জীবাণুমুক্ত থাকতে ডিটক্স করুন

0
44

করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে জীবাণুমুক্ত হওয়া সবার আগে জরুরি। আর হাতের পাশাপাশি পা দিয়েও কিন্তু শরীরে জীবাণু সংক্রমণ হয়ৃকরোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে জীবাণুমুক্ত হওয়া সবার আগে জরুরি। আর হাতের পাশাপাশি পা দিয়েও কিন্তু শরীরে জীবাণু সংক্রমণ হয়। কারণ, সারাদিন অনেক দূষিত পদার্থের সংস্পর্শে আসে পা। তাই সংক্রমণ ঠেকাতে সামাজিক দূরত্ব, হাত ধোয়া ছাড়াও যত্ন নিতে হবে পায়েরও। আপাতত বাড়িতে বসে যখন নিজেকে ভালো রাখার চেষ্টা করছেন তখন প্রথমেই খেয়াল করুন পায়ের প্রতি। সারাবছরের অযত্ন দূর হোক ডিটক্স প্যাডসে সাহায্যে। সংক্রমণ ঠেকানোর পাশাপাশি একঘেয়ে দিনযাপনের ক্লান্তিও নিমেষে হবে দূর এই প্রক্রিয়ায়।

ডিটক্স ফুট প্যাড কী

সাদা রঙের ডিটক্স প্যাডগুলো পায়ের নিচে আটকে দিন। পাতলা কাগজ খুললেই দেখবেন আঠা লাগানো রয়েছে। আঠালো ব্যবহার করে আঠালো করা হবে। পায়ের পাতা থেকে তলা পর্যন্ত ঢেকে দিন এতে। প্যাডের গায়ে উঠে আসবে জীবাণু, ময়লা।

কীভাবে জীবাণুমুক্ত করে? রাতে ঘুমোতে যাওয়ার আগে এগুলো পায়ের নিচে আটকে নিন। সকালে ঘুম ভেঙে ওঠার পর দেখবেন, প্যাডগুলো হলুদ, বাদামি বা কালো রঙের হয়ে গেছে। প্যাডগুলো সারা রাত পা থেকে বিষাক্ত পদার্থ টেনে বের করায় এই রঙ হয়ে যায় প্যাডের। পায়ের তলা দেখলে আপনিও বুঝতে পারবেন।

উপকারিতা কী কী ১. মানসিক চাপ কমায় প্যাডগুলি স্ট্রেস রিলিফ। পায়ের তলা পরিষ্কারের মাধ্যমে শরীরে জমে থাকা স্ট্রেস এবং ক্লান্তি কমায়।

২. দুশ্চিন্তা মুক্ত করে সারারাত পায়ের নিচে লেগে থাকা প্যাড আরামদায়ক হওয়ায় ঘুম আনে সহজেই। ভালো ঘুম ক্লান্তি আর অবসাদ, দুশ্চিন্তা কমাতে অদ্বিতীয়।

৩. নিশ্চিন্ত ঘুম রাতে ঘুমের ব্যাঘাত ঘটলে সেই সমস্যাও কমাবে এই প্যাড। ভালো ঘুম মানেই মন ভালো। সতেজ শরীর।

৪. রক্ত সংবহনে উন্নতি শরীরের রক্ত সঞ্চালন উন্নত করতে এই প্যাডের সাহায্য নিতে পারেন।

৫. পায়ের ব্যথা কমায় এই ধরনের নিফটি প্যাড পায়ের ব্যথা কমাতেও কার্যকরী। তাই বাতের ব্যথায় যাঁরা ঘুমোতে পারেন না তাঁরা রাতে এই প্যাড ব্যবহার করতে পারেন।

কীভাবে ব্যবহার করবেন প্যাডের আঠালো স্ট্রিপটি পায়ের নিচে রাখুন। এবার পুরো পা মুড়ে দিন। পরের দিন সকালে এটি খুলে নিন। রাতে আরও একটি নতুন প্যাড ব্যবহার করুন।