কেন দৃষ্টিশক্তি কমে ?

0
233

বয়সের সঙ্গে সঙ্গে দৃষ্টিশক্তি কমতে থাকলে তা অনেকটাই স্বাভাবিক বিষয়। চিকিৎসকের কাছে গিয়ে যথাযথ চিকিৎসা নেয়াই তখন একমাত্র উপায়। কিন্তু সময়ের আগেই কমতে শুরু করলে সেটি বাড়তি দুশ্চিন্তার কারণ।

চিকিৎসকদের মতে, সময়ের আগে দৃষ্টিশক্তি কমার জন্য কিছুটা হলেও নিজেরা দায়ী। কখনো নিজেদের অজান্তে আবার কখনো কিছু অভ্যাসের জন্য চোখের ক্ষমতাকে কমিয়ে ফেলছি আমরাই।

তবে সে সব অভ্যাস পরিবর্তন করলে দৃষ্টিশক্তি কমানোকে অনেকটাই আটকানো যায়। অতিরিক্ত টিভি দেখা বা মোবাইল দেখা ছাড়াও অনেক অভ্যাস আমদের ত্যাগ করতে হবে।

তীব্র রোদে যখনই বাইরে যান, সানগ্লাস পরতে হবে। ক্যাটারাক্টের অন্যতম কারণই সূর্যের অতি বেগুনি রশ্মি। তাই সানগ্লাস পরুন তবে ফুটপাত থেকে কেনা সানগ্লাস নয়।

চক্ষুবিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিয়ে ইউভি প্রোটেক্টর রোদচশমা ব্যবহার করুন। চোখে পাওয়ার থাকলে তা যোগ করুন সানগ্লাসেও।

চশমার পরিবর্তে কনট্যাক্ট লেন্স ব্যবহার করেন অনেকেই। কিন্তু তেমন যত্নের করেন না। লেন্স এক বার পরে আর তা খোলেন না একটানা দুই-তিন দিন।

চিকিৎসকদের মতে, এভাবে লেন্সের নিয়ম না মেনে পরলে চোখের খুব ক্ষতি হয়। অনেকেই অন্যকে লেন্স দেন বা অন্যেরটা ব্যবহার করেন। এটাও চোখের জন্য খুব ক্ষতিকর।

চোখের মেকআপ ব্যবহারের ক্ষেত্রে বার বার দেখে নিন তা মেয়াদ আছে নাকি। ধূমপান কেবল হার্ট নয়, এর ধোঁয়া আপনার চোখের ক্ষতি করে। ক্যাটারাক্ট ছাড়াও বয়সজনিত ম্যাকুলার ডিজেনারেশান বা রেটিনার অসুখ বাড়ায়। দৃষ্টিশক্তি কম হওয়ার অন্যতম কারণ হিসাবে এই ধূমপানকেই চিহ্নিত করছেন চিকিৎসকরা।

ঘন ঘন স্মার্টফোন, কথায় কথায় হোয়াটসঅ্যাপ, মেসেঞ্জার বা ফেসবুক ব্যবহার বিশেষ করে রাতে আলো নিভিয়ে চোখের কাছে মোবাইল রেখে তাতে সিনেমা দেখা বা ঘণ্টার পর ঘণ্টা চ্যাট ক্ষতি করছে দৃষ্টির।

চোখের অসুখ না থাকলেও বছরে দুই বার চক্ষুবিশেষজ্ঞের কাছে যাওয়া খুবই প্রয়োজন। চোখ লাল হয়েছে বা একটু কড়কড় করছে? এমন দেখলেই ওষুধের দোকানে গিয়ে ড্রপ কিনবেন না। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া ড্রপ লাগালে তার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় দৃষ্টিশক্তি হারাতে পারেন আপনি।