কোন জিনিস কত দিনে পচে জেনে রাখা জরুরি

0
39
নিত্যদিনের প্রয়োজনে ব্যবহৃত হয় বিভিন্ন জিনিসপত্র। ধরুন- যখন বাজার করি তখন সেই জিনিসগুলো বহন করতে আমাদের ব্যাগ বা প্যাকেটের প্রয়োজন হয়। সেক্ষেত্রে অনেক দোকানি প্লাস্টিকের পলিথিন বা ব্যাগ ব্যবহার করেন। ফার্নিচার তৈরিতে এখন ব্যবহার করা হয় প্লাইকাঠ। খবরের কাগজ যা ছাড়া অনেকের দিন সম্পূর্ণ হয় না। এরকম আরো অনেক কিছুর নাম আছে নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের তালিকায়। আপনি কি জানেন এই জিনিসগুলো কতদিন টিকে থাকে? কিংবা কতদিন ফেলে রাখার পর জিনিসগুলোতে পচন ধরে? আসলে এ সম্পর্কে অনেকেই অবগত নই!

আরো পড়ুন : খাবার পুনরায় গরম করে খাওয়া নিরাপদ নয়

কখনো ভেবে দেখেছেন যেসব জিনিসপত্র ব্যবহার করি সেগুলো সব পরিবেশবান্ধব কিনা? সবকিছু পরিবেশবান্ধব না। নিত্যদিনের প্রয়োজন যেমন মেটাতে হবে ঠিক একই সময় এটাও ভাবতে হবে যে, কীভাবে আমাদের পরিবেশকে সুরক্ষিত রাখা যায়। আর সেটা করতে হলে এটাও জানা প্রয়োজন কোন জিনিস কতদিন টিকে থাকে। চলুন জেনে নেয়া যাক কিছু জিনিসের পচনের সময়কাল-

ন্যাপকিন টিস্যু সম্পর্কে জানেন নিশ্চয়ই। আমরা সবাই মোটামুটি এর ব্যবহার করি। বিশেষ করে মেয়েরা। ব্যবহারের পর বেশিরভাগ মানুষই এটি রাস্তায় ফেলি। জানেন কি এতে পচন ধরতে ২-৪ সপ্তাহ লেগে যায়। পথে হেঁটে কলা খাই আমরা অনেকে এবং খাওয়া শেষে তার খোসাটিকে ডাস্টবিনে কয়জন ফেলি? অনেকেই না। রাস্তায় কলার খোসার ফেলার দুটি প্রধান ক্ষতির প্রথমটি হলো আপনি কলার খোসায় পিছলে পড়ে যেতে পারেন। দ্বিতীয়ত খোসাটি রাস্তায় পড়ে পচতে সময় নেবে ৩-৪ সপ্তাহ। ঝালমুড়ি খেয়ে কাগজের ঠোঙা রাস্তায় ফেলে চুপচাপ হেঁটে যাই আমরা যা পচতে সময় নেয় ১ মাস। 

আরো পড়ুন : কাশিতে আরাম পেতে আনারস

খবরের কাগজ পচতে সময় লাগে দেড় মাস। তুলার গ্লোভস হাতে দিয়ে আমরা হাত নোঙরা না করেই অনেক কাজ করে ফেলি। সেটি পচতে সময় নেয় ৩ মাস। কমলা আমাদের অনেকেরই পছন্দের ফল। ফলটির খোসা পচতে ৬ মাস সময় লাগে। ঘরের আসবাবপত্র বানাতে আমরা প্লাইউড/প্লাইকাঠ ব্যবহার করি। 

ফার্নিচার অব্যবহার্য হয়ে গেলে তাকে যেখানে সেখানে ফেলে রাখে অনেকেই। আপনি কি জানেন প্লাইউড পচতে ১-৩ বছর পর্যন্ত সময় লাগে। 

আরো পড়ুন : শিশুর অতিরিক্ত ওজন বাড়াতে পারে অ্যালার্জির ঝুঁকি

শীতকালে উলের মোজা না হলে কি চলে? সেই উলের মোজায় ১-৫ বছরের মধ্যে পচন ধরে। সবাই জানে ধূমপান স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। তবুও এটি একটি নেশা যা অনেকে ছাড়তে পারে না। রাস্তায় হেঁটে সিগারেট খেয়ে রাস্তায়ই তার বাট ফেলে রাখে সিগারেট প্রেমীরা। তাদের জন্য বলছি ১০-১২ বছর সময় লেগে যায় এই সিগারেটের বাট পচতে। 

চামড়ার জুতা আমাদের নিত্য ব্যবহার্য জিনিস। এটি পচতে সময় নেয় ২৫-৪০ বছর। বন্ধুদের যখন আড্ডা চলে হাতে তখন কোক বা পেপসির ক্যান থাকলে আড্ডাটা বেশ জমে যায়। এই স্টিলের তৈরি ক্যানটি পচন ধরতে সময় নেয় দীর্ঘ ৫০ বছর। পার্কে বসে চা খাওয়া এটাও নিত্যদিনের কাজ বলা যায়। পার্কে চা খেতে ব্যবহৃত প্লাস্টিকের কাপগুলো পচতে সময় নেয় ৫০ বছর। 

প্লাস্টিকের কন্টেইনার নিশ্চয়ই চেনেন। এটি পচে ৫০-৮০ বছরের মধ্যে। অ্যালুমিনিয়ামের ক্যান পচতে প্রয়োজন ২০০-৫০০ বছর। প্লাস্টিকের বোতলে লাগে দীর্ঘ ৪৫০ বছর। সবশেষে বলছি প্লাস্টিকের ব্যাগের কথা। এটি পচতে লাগে ২০০-১০০০ বছর।