আশুলিয়ায় গাড়ী চালককে কুপিয়ে হত্যা

0
228

আশুলিয়া প্রতিনিধি : আশুলিয়ায় মহাসড়কের পাশ থেকে সাদ্দাম হোসেন (২৫) নামে সাভার পরিবহণের এক গাড়ি চালকের রক্তাক্ত মরাদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। আজ শনিবার সকালে নবীনগর-চন্দ্রা মহাসড়কের বাড়ইপাড়া এলাকার রোজ ফ্যাশন নামের পোশাক কারখানা সংলগ্ন সড়কের পাশ থেকে ছুরিকাঘাতে ক্ষতবিক্ষত এ লাশটি উদ্ধার করে পুলিশ। নিহত গাড়ী চালক গাজীপুর জেলার কালিয়াকৈর উপজেলার আটাবহ ইউনিয়নের ২নং ওয়ার্ডের হিজল হাটি এলাকার সুরত আলীর ছেলে।

সাদ্দাম দুই ভাই এক বোনের মধ্যে সবার ছোট। সে তার স্ত্রী, সন্তানসহ বাবা মায়ের সাথে নিজ বাড়ীতে বসবাস করতো। নিহত সাদ্দাম হোসেনের ৫ বছরের একটি কন্যা সন্তান রয়েছে।

এ ব্যাপারে নিহতের স্ত্রী জেসমিন জানান, শুক্রবার সন্ধ্যা ৬টারদিকে সাদ্দাম হিজলহাটি বাড়ি থেকে বের হন। রাত ৯টায় তাকে মোবাইল করলে সে জানায়, একটু পরে বাড়িতে ফিরবে। এরপর রাতে কয়েকদফা মোবাইল করলেও সে রিসিভ করেনি। সকালে বাড়ইপাড়া এলাকার লোকজন খবর দিলে ঘটনাস্থলে গিয়ে লাশটি তার স্বামীর বলে শনাক্ত করেন। নিহতের পেটে ও শরীরের বিভিন্নস্থানে ছুরিকাঘাতের চিহ্ন রয়েছে। শনিবার সকাল সাড়ে ৫ টার সময় ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের পাশে আশুলিয়া থানার বাড়ইপাড়া এলাকায় রোজ ইনটিমেটস লিমিটেড লেঞ্জারী কারখানার মূল ফটকের সামনে তাকে বুকে ও পেটে আঘাত করে হত্যা করে লাশ ফেলে রেখে চলে যায় দুবৃর্ত্তরা। নিহতের বুকে ও পেটে আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। হত্যাকান্ডের ঘটনাটি কারখানার গেটের সামনেই ঘটেছে। কারখানার সিসি ক্যামেরার ধারণকৃত ছবি দেখে নিশ্চিত হয়েছেন পুলিশ।

তবে এ সংক্রান্ত বিষয়ে এলাকাবাসী জানিয়েছেন, সাদ্দাম সাভার পরিবহণের চালক ছিল। তবে সে নিয়মিত নেশা করতো। এলাকার লোকজন তাকে মাদকসেবী হিসেবেই চিনত।

আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) নাহিদ জানান, আশুলিয়ার বারইপাড়া এলাকার রোজ ফ্যাশনের প্রধান গেটের সামনে থেকে বাস চালকের মরাদেহ দেখতে পেয়ে স্থানীয়রা আশুলিয়া থানা পুলিশকে খবর দেন। ওই সংবাদরে ভিত্তিতে পুলিশ শনিবার সকাল সাড়ে ৮টারদিকে ঘটনাস্থলে পৌঁছে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করেছে। নিহতের দেহের বিভিন্নস্থানে ধারালো ছুরির আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। ধারণা করা হচ্ছে, দুর্বৃত্তরা তাকে ধারালো ছুরি দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেছে। প্রাথমিকভাবে পুলিশ ধারণা করছে, নেশা করতে গিয়ে অন্যান্যরা এ ঘটনা ঘটাতে পারে। তদন্তের জন্য নিহতের মরদেহটি উদ্ধার করে ঢাকার সোহরাওয়ার্দী হাসপাতালের মর্গে প্রেরণ করা হয়েছে।

এ ঘটনায় নিহতের পিতা সুরত আলী বাদী হয়ে আশুলিয়া থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেছেন। তবে হত্যাকান্ডের কারণ এখনও জানা যায়নি। এ খবর লেখা পর্যন্ত ঘটনার সাথে জড়িত কাউকে আটক কিংবা চিহ্নিত করতে পারেনি পুলিশ।