হতে পারতেন দিবারাত্রির টেস্টে পাকিস্তানের তৃতীয় সেঞ্চুরিয়ান, বাকি ছিলো মাত্র ৩টি রান। কিন্তু বাবর আজমকে এই কৃতিত্বে নাম লেখাতে দেননি অস্ট্রেলিয়ান পেসার মিচেল স্টার্ক। বাবরকে আউট করে স্টার্ক নিজে অবশ্য হয়েছে দিবারাত্রির ম্যাচে দুইবার ৫ উইকেট নেয়া তৃতীয় বোলার।

অ্যাডিলেইড ওভালে ম্যাচের দ্বিতীয় দিনের শেষ বিকেলে স্টার্কের গতির ঝড়ে অসহায় ছিলো পাকিস্তানের ব্যাটসম্যানরা। স্টার্ক ৪ উইকেট নিলে মাত্র ৯৬ রানে পাকিস্তানের ৬ উইকেট তুলে নেয় অস্ট্রেলিয়া। তবে একপ্রান্ত আগলে রেখে ৪৩ রানে অপরাজিত ছিলেন বাবর।

ডানহাতি এ মিডল অর্ডার ব্যাটসম্যানের উইলোতেই বড় কিছু স্বপ্ন দেখছিলো পাকিস্তান। তাদের আশাহত করেননি বাবর। তৃতীয় দিন সকালে সঙ্গী হিসেবে পেয়ে যান লেগস্পিনার ইয়াসির শাহকে। দুজন মিলে সপ্তম উইকেট জুটিতে যোগ করেন ১০৫ রান। বাবর এগিয়ে যাচ্ছিলেন ক্যারিয়ারের তৃতীয় সেঞ্চুরির দিকে, ইয়াসিরের অপেক্ষা ছিলো প্রথম অর্ধশতকের।

ঠিক তখনই দৃশ্যপটে আবির্ভুত হন স্টার্ক। দারুণ এক আউটসুইঙ্গারে উইকেটের পেছনে ক্যাচে পরিণত করেন ৯৭ রান করা বাবর আজমকে। যার ফলে আজহার আলি ও আসাদ শফিকের পর তৃতীয় পাকিস্তানি ব্যাটসম্যান হিসেবে দিবারাত্রির টেস্টে সেঞ্চুরি করার সুযোগ হাতছাড়া হয় তার।

এদিকে বাবরের সুযোগ হাতছাড়া হলেও, স্টার্ক ঠিকই নিজের কাজ করেছেন। পাকিস্তানের লেগস্পিনার ইয়াসির শাহ ও নিউজিল্যান্ডের পেসার ট্রেন্ট বোল্টের পর বিশ্বের তৃতীয় বোলার হিসেবে গোলাপি বলে দুইবার ৫ উইকেট নেয়ার কৃতিত্ব অর্জন করেছেন তিনি।

বাবরকে আউট করে ফাইফার নেয়ার পরের বলেই শাহিন শাহ আফ্রিদিকেও আউট করেন স্টার্ক। তবে নবম উইকেটে মোহাম্মদ আব্বাসকে নিয়ে খানিক প্রতিরোধ গড়েছেন ইয়াসির শাহ। এরই মধ্যে জুটিতে এসেছে ২৫ রান।

এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত ৭৪ ওভারে পাকিস্তানের সংগ্রহ ৮ উইকেটে ২১৯ রান। ক্যারিয়ার সর্বোচ্চ ইনিংস খেলে ইয়াসির অপরাজিত ৭১ রানে, আব্বাসের সংগ্রহ ২ রান।