দুপুর সাড়ে ১২টা। রাজধানীর আজিমপুর গালর্স স্কুল অ্যান্ড কলেজের সামনে থেকে মিনিট খানেক পর পর একের পর এক বাস আজিমপুর বাসস্ট্যান্ডে থামছে।

আরো পড়ুন : পরিবহন ধর্মঘটে অচল দেশ, ভোগান্তিতে যাত্রীরা

সেফটি পরিবহন, দেওয়ান পরিবহন, মিরপুর মেট্রো সিটিং সার্ভিস, তৌহিদ পরিবহন, ভিআইপি সিটিং সার্ভিস ও বিকাশ পরিবহন এই নামের বাসগুলো প্রায় প্রতিটিই বলতে গেলে যাত্রীশূন্য। হেলপার গলা ছেড়ে ডাকলেও যাত্রীর দেখা নেই। পেছনে বাস এসে হর্ন বাজাতেই যাত্রীশূন্য বাসটি নিউমার্কেটের দিকে চলে যায়।

Dhaka-Bus

আজিমপুর বাসস্ট্যান্ডে কর্তব্যরত একজন পুলিশ কর্মকর্তা জানান, সকালের দিকে বাসস্ট্যান্ডের দৃশ্য ছিল সম্পূর্ণ ব্যতিক্রম। শত শত কর্মজীবী মানুষ নগরীর বিভিন্ন গন্তব্যে যাওয়ার জন্য দাঁড়িয়ে থাকলেও বাসের সংখ্যা ছিল তুলনামূলকভাবে অনেক কম। চাহিদার তুলনায় যাত্রী বেশি বাস কম হওয়ায় অনেকে পায়ে হেঁটে গন্তব্যে উদ্দেশ্যে রওনা দেন। কেউ কেউ আবার উবার-পাঠাও ও রিকশাযোগে যান। তবে দুপুরের পর গাড়ির সংখ্যা বাড়তে থাকে কিন্তু কমতে থাকে যাত্রীর সংখ্যা।

আরো পড়ুন : গাড়ি থেকে যাত্রী-চালকদের নামিয়ে দিয়ে চাবি কেড়ে নিচ্ছে শ্রমিকরা

Dhaka-Bus

হাসান নামের এক বাসের হেলপার বলেন, ভরদুপুরে আজিমপুর বাসস্ট্যান্ডে এতো যাত্রীশূন্য হবে, তা কল্পনাও করতে পারেনি!

Dhaka-Bus

সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮ স্থগিত ও সংশোধনের দাবিসহ নয় দফা দাবিতে বাংলাদেশ ট্রাক-কাভার্ডভ্যান পণ্য পরিবহন মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের ডাকা অনির্দিষ্টকালের কর্মবিরতি চলছে সারাদেশে।