সম্ভাব্য প্রার্থীদের মামলা দিয়ে গ্রেফতার করা হচ্ছে : ফখরুল

দলের সম্ভাব্য প্রার্থীদের আদালতের মাধ্যমে গ্রেফতার করা হচ্ছে অভিযোগ করে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, দেশের মানুষের অধিকার ফিরিয়ে আনার জন্য যে আন্দোলন বিএনপি ও ঐক্যজোট শুরু করেছে সেই আন্দোলনের অংশ হিসেবে আমরা নির্বাচনে অংশ নিচ্ছি।

তিনি বলেন, শত প্রতিকূলতার মধ্যেও আমরা গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় ক্ষমতার পরিবর্তনে বিশ্বাস করি। আর সেই জন্য একটা অসমতল নির্বাচনী মাঠে নির্বাচনী প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে যারা নির্বাচনে প্রার্থী হতে আগ্রহী তাদের সাক্ষাৎকার নিচ্ছি।

ফখরুল বলেন, আমরা গতকাল রাজশাহী ও রংপুরের প্রার্থীদের সাক্ষাৎকার শেষ করেছি। আজ বরিশাল বিভাগের ১৮৩ জনের সাক্ষাৎকার শেষ করেছি। এখন খুলনা বিভাগের মনোনয়ন প্রত্যাশীদের সাক্ষাৎকার নেয়া হবে।

তিনি বলেন, নির্বাচনে এখনও যে প্রতিকূলতা রয়েছে। এটি লেভেল প্লেয়িং ফিল্ডের জন্য যথেষ্ট নয়। আমাদের যে সব দাবি, সরকার তার কোনোটাই গ্রহণ করেনি। এমনকি যে কথা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী তাও রাখেননি।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, আমরা প্রায় দেখছি আমাদের প্রার্থীদের গ্রেফতার করা হচ্ছে, জেলে নেয়া হচ্ছে। বিশেষ করে যারা সম্ভাব্য প্রার্থী তাদের মামলা দিয়ে গ্রেফতার করা হচ্ছে।

তিনি বলেন, আমরা এসব বিষয় নির্বাচন কমিশনের গোচরে দিয়েছি, সরকারের গোচরে দিয়েছি কিন্তু এসব বিষয়ে এখনও কোনো ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে না।

নির্বাচন ব্যবস্থা নিয়ে যা চলছে এখনও তাতে নির্বাচন অবাধ সুষ্ঠু নিরপেক্ষ হবে বলে আমি মনে করি না। তাই আমরা আবারও আহ্বান করব অবাধ নিরপেক্ষ নির্বাচনের জন্য সব গ্রেফতার বন্ধ করতে হবে। বিশেষ করে বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতে হবে।

খালেদা জিয়ার নির্বাচনে অংশ নিতে পারবে কি-না জানতে চাইলে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ নেতারা কী চায় বা কী বলে তাদের চাওয়া পাওয়া নিয়ে আমাদের কিছু যা আসে না। আমরা এখন পর্যন্ত বিশ্বাস করি তিনি নির্বাচনের যোগ্য। নিঃসন্দেহে তিনি নির্বাচন করতে পারবেন বলে আমরা বিশ্বাস করি।

প্রার্থিতা নিয়ে কোন্দল আছে কি-না জানতে চাইলে ফখরুল বলেন, আমাদের প্রার্থিতা নিয়ে কোনো কোন্দল নাই। যাকে দল সমর্থন দিবে তার পক্ষে সবাই কাজ করবে। কারণ এটা আমাদের চূড়ান্ত আন্দোলনের অংশ। তাই আমাদের একক প্রার্থী এবার ভোটে অংশ নিবে। কারণ এ নির্বাচনের ওপর নির্ভর করছে বাংলাদেশের গণতন্ত্রের ভবিষ্যৎ।

প্রার্থী বাছাইয়ের বিষয়ে তিনি বলেন, যারা দলের প্রতি, দেশের প্রতি, গণতন্ত্রের প্রতি আনুগত্য থাকবে, গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় ভূমিকা রাখবে দল তাদেরকে মনোনয়ন দিবে। আমাদের বেশির ভাগ প্রার্থী এ বিষয়ে একমত।