ঈদে প্রতিদিন ট্রেনের ৭০ হাজার টিকিট

0
105

ঈদে ৮ জোড়া বিশেষ ট্রেনের পাশাপাশি ৯৬টি আন্তঃনগর ট্রেনে প্রতিদিন ৭০ থেকে ৭২ হাজার টিকিট বিক্রি করা হবে। এই হিসাবে ৫ দিনে বাংলাদেশ রেলওয়ে ৩ লাখ ৫০ হাজার যাত্রীকে গন্তব্যে পৌঁছে দেওয়ার সেবা দেবে।
বুধবার (১৫ মে) দুপুরে রেল ভবনে রেলের ঈদযাত্রার প্রস্তুতি নিয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন এসব তথ্য জানান।


তিনি বলেন, ঈদের সম্ভাব্য তারিখ ৫ জুন ধরা হয়েছে। সে অনুযায়ী সব প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। এ জন্য আগামী ২২ মে থেকে ঈদের অগ্রিম টিকিট দেওয়া হবে। ২২ মে দেওয়া হবে ৩১ মের টিকিট, ২৩ মে দেওয়া হবে ১ জুনের টিকিট, ২৪ মে দেওয়া হবে ২ জুনের টিকিট, ২৫ মে দেওয়া হবে ৩ জুনের টিকিট এবং ২৬ মে দেওয়া হবে ৪ জুনের টিকিট।
আর ফেরত যাত্রীদের জন্য ২৯ মে দেওয়া হবে ৭ জুনের টিকিট, একইভাবে ৩০ ও ৩১ মে এবং ১ ও ২ জুন দেওয়া হবে যথাক্রমে ৮, ৯, ১০ ও ১১ জুনের টিকিট। একজন যাত্রী একসঙ্গে সর্বোচ্চ ৪টি টিকিট কিনতে করতে পারবেন। এ জন্য অবশ্যই জাতীয় পরিচয়পত্র লাগবে। স্পেশাল ট্রেনের কোনও সিট মোবাইল অ্যাপে পাওয়া যাবে না।

অবশ্যই জাতীয় পরিচয়পত্র লাগবে। স্পেশাল ট্রেনের কোনও সিট মোবাইল অ্যাপে পাওয়া যাবে না।

য়ী সব প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। এ জন্য আগামী ২২ মে থেকে ঈদের অগ্রিম টিকিট দেওয়া হবে। ২২ মে দেওয়া হবে ৩১ মের টিকিট, ২৩ মে দেওয়া হবে ১ জুনের টিকিট, ২৪ মে দেওয়া হবে ২ জুনের টিকিট, ২৫ মে দেওয়া হবে ৩ জুনের টিকিট এবং ২৬ মে দেওয়া হবে ৪ জুনের টিকিট।


আর ফেরত যাত্রীদের জন্য ২৯ মে দেওয়া হবে ৭ জুনের টিকিট, একইভাবে ৩০ ও ৩১ মে এবং ১ ও ২ জুন দেওয়া হবে যথাক্রমে ৮, ৯, ১০ ও ১১ জুনের টিকিট। একজন যাত্রী একসঙ্গে সর্বোচ্চ ৪টি টিকিট কিনতে করতে পারবেন। এ জন্য অবশ্যই জাতীয় পরিচয়পত্র লাগবে। স্পেশাল ট্রেনের কোনও সিট মোবাইল অ্যাপে পাওয়া যাবে না।


মন্ত্রী জানান, যে ৮ জোড়া বিশেষ ট্রেন ছাড়া হবে সেগুলো হলো ঢাকা-দেওয়ানগঞ্জ-ঢাকা রুটে দেওয়ানগঞ্জ ঈদ স্পেশাল (১ জোড়া), চট্টগ্রাম-চাঁদপুর-চট্টগ্রাম রুটে চাঁদপুর ঈদ স্পেশাল (২ জোড়া), খুলনা-ঢাকা-খুলনা রুটে মৈত্রীর রেক দিয়ে খুলনা ঈদ স্পেশাল, ঢাকা-ঈশ্বরদী-ঢাকা রুটে ঈশ্বরদী ঈদ স্পেশাল, লালমনিরহাট-ঢাকা-লালমনিরহাট রুটে লালমনি ঈদ স্পেশাল, ভৈরববাজার-কিশোরগঞ্জ-ভৈরববাজার রুটে শোলাকিয়া স্পেশাল-১ এবং ময়মনসিংহ-কিশোরগঞ্জ-ময়মনসিংহ রুটে শোলাকিয়া স্পেশাল-২ চলবে। এর মধ্যে শোলাকিয়া স্পেশালগুলো ঈদের দিন সেবা দেবে। এ সময়ের মধ্যে সব অন্তঃনগর ট্রেনের অফ-ডে বাতিল করা হয়েছে।


কোন স্টেশন থেকে কোন রুটের টিকিট
এবারই প্রথম অগ্রিম টিকিট ঢাকা কমলাপুর স্টেশন, বিমানবন্দর, বনানী, তেজগাঁও স্টেশন এবং ফুলবাড়িয়া থেকে বিক্রি করা হবে। এর মধ্যে ঢাকা (কমলাপুর) থেকে সমগ্র পশ্চিমাঞ্চলগামী ট্রেন ভায়া যমুনা সেতু, বিমানবন্দর স্টেশন থেকে চট্টগ্রাম ও নোয়াখালীগামী সব আন্তঃনগর ট্রেন, তেজগাঁও স্টেশন থেকে ময়মনসিংহ ও জামালপুরগামী সব আন্তঃনগর ট্রেন, বনানী স্টেশন থেকে নেত্রকোনাগামী মোহনগঞ্জ ও হাওড় এক্সপ্রেস ট্রেন এবং ফুলবাড়িয়া (পুরাতন রেলভবন) থেকে সিলেট ও কিশোরগঞ্জগামী সব আন্তঃনগর ট্রেনের টিকিট দেওয়া হবে।


রেলমন্ত্রী আরও জানান, মোট টিকিটের ৫০ শতাংশ অনলাইনে বিক্রি করা হবে। স্টেশন কাউন্টার থেকে দেওয়া হবে বাকি ৫০ শতাংশ। এ ছাড়া কালোবাজারি রোধে বড় বড় স্টেশনে জিআরপি, আরএনবি, বিজিবি ও স্থানীয় পুলিশ এবং র্যা বের সহযোগিতায় সার্বক্ষণিক প্রহরার ব্যবস্থা থাকবে। সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন রেল সচিব মো. মোফাজ্জেল হোসেন, অতিরিক্ত মহাপরিচালক রোলিং স্টক মো. শাসছুজ্জামান প্রমুখ।