রিজভী নিজেই অদ্ভুত প্রাণী : হাছান মাহমুদ

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী সরকারকে অদ্ভুত প্রাণী বলে যে মন্তব্য করেছেন তার প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ। তিনি বলেছেন, ‘আসলে সরকার নয়; রিজভী আহমেদ নিজেই একটি অদ্ভুত প্রাণীতে রূপান্তরিত হয়েছেন। কারণ রিজভীর মুখে কোনো দিন হাসি দেখা যায়নি। উনি সকাল-বিকেল মিথ্যাচার করেন।’

পুলিশকে ঘেরাও করে মারধর ও গাড়িতে আগুনের কয়েকটি মামলার আসামি হয়েও রিজভী কীভাবে দলীয় কার্যালয়ে বসে সংবাদ সম্মেলন করেন জানতে চেয়েছেন হাছান মাহমুদ।

বিএনপি প্রতিনিয়ত নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করছে জানিয়ে হাছান মাহমুদ বলেন, ‘যারা প্রতিনিয়ত আচরণবিধির কথা বলেন, তারা নিজেদের কার্যালয়ের সামনে হাজার হাজার লাঠি আর বাঁশ দিয়ে যেভাবে নির্বাচনী ফরম সংগ্রহ করতে করেছেন এটা আচরণবিধির কোথায় আছে? পুলিশকে ঘেরাও করে মারধর, পুলিশ ও র‌্যাবের গাড়িতে আগুন ধরিয়ে দিয়েছে, সেখানে আচরণবিধি সুস্পষ্ট লঙ্ঘন হয়েছে। আর এ ঘটনায় পুলিশ তিনটি মামলা করেছে, যেখানে পল্টন থানার মামলার আসামি রিজভী। পুলিশের কাছে প্রশ্ন, মামলার ২ নম্বর আসামি কার্যালয়ে বসে কীভাবে অন্যদলের বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করেন, বিষোদগার করেন? পুলিশ ও নির্বাচন কমিশনের কাছে অনুরোধ, রিজভী আহমেদসহ সব আসামির বিরুদ্ধে তড়িৎ ব্যবস্থা নেয়া হোক।’

প্রধানমন্ত্রীর জীবন-সংগ্রাম নিয়ে চলচিত্র বানানোয় বিএনপির গাত্রদাহ শুরু হয়েছে দাবি করে সাবেক বনমন্ত্রী বলেন, ‘রিজভী সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রীর জীবন সংগ্রামের ওপর নির্মিত ছবি নিয়ে আপত্তি জানিয়েছেন। প্রকৃতপক্ষে বিএনপির রাজনীতিটাই হচ্ছে মিথ্যাচারের ওপর প্রতিষ্ঠিত। সকাল-বিকেল দলীয় কার্যালয়ে মিথ্যাচার করাই হচ্ছে তাদের রাজনীতির মূল প্রতিপাদ্য। হিংসা-বিদ্বেষ ছড়ানো এবং মিথ্যাচারের ওপর প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে বিএনপির রাজনীতি। এরই ধারাবাহিকতায় গতকাল সংবাদ সম্মেলনে এমন বক্তব্য রেখেছেন রিজভী।’

হাছান মাহমুদ বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে নির্মিত ‘হাসিনা : এ ডটারস টেল’ তথ্যচিত্রটি নিছক তার সাধারণ জীবন যাপন ও বঙ্গবন্ধুর হত্যাকাণ্ডের পর তিনি জীবন সংগ্রামের মধ্য দিয়ে, যে হার্ট শিপের মধ্য দিয়ে জীবন অতিক্রান্ত করেছেন এবং মানুষের প্রতি তার যে ভালোবাসা মমত্ববোধ, মানুষের অধিকার আদায়ের যে সংগ্রাম সে বিষয়গুলো উঠে এসেছে।’

তিনি আরও বলেন, ‘এমন শিল্পকর্ম নিয়ে এ ধরনের বক্তব্য নিন্দনীয়। প্রকৃতপক্ষে তাদের গাত্রদাহের মূল কারণ হচ্ছে তাদের নেত্রী খালেদা জিয়াকে নিয়ে কোনো শিল্পকর্ম বানানোর কোনো ঘটনা প্রবাহ নেই। খালেদা জিয়ার জীবনী লিখতে হলে বলতে হবে পাঁচটি জন্মদিনের কথা, তার নেতৃত্বে পরপর পাঁচবার বাংলাদেশ দুর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে, দুই পুত্র দুর্নীতির টাকা বিদেশে পাচার করেছে, দুর্নীতির দায়ে দশ বছরের কারাদণ্ড হয়েছে। তবে খালেদা জিয়ার জীবন নিয়ে চলচিত্র বানাতে হলে একটি হরর মুভি বানাতে হবে। কারণ হচ্ছে ভৌতিক ছবিতে নায়িকা মানুষ পোড়ালে সেই পোড়া মানুষের গন্ধ না পেলে ঘুমাতে পারে না, পোড়া মানুষের গন্ধ না পেলে তার সস্তি হয় না। সুতরাং খালেদা জিয়াকে নিয়ে কোনো ছবি বানাতে হলে এগুলোই উঠে আসবেই।’

সুপ্রিম কোর্টে ভোট চেয়ে মির্জা ফখরুল ও ড. কামাল নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘন করেছেন জানিয়ে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘আপনারা নির্বাচনী আচরণবিধির কথা বলেন? গতকাল দেশের সর্বোচ্চ আদালত সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে রীতিমতো সমাবেশ করে দেশের সর্বোচ্চ আদালত এবং আইনের প্রতি বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে মির্জা ফখরুল এবং ড. কামাল হোসেনরা ধানের শীষে ভোট চেয়েছেন, এটা আচরণবিধির চরম লঙ্ঘন।’

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতি সম্পাদক অসীম কুমার উকিল, শিক্ষা ও মানবসম্পদ বিষয়ক সম্পাদক সামসুন্নাহার চাপা, উপ প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, উপ দফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া প্রমুখ।