গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির ব্যাপা কোন সিদ্ধান্ত হয়নি : জ্বালানি উপদেষ্টা

স্টাফ রিপোর্টার : গ্যাসের দাম বাড়নো নিয়ে এনার্জি রেগুলেটর আলোচনা করছে। বিভিন্ন কোম্পানী প্রস্তাব দিয়েছে। ভোক্তারা তাদের মন্তব্য করছেন সমন্বয় করাটা হলো এনার্জি রেগুলেটর এর দায়িত্ব। এখানো এ বিষয়টি নিয়ে কোন সিদ্ধান্ত হয়নি বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর বিদ্যুৎ জ¦ালানি ও খনিজ সম্পদ বিষয়ক উপদেষ্টা ড. তৌফিক ই এলাহী চৌধুরী। আজ বৃহস্পতিবার দুপুরে সাভারের বিরুলিয়া ইউনিয়নের খাগান এলাকার ব্র্যাক সিডিএম এ ব্র্যাক ইউনিভার্সিটির ইলেকট্রিকাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের আয়োজনে ৩দিনব্যাপি ইন্টারন্যাশনাল সম্মেলন অন এনার্জি অ্যান্ড পাওয়ার ইঞ্জিনিয়ারিং (২০১৯) এ যোগ দিয়ে সাংবাদিকদের সাথে আলাপকালে তিনি একথা বলেন।

উপদেষ্টা এসময় আরও বলেন, বাংলাদেশে গ্যাসের পরিমাণ সীমিত। কৃষি ও কলকারখানায় গ্যাস দিতে হবে। সরকার এ জন্য এলএমজি গ্যাস আমদানি করছে। এলএমজি গ্যাস দেশীয় গ্যাসের চেয়ে দাম বেশি। তাই দেশীয় গ্যাস ও এলএমজি গ্যাস বাজারে দিলে ভোক্তাদের জন্য যেন ব্যয় বহুল না হয়। তাই বর্তমান সরকার আড়াই হাজার এম এম সিএফটি গ্যাস উৎপাদন করছে। আন্তর্জাতিক বাজারের ভিত্তিত্বে দাম নির্ধারণ না করে সমন্বয় করা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সব সময় বলছেন, কোন রকম দাম বৃদ্ধি করা হলে ধাপে ধাপে করতে হবে। যা ভোক্তাদের সহনীয় হয়। দেশে নতুন গ্যাস আসলে প্রথমে বিদ্যুৎ ও পরে শিল্প ও তার পরে সার কারখানায় দেওয়া হবে। তার পরপরেই বাসা বাড়িতে গ্যাস দেওয়ার চিন্তা ভাবনা করা হবে।

তিন দিন ব্যাপি এ সম্মেলনে দেশ বিদেশের খ্যাতনামা জ¦ালানি বিশেষজ্ঞরা অংশগ্রহণ করেন। এতে বাংলাদেশের হয়ে বিভিন্ন বিশ^বিদ্যালয়ের ৩৪ জন শিক্ষার্থী প্রতিনিধিত্ব করছেন। সম্মেলনে পাওয়ার ইঞ্জিনিয়ারিং বিষয়ক শিক্ষার অবকাঠামো ও নবায়নযোগ্য শক্তির ব্যবহারসহ ৩৬টি গবেষণা প্রবন্ধ উপস্থাপন করা হয়।

সম্মেলনে এসময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন ভার্জিনিয়া টেক ইউনিভার্সিটির প্রফসর সাইফুর রহমান, চায়নার স্টেট গ্রিড করর্পোরেশন এর ড. ইউ জুন, অস্ট্রেলিয়ার অফ ইউনিভার্সিটির অফ প্রফেসর তপন কুমার সাহা, অস্ট্রেলিয়ার কার্টিন ইউনিভার্সিটির প্রফেসর সাইদ ইসলাম, ভারতের পোসোকোর ড. সুশীল কুমার সোনি ও পাওয়ার রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট কনসাল্টেন্ট ড.নাগারাজা রামাপ্পা।