যে অদৃশ্য কারণে স্থগিত হলো কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গুরুত্বপূর্ণ বোর্ডসভা!

: বাংলাদেশ ব্যাংকের পূর্বনির্ধারিত বোর্ডসভায় উপস্থিত থাকার কথা ছিল সব পরিচালকের। কিন্তু সকালের দিকে অনেকেই উপস্থিত থাকতে পারবেন না বলে জানিয়ে দেন। এতে স্থগিত হয়ে যায় গতকালের নির্ধারিত বোর্ডসভা। বাংলাদেশ ব্যাংকের বোর্ডসভা আকস্মিক স্থগিতে ঝুলে গেছে নতুন ব্যাংকের অনুমোদন।

জানা গেছে, বোর্ডসভায় অন্যান্য বিভিন্ন বিষয় থাকলেও মূল এজেন্ডা ছিল নতুন তিন ব্যাংকের অনুমোদন। নাম প্রকাশ না করার শর্তে বিভিন্ন সূত্র জানিয়েছে, নির্বাচনের আগে ব্যাংক অনুমোদন দিয়ে বিতর্কিত হতে চায় না কেন্দ্রীয় ব্যাংকও।

দেশের ব্যাংকিং খাতের নিয়ন্ত্রক সংস্থা কেন্দ্রীয় ব্যাংকের এ পর্ষদ সভা ঘিরে ব্যাপক কৌতূহল ছিল। কারণ এ সভাতেই নতুন তিনটি ব্যাংক অনুমোদনের কথা ছিল। ব্যতিক্রম কিছু না ঘটলে জাতীয় নির্বাচনের আগে বাংলাদেশ ব্যাংকের পর্ষদের সভা হওয়ার কোনো সম্ভাবনা নেই বলে জানিয়েছে কেন্দ্রীয় ব্যাংক সূত্র।

সূত্রগুলো বলছে, নির্বাচন কমিশন (ইসি) তফসিল ঘোষণা করায় রাজনৈতিক বিবেচনায় নতুন ব্যাংকের অনুমোদন দিয়ে বিতর্কিত হতে চাননি কেন্দ্রীয় ব্যাংকের কয়েকজন পরিচালক। এ কারণেই বোর্ডসভায় আগ্রহী হননি তারা।

বাংলাদেশ ব্যাংকের মুখপাত্র ও নির্বাহী পরিচালক মো. সিরাজুল ইসলাম বণিক বার্তাকে বলেন, পরিচালকদের কয়েকজন পর্ষদের সভায় উপস্থিত থাকতে না পারার কথা জানিয়ে দেন। এ কারণে পর্ষদের সভা স্থগিত করা হয়েছে। পর্ষদের পরবর্তী সভা কবে হবে, সে ব্যাপারে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।

অনুমোদনের প্রক্রিয়ায় থাকা ব্যাংক তিনটি হলো— পিপলস ব্যাংক, বেঙ্গল কমার্শিয়াল ব্যাংক ও সিটিজেন ব্যাংক। ইসির আপত্তির পাশাপাশি প্রস্তাবিত ব্যাংকগুলোর প্রয়োজনীয় কাগজপত্রেও ঘাটতি রয়েছে। পর্ষদ সভা স্থগিতের পেছনে এটিও কাজ করেছে বলে জানা গেছে।

তবে বাংলাদেশ ব্যাংকের পরিচালনা পর্ষদের একজন সদস্য বলেন, নতুন ব্যাংকগুলোর অনুমোদনের জন্য পর্ষদের এ সভাটি আহ্বান করা হয়েছিল। কিন্তু কাগজপত্র তৈরি না হওয়ায় পর্ষদের সভা আর হয়নি।