আশুলিয়ায় বাকিতে সিগারেট না দেয়ায় দোকানীকে পিটিয়ে হত্যা, ঘাতক আটক

আশুলিয়া ব্যুরো : আশুলিয়ায় একটি দোকান থেকে বাকিতে সিগারেট না দেয়ায় ইলিয়াস (৫০) নামে এক দোকানদারকে পিটিয়ে রক্তাক্ত জখম করে। আহত ইলিয়াসের আর্তচিৎকারে এলাকাবাসী এগিয়ে এসে তাকে উদ্ধার ও ঘাতক মুরাদ (২৭)কে আটক করে। পরে প্রতিবেশি ও স্বজনরা আহত ইলিয়াসকে এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। ঘটনাস্থল থেকে আটক করে পুলিশ ঘাতক মুরাদকে থানায় নিয়ে আসে। এ ঘটনায় থানায় একটি হত্যা মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলেও পুলিশ জানিয়েছেন।

বৃহস্পতিবার সকাল ৯টারদিকে আশুলিয়ার কলতাসূতী তালতলী এলাকার চা, পান বিড়ি সিগারেটের দোকানের সামনে এ হত্যার ঘটনাটি ঘটে।

নিহত ইলিয়াস নড়াইল জেলার লোহাগড়া থানাধীন মৃত গোলাম রহমান মৃধার ছেলে। সে আশুলিয়ার কলতাসূতী তালতলী এলাকায় মেয়ের জামাই ফরিদের বাড়িতে থেকে চায়ের দোকান চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করতো। হত্যায় জড়িত মুরাদ (২৭) কলতাসূতী তালতলী এলাকার মৃত দিলা ব্যাপারীর ছেলে।

এ ব্যাপারে নিহতের মেয়ের জামাই পোশাক কর্মী ফরিদ জানান, বৃহস্পতিবার সকালে তার শ্বশুরের দোকানে এসে সিগারেট চাইলে দোকানদার তার কাছে বকেয়া টাকা দাবি করেন। এতে মুরাদ ক্ষিপ্ত হয়ে দোকান থেকে তার শ্বশুর ইলিয়াসকে টেনে-হিঁচড়ে বেড় করে একটি বাঁশ দিয়ে পিটিয়ে রক্তাক্ত জখম করে। এ ঘটনায় তার মাথাসহ শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ জখমপ্রাপ্ত হয়। পরে স্বজন ও এলাকাবাসীর সহায়তায় আহত ইলিয়াসকে উদ্ধার করে এনাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে আসলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন। এ হত্যায় জড়িত মুরাদকে বিবাদী করে থানায় একটি হত্যা মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলেও তিনি জানান।

জানতে চাইলে আশুলিয়া থানার উপ পরিদর্শক আব্দুস সালাম ঘটনার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, ঘাতক মুরাদকে এলাকাবাসীর সহায়তায় গ্রেফতার করেছে পুলিশ। নিহতের লাশ ময়না তদন্তের জন্যে সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে বলেও তিনি জানান।