকটেরিয়া বহন করে। চামড়ার জুতাগুলো কেউ ধুয়ে দেয় না বলে জীবাণু তাতে লেগে থেকে।

অস্ট্রেলিয়ার গবেষকরা আরও জানান, জুতার তলায় লেগে থাকা জীবাণু হয়ে উঠতে পারে জীবননাশের কারণ। করোনা সংক্রমণ হয়নি এরকম পরিবারের লোকজনও মাস্ক কিংবা সুরক্ষা স্যুট পরে বাইরে বের হলেও কেবল জুতার কারণে ঝুঁকিতে পড়ে যায়।

বিভিন্ন দেশের সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞরা এই দাবি সমর্থন করেছেন। সে কারণে বাসার ভেতরে আলাদা স্যান্ডেল ব্যবহার এবং বাইরে ব্যবহৃত জুতা বাসার ভেতরে না নিয়ে যাওয়ার কথা বলছেন।

সূত্র : ডেইলি মেইল, হাফিংটন পেস্ট