শরীয়তপুরে বোমা বানাতে গিয়ে হাতের কব্জি উড়ে গেল যুবকের

0
50

শরীয়তপুরের জাজিরা উপজেলার পালেরচর বকসু মাদবর কান্দি গ্রামে বোমার আঘাতে ৫ যুবক আহত হয়েছে। আহতদের ঢাকায় প্রেরণ করা হয়েছে। এ ঘটনা নিয়ে উভয় গ্রুপের পাল্টাপাল্টি অভিযোগ রয়েছে। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে বোমা বানানোর আলামত উদ্ধার করেছে। পুলিশের ধারণা বোমা বানাতে গিয়ে বিস্ফোরণ হতে পারে।

জাজিরা থানা ও স্থানীয় সূত্র জানায়, জাজিরা উপজেলার পালেরচর বকসু মাদবর কান্দি গ্রামের বাসিন্দা তোতা সরদার ,আঃ লতিফ ফকির এর সাথে একই গ্রামের মনির হোসেন মাদবরের বিরোধ চলে আসছিল। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে উভয় পক্ষের সমর্থকরা মাঝে মধ্যে এলাকায় সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে।

গত ঈদুল ফিতরের পর থেকে তোতা সরদার, আঃ লতিফ ফকিরের সমর্থক দেরকে মনির সরদার সমর্থকরা স্থানীয় ঝিনুক মার্কেটের বাজারে যেতে দিচ্ছেনা বলে অভিযোগ করছে লতিফ সরদার সমর্থকরা।

গত সোমবার বিকেলে ঝিনুক মার্কেটে তোতা সরদারের ছেলে রানা সরদার ও মেম্বার রনি মাদবরের মধ্যে এ নিয়ে কথা কাটাকাটি হয়। এ নিয়ে উভয় সমর্থকরা এক অপরপক্ষকে দেখিয়ে দেয়ার হুমকি দেয়। কিছুক্ষণ পরে মনির সরদার সমর্থক ২০/২৫ জন লোক লাঠিসোঠা ও ধারালো অস্ত্র নিয়ে হামলা করে। এ সময় লতিফ সরদারের বাড়ির টিনের বেড়া ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে আতংক সৃষ্টি করে।

সোমবার রাতে মনির মাদবর সমর্থক পালেরচর ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ড মেম্বার রনি মাদবরের বাড়ির দক্ষিণ পার্শ্বের ছোট টিনের ঘরে অবস্থান করে। রাত সাড়ে ১১টার দিকে আশেপাশের লোকজন যখন ঘুমিয়ে পড়ে এ সময় ঐ ঘরের ভিতরে বোমা বিস্ফোরিত হয়ে বিকট শব্দ হলে স্থানীয় লোকজন এসে ঘটনাস্থলে ৫ জনকে রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে থাকতে দেখে।

এদের মধ্যে আহত জসিম ফকির (২৬)জুয়েল সরদার (৩০) আর্শেদ ফকির (২৫) আঃ লতিফ ফকির (২২) কে তাৎক্ষণিকভাবে জাজিরা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যায়। এদের মধ্যে ককটেল বোমা বিস্ফোরণে জসিম ফকিরের হাতের কব্জি উড়ে গেছে বলে জানা গেছে। রোগীর অবস্থার গুরুতর দেখে কর্তব্যরত ডাক্তার তাদেরকে ঢাকায় প্রেরণ করেছে। মনির সরদারের ভাগ্নে আহত সোহাগ হাওলাদার পালিয়ে যায়।

জাজিরা থানার (ওসি) তদন্ত মোঃ নাসির উদ্দিন শেখ বলেন, সোমবার রাতে ঘটনার খবর পেয়ে হাসপাতালে ও ঘটনাস্থলে যাই। একপক্ষ অপরপক্ষকে দোষারোপ করছে। প্রাথমিকভাবে মনে হয়েছে বোমা বানাতে গিয়ে এরা আহত হয়েছে। বোমা বানানোর সময় যে বিছানায় বসে বোমা বানাতে গিয়ে আহত হয়েছে ঐ বিছানা পুলিশ রনি মাদবরের বাড়ির পাশে থেকে উদ্ধার করেছে। এ ব্যাপারে আরো তদন্ত করে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।