একবছরের প্রতীক্ষার সফল সমাপ্তি হচ্ছে আগামীকাল, পদ্মাসেতুতে বসছে বহুল প্রতিক্ষিত ৬ ও ৭ নং পিয়ার

0
386

 যে পিয়ারগুরো বসাতে গিয়ে প্রায় একবছর পদ্মা সেতুর কাজ পিছিয়েছিল সেই জটিল পিয়ারগুলো বসছে আগামীকাল। খরস্রোতা পদ্মায় সেতু গড়তে সবচেয়ে বেশি চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করতে হয়েছে নদীর তলদেশে পাইল গেঁথে পিয়ার গড়ার কাজে। আর এর মধ্যে সবচেয়ে কঠিন ছিল সেতুর মাওয়া প্রান্তের পিয়ার-৬ এবং পিয়ার-৭সহ ১১টি পিয়ারের নকশা নতুন করে করতে হয়েছে।

সেতুর প্রকল্প পরিচালক শফিকুল ইসলাম জানান, সেতু প্রকল্পের সবচেয়ে জটিল ৬ ও ৭ এর কাজ শেষ হচ্ছে আজ। এর মাধ্যমে সেতু গড়তে সবচেয়ে কঠিন ধাপটি পার হতে পারবো আমরা। তিনি জানান, সেতুতে মোট ২৯৪টি পাইল আছে। যার মধ্যে নদীতে পড়েছে ২৬২টি পাইল। ইতোমধ্যে ২৪৭টি পাইলের কাজ শেষ হয়েছে। ২৯৪টি পাইলে মোট ৪২টি পিয়ার উঠবে। সেতুর সব কাজ সঠিকভাবে এগিয়ে গেলেও পিয়ার-৬ এবং পিয়ার-৭ এর কাজ সবচেয়ে কষ্টসাধ্য ছিল।

পিয়ার দুটিসহ আরও ১১টি পিয়ার রিডিজাইন করা হয় উল্লেখ করে তিনি বলেন, এতে পিয়ার-৬ এবং ৭ এর প্রতিটিতে ৭টি করে পাইল রয়েছে। মঙ্গলবার মূল সেতুর সবচেয়ে জটিল এই দুটি পিয়ারের পাইল ড্রাইভিং কাজ শেষ হবে।

দ্রুতগতিতে এগিয়ে যাচ্ছে সেতুতে স্প্যান বসানোর কাজও। চলতি বছরের মধ্যই সবগুলো স্প্যান বসানোর কাজ সম্পন্ন হয়ে যেতে পারে উল্লেখ করে সেতুর প্রকল্প পরিচালক জানান, ইতিমধ্যে পদ্মাসেতুর জাজিরা প্রান্তে ৩৪, ৩৫, ৩৬, ৩৭, ৩৮, ৩৯, ৪০, ৪১, ৪২ পিয়ারে আটটি স্প্যান বসানো হয়েছে ও মাওয়া প্রাান্তে ৫ ও ৬ নম্বর পিলারে একটি স্প্যানসহ মোট ৯টি স্প্যানে দৃশ্যমান হয়েছে পদ্মাসেতুর দেড় কিলোমিটার।

তিনি বলেন, সেতুতে রেলওয়ে বক্স বসানোর কাজও চলছে পুরোদমে। পুরো সেতুতে সড়ক গড়তে জাজিরা প্রান্ত থেকে রোড স্ল্যাব ও বসানো শুরু হয়েছে। ছয় কিলোমিটারে ২ হাজার ৯৩১টি স্ল্যাব বসানো হবে। একটি স্প্যানে ৭৪টির মতো রোডওয়ে স্ল্যাব বসবে বলেও জানান তিনি।