সুযোগের সদ্ব্যবহার করে রেকর্ড গড়লেন শামি

0
131

সুযোগ পেলে সেটাকে কিভাবে কাজে লাগাতে হয়, তা চোখে আঙ্গুল দিয়ে দেখিয়ে দিলেন ভারতীয় পেসার মোহাম্মদ শামি। ভুবনেশ্বর কুমারের ইনজুরির কারণে ভারতীয় দলে সুযোগ পেলেন বিশ্বকাপে খেলার। সেই সুযোগটাকে এমনভাবে কাজে লাগালেন, এখন ভুবনেশ্বরেরই জায়গা নেই। তিন ম্যাচে ৪+৪+৫ = ১৩ উইকেট। ঈর্ষা জাগানোর মতই তো বোলিং করে যাচ্ছেন ভারতের এই পেসার!

ভুবনেশ্বর কুমারের কারণে ভারতীয় দলে এক প্রকার ভ্রাত্য হয়ে পরেছিলেন পেসার মোহাম্মদ শামি। বিশ্বকাপের আগে দুর্দান্ত ফর্মে থাকলেও ভুবনেশ্বরের কারণে বারবার দল থেকে বাদ পড়েছেন তিনি। তবে আসরের মাঝপথে ভুবনেশ্বর ইনজুরিতে পড়লে খুলে যায় এই পেসারের কপাল।

প্রথম ম্যাচে আফগানিস্তানের বিপক্ষে সুযোগ পেয়েই বাজিমাত করেন শামি। করে বসেন এবারের বিশ্বকাপে প্রথম এবং এখনও পর্যন্ত একমাত্র হ্যাটট্রিক। হ্যাটট্রিকসহ ওই ম্যাচে ৪ উইকেট তুলে নেন এই পেসার। ফলে পরের ম্যাচের আগে ভুবনেশ্বর ফিট হয়ে উঠলেও মোহাম্মদ শামির কাছে দলে জায়গা হারাতে হয় তাকে।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ম্যাচে আবারো বল হাতে জাদু দেখান শামি। দুর্দান্ত পারফরমেন্স করে ওই ম্যাচ বল হাতে ১৬ রানে ৪ উইকেট তুলে নেন তিনি।

ভালো পারফরমেন্সের ধারাবাহিকতা আজও বার্মিংহ্যামে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে বজায় রাখেন মোহাম্মদ শামি। যেখানে ইংল্যান্ড ব্যাটসম্যানদের কাছে ভারতীয় বোলাররা রীতিমত পিটুনি খেতে খেতে দিশেহারা হয়ে যাচ্ছিল, সেখানে ৬৯ রানে পাঁচ উইকেট নিয়ে থ্রি লায়ন্সদের রানের গতি কমিয়ে দেন এই পেসার।

এর ফলে পাকিস্তানি ক্রিকেটার শহিদ আফ্রিদির পর দ্বিতীয় বোলার হিসেবে বিশ্বকাপে টানা তিন ম্যাচ চারটিরও বেশি উইকেট নেয়ার কৃতিত্ব দেখালেন তিনি। এছাড়া ভারতের হয়েও টানা তিন ম্যাচে চার বা তার বেশি উইকেট নেয়া দ্বিতীয় বোলার হচ্ছেন শামি। এর আগে ১৯৮৮ সালে ভারতের হয়ে প্রথম এই কীর্তি গড়েন নরেন্দ্র হিরওয়ানি।

বিশ্বকাপে এখনো পর্যন্ত তিন ম্যাচ খেলে মোট ১৩টি উইকেট নিয়েছেন শামি। এর ফলে আসরের সর্বোচ্চ উইকেট শিকারীর তালিকায় পাঁচ নম্বরে উঠে এসেছে ভারতীয় এই পেসার।