আশুলিয়ায় আন্ত:জেলা ডাকাতদলের সর্দারসহ ৮ সদস্য গ্রেফতার

0
101

আশুলিয়া প্রতিনিধি : আশুলিয়ায় পূর্বাশা নামে একটি গণপরিবহণে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে দেশিয় ৭টি অস্ত্র উদ্ধার ও আন্তঃজেলা ডাকাতদলের সর্দার শাহিনুর রহমান শাহিনসহ ৮সদস্যকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

রোববার (১৪ এপ্রিল) দিবাগত রাত সোয়া ১২টায় আশুলিয়ার ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের বাইশমাইল কোহিনুর গেটের পূর্বপাশ থেকে ডাকাত দলের ৮ সদস্যকে গ্রেফতার করা হয়। আটক ডাকাতদলের প্রত্যেকের বিরুদ্ধে ঢাকাসহ বিভিন্ন জেলায় একাধিক মামলা রয়েছে।

গ্রেফতারকৃত ডাকাতদলের সদস্যরা হলো, নারায়নগঞ্জ জেলার আড়াইহাজার থানাধীন মুকুন্দি এলাকার ইমান আলীর ছেলে ডাকাত সর্দার শাহিনুর রহমান শাহিন (৪৫)। তার বিরুদ্ধে নারায়ণগঞ্জ আড়াইহাজার থানায় খুনের মামলা ও একই থানায় ডাকাতির মামলা রয়েছে। সোনারগাঁ থানায় ২০১৫ সালে ডাকাতির মামলা, ২০১৭ সালে নাটোর জেলায় ৩৯৫/৩৯৭ দঃবিঃ মামলা রয়েছে। রংপুর জেলার পীরগঞ্জ থানাধীন সায়েকপুর এলাকার মৃত আব্দুল হামিদের ছেলে তাজুল ইসলাম (৪৭)। তার বিরুদ্ধে ২০১৭ সালে রংপুর জেলার পীরগঞ্জ থানায় ১৭১/৩৯৪ দঃ বিঃ মামলা, গাইবান্ধা জেলার পলাশবাড়ি থানায় ২০১৬ সালে ডাকাতির মামলা, একই জেলার পীরগঞ্জ থানায় ২০১৫ সালে ৩৯২ দঃবিঃ মামলা, একই থানায় ২০১৪ সালে ৩৯৫/৩৯৭ দঃ বিঃ মামলা রয়েছে। নাটোর জেলার বড়াইগ্রাম থানাধীন ভবানীপুর মধ্যপাড়া এলাকার মৃত আঃ রাজ্জাকের ছেলে এছার উদ্দিন (৪৭)। এর বিরুদ্ধে ২০১৮ সালে নাটোর জেলার বড়াইগ্রাম থানার ৩৯৫/৩৯৭ দঃ বিঃ মামলা, পাবনা জেলার ঈশ^রদি থানায় ২০১৭  সালে একই ধারায় আরো একটি মামলা রয়েছে।

কামরুল হাসান (৩৫) ফরিদপুর সদর থানার পরমানন্দপুর এলাকারর মৃত সোনা উল্লা শেখ এর ছেলে। তার বিরুদ্ধে ২০১৭ সালে গাইবান্ধা জেলার গোবিন্দগঞ্জ থানার ৩৯৪/৩৯৫/৩৯৭ মামলার এজাহারভুক্ত আসামী। এছাড়া শরীফুল ইসলাম (২৮) গাইবান্ধা জেলার সাদুল্লাপুর থানার ইসলামপুর এলাকার খলিলুর রহমানের ছেলে।

জামালপুর জেলার দেওয়ানগঞ্জ থানার পশ্চিমপাড়া ডিগ্রিরচর এলাকার ফজলুল হকের ছেলে খোরশেদ আলম (৩৫)। খোরশেদ আলমের বিরুদ্ধে ডাকাতি, চুরি ছিনতাইসহ ৪টি মামলা রয়েছে। হুমায়ুন (২৭) নারায়নগঞ্জ জেলার রূপগঞ্জ থানাধীন ঘুতুলিয়া এলাকার নাসির উদ্দিনের ছেলে। সে আন্তঃজেলা ডাকাত দলের সক্রিয় সদস্য।

এ বিষয়ে সোমবার দুপুরে বিভিন্ন মিডিয়া প্রতিনিধিদের সামনে ব্রিফিংকালে আশুলিয়া থানার অফিসার ইনচার্জ রিজাউল হক দীপু বলেন, রাতের বিভিন্ন সময়ে চলন্ত পরিবহণে যাত্রীবেশে উঠে চালকের স্টীয়ারিং হাতে নিয়ে এবং অস্ত্রের মুখে যাত্রীদের জিম্মি করে সুবিধাজনক স্থানে নিয়ে সবকিছু লুটে নেয় ডাকাতদলের সদস্যরা। মাঝে মাঝে নারীদেরও শ্লীলতাহানির চেষ্টা চালায়। চলতি বছরের ৩১ মার্চ দিবাগত রাতে আশুলিয়ার নবীনগর এলাকায় এস আলম পরিবহণে ডাকাতি করে আন্তঃজেলা ডাকাতদল। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে আশুলিয়ার সকল রুটে পুলিশি টহল জোরদার, মাদকদ্রব্য উদ্ধার অভিযান ও ওয়ারেন্ট তামিল ডিউটি করাকালে গোপন সংবাদের মাধ্যমে পুলিশ জানতে পারে বাইশমাইল এলাকায় একদল ডাকাত সদস্য সিলেট থেকে ছেড়ে আসা পূর্বাশা গাড়িতে ডাকাতি করার জন্য ওৎপেতে রয়েছে। এ ঘটনায় আশুলিয়া থানার এসআই মনিরুজ্জামান পিপিএম, এসআই বিলায়েত হোসেনসহ আরো কয়েকজন পুলিশ সদস্যকে ঘটনাস্থলে প্রেরণ করি। তারা ঘটনাস্থল থেকে আন্তঃজেলা ডাকাতদলের সর্দার শাহিনসহ ৮ সদস্যকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হন। এসময় ডাকাতদলের দেহ তল্লাশি করে ৭টি দেশিয় চাপাতি, কয়েকটি ধারাল ছুরি ও হাতুড়ি  উদ্ধার করে পুলিশ।

গ্রেফতারকৃতদের বিরুদ্ধে আশুলিয়া থানায় ডাকাতির ঘটনায় মামলায় (নং-৩৯) এজাহারভুক্ত আসামী হিসেবে গ্রেফতার দেখিয়ে এবং পুলিশি জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১০ দিনের রিমান্ড চেয়ে দুপুরে আদালতে প্রেরণ করেছে থানা পুলিশ।