ধামরাইয়ে মিস কেসের রায় নিয়ে উত্তেজনা ঠেকাতে পুলিশ মোতায়েন

0
97

ধামরাই প্রতিনিধি : ধামরাইয়ে একটি মিস কেসের রায়ের আগে বাদী-বিবাদী পক্ষের মধ্যে চরম উত্তেজনা দেখা দেয়। উত্তেজনার চরম পর্যায়ে উভয়পক্ষের মধ্যে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ার সৃষ্টি হয়। খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে মাইকিং করে উভয় পক্ষকে ভ’মি কার্যালয় থেকে সড়িয়ে দেয়। এ নিয়ে এলাকায় উত্তেজনা বিরাজ করছে।

আরো পড়ুন : সাভার উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি পদ নিয়ে জোড় লবিং, সাধারণ সম্পাদক…


ভূমি অফিস সূত্রে জানা গেছে,ধামরাই পৌর শহরের গার্ল স্কুল সংলগ্ন মিনা নগরের ধামরাই মৌজার আরএস ৬১৫ নং দাগের ৮১.৬৬ শতাংশ জমি নামজারী জমাভাগ বাতিলের জন্য সহকারী কমিশনার (ভ’মি) ধামর্ইা কার্যালয়ে মিস কেস দায়ের করেন মীর বরাদ আলী। বৃহস্পতিবার এ মিস আপিলের রায়ের তারিখ থাকায় বাদী-বিবাদী পক্ষের শতাধিক ব্যক্তি উপস্থিত হন সহকারি কমিশনার ( ভ’মি) কার্যালয়ে। এতে উভয়পক্ষের মধ্যে চরম বাকবিতন্ডার সৃষ্টি হয়। এক পর্যায়ে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়া হয়। পরে পুলিশকে খবর দিয়ে দুই গাড়ি পুলিশ গিয়ে উভয়পক্ষকে মাইকিং করে সড়িয়ে দেওয়া হয়।

আরো পড়ুন : ধামরাইয়ে স্কুল ছাত্রের মর্মান্তিক মৃত্যু


ধামরাই থানার এস আই রফিকুল ইসলাম লিটন বলেন, একটি মিস কেসের রায়কে কেন্দ্র করে বাদি-বিবাদী পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়। উভয়পক্ষকে সংঘর্ষ হওয়ার আগেই তাদের সড়িয়ে দেওয়া হয়েছে।
বিবাদীপক্ষের উকিল আবদুর রশিদ জানায়, সহকারী কমিশনার (ভূমি) অন্তরা হালদার এ মিস কেসের রায়ে নথিটি জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে পাঠানো হবে বলে উল্লেখ করেছেন। উল্লেখ সাবেক এমপি এমএ মালেকের স্ত্রী মিনা মালেক বিভিন্ন ব্যক্তির কাছ থেকে ধামরাই মৌজায় ৮১ শতাংশ জমি ক্রয় করে সেখানে বহুতল ভবন ও টিনসেড ঘর নির্মান করে ভোগদখলে রয়েছে।

আরো পড়ুন : আশুলিয়ায় যুবলীগে গৃহবিবাদ চরমে

এ মৌজায় সাড়ে চব্বিশ শতাংশ জমিসহ প্রায় বিরাশি শতাংশ জমি পৌরসভার ময়লঘাটের গোলাম মোস্তফার নামে নামজারী ও জমাভাগ করা হয়েছে। এ মৌজার জমিটুকু ধামরাই পৌরসভার হুজুরিটোলা মহল্লার বরাদ হোসেন তাদের জমি দাবি করে নামজারি ও জমাভাগ বাতিলের জন্য মিস কেস (মিস কেস নং ১৭/১৯) দায়ের করেন সহকারী কমিশনার (ভূমি) ধামরাই কার্যালয়ে। এ মিস আপিলের রায় ছিল গতকাল বৃহস্পতিবার।