আশুলিয়া প্রতিনিধি : পূজা দর্শন শেষে বাড়িতে ফেরার পথে আশুলিয়ায় ৪ যুবক রক্তাক্ত জখমের শিকার হয়েছেন ডাকাতদলের হাতে। এদের মধ্যে দীপ দাস (২৮) আশঙ্কাজনক অবস্থায় শেখ ফজিলাতুন্নেসা মুজিব মেমোরিয়াল কেপিজে বিশেষায়িত হাসপাতালের আইসিও’তে কোমায় রয়েছেন। তার মাথায় গুরুতর জখমের চিহ্ন রয়েছে। গত মঙ্গলবার দিবাগত রাত ২টায় আশুলিয়ার কবিরপুর বেতার কেন্দ্র গেট সংলগ্ন এলাকায় এ হামলার ঘটনা ঘটে। ঘটনায় গতকাল শুক্রবার বিকেলে আশুলিয়া থানায় অভিযোগ হয়েছে।

আরো পড়ুন : আশুলিয়ায় ডিবি পুলিশের অভিযানে ৬০০পিস ইয়াবাসহ আটক ২

ডাকাতের হামলায় আহতরা হলো, আশুলিয়া থানাধীন জিরানী টেংগুড়ি কোনাপাড়া এলাকার নিলু দাসের দুই ছেলে দীপ দাস (২৮) ও মিঠু দাস (২৩)। এছাড়া একই এলাকার নিতাই দাস (৩৪) ও ভ্যান চালক মনির মিয়া (৪০)।

এ ব্যাপারে দীপ দাস ও মিঠু দাসের পিতা নিলু দাস বাদি হয়ে আশুলিয়া থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। তিনি এ প্রতিনিধিকে জানান, নবমীতে পূজা দর্শণ করতে তার দুই ছেলে ও প্রতিবেশি নিতাই দাস কালিয়াকৈর এলাকার পূজা মন্ডপে যান। সেখানে বিভিন্ন পূজা মন্ডপ দর্শণ শেষে রাত ২টায় আশুলিয়ার জিরানীর টেংগুড়ি কোনাপাড়া এলাকার তার নিজ বাড়িতে মনির মিয়ার ভ্যানে ফেরার পথে কবিরপুর বেতার কেন্দ্র এলাকায় পৌঁছলে ১০/১৫ জনের অস্ত্রধারী ডাকাতদল ভ্যানটি থামার নির্দেশ দেয়। এসময় ভ্যানচালক বুঝতে পেরে দ্রুত গতিতে ওই স্থান ত্যাগের চেষ্টাকালে ডাকাতদলের সদস্যরা ধারালো অস্ত্র দিয়ে চলন্ত ভ্যানে আরোহিদের ওপর আঘাত করে। এতে তার বড় ছেলে দীপ দাস মাথায় গুরুতর জখম হন। তার ছোট ছেলে মিঠুকে কুপিয়ে রক্তাক্ত জখম করে।

আরো পড়ুন : ধামরাইয়ে স্কুল ছাত্র হত্যা মামলার দুই ডাকাত গ্রেফতার

এছাড়া নিতাই দাস ও ভ্যান চালক মনির মিয়াকেও কুপিয়ে আহত করে। আহতদের আর্তচিৎকারে গভীর রাতে এলাকাবাসী এসে তাদের উদ্ধার করে শেখ ফজিলাতুন্নেসা মুজিব মেমোরিয়াল  কেপিজে বিশেষায়িত হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করেন। এদের মধ্যে তার বড় ছেলে দীপ দাসের মাথায় আঘাতের কারণে রক্তক্ষরণ মস্তিষ্কে প্রবেশ করায় সে অচেতন অবস্থায় ওই হাসপাতালের আইসিও’র কোমায় ক্লিনিক্যাল ডেড হিসেবে রয়েছেন বলেও তিনি জানান। এ ঘটনায় তিনি গতকাল শুক্রবার দুপুরে লিখিত অভিযোগ দিলে তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থল পরিদর্শণ করেছেন আশুলিয়া থানার ইন্সপেক্টর অপারেশন জিয়াউল হক জিয়ার নেতৃত্বে পুলিশ।

আরো পড়ুন : সাভারে মাদ্রাসার ছাত্রীকে ধর্ষণের চেষ্টায় শিক্ষক আটক

জানতে চাইলে আশুলিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ রিজাউল হক বলেন, রাতের আধারে কবিরপুর এলাকায় যারা হামলা চালিয়ে নিরীহ পূজা দর্শণকারিদের কুপিয়ে আহত করেছে এবং দীর্ঘদিন যাবৎ ওই এলাকায় যারা ছিনতাই ও ডাকাতির মতো ঘৃণ্যতম কাজে নিয়োজিত রয়েছে তাদের গ্রেফতার করতে না পারলে তিনি আশুলিয়া থানায় থাকবেন না। যেকোন মূল্যে অবিলম্বে তাদের গ্রেফতার করতে তিনি বদ্ধপরিকর।