বাংলাদেশে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতার অপব্যবহার হচ্ছে বলে মতামত ইইউ পার্লামেন্টের

ইইউ পার্লামেন্টে বাংলাদেশের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ও মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে বিতর্ক হয়েছে। এই সংসদ নির্বাচন বিশেষ গুরুত্বপূর্ণ, যা আইনের শাসনের ভবিষৎ নির্ধারণ করবে।

স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার ফ্রান্সের স্ট্রাসবুর্গে বাংলাদেশের নির্বাচন ও মানবাধিকার পরিস্থিতি নিয়ে এ বিতর্ক অনুষ্ঠিত হয়। বিতর্কে রাষ্ট্রক্ষমতার অপব্যবহার, সাংবাদিক, শিক্ষার্থী, মানবাধিকারকর্মী, সরকারের সমালোচক, আইনজীবী এবং বিরোধীদের ওপর ক্র্যাকডাউন নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়।

এছাড়াও রোহিঙ্গাদের আশ্রয় দেয়ায় বাংলাদেশের প্রশংসাও করা হয় রেজুলেশনে। একইসঙ্গে প্রত্যাবাসনের সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনার জন্য বাংলাদেশ ও মায়ানমারের প্রতি আহ্বান জানানো হয়।

বিতর্কে অংশ নিয়ে পার্লামেন্টের সদস্য জোসেফ ভাইদেনহোলজার বলেন, বাংলাদেশের আসন্ন জাতীয় নির্বাচন অনেক দিক থেকেই গুরুত্বপূর্ণ। এ নির্বাচনই শেষ সুযোগ, যেখানে নির্ধারিত হবে বাংলাদেশে গণতান্ত্রিক ধারা অব্যাহত থাকবে, নাকি পরিস্থিতি অরাজকতা ও বিশৃঙ্খলার দিকে ধাবিত হবে।

তিনি নির্বাচনের সহায়ক পরিবেশ তৈরির জন্য বাংলাদেশ সরকারের প্রতি আহ্বান জানিয়ে বলেন, মানুষ যেন নির্বিঘ্নে মতপ্রকাশ করতে পারে এবং অবাধ নির্বাচনে ভোটাধিকার প্রয়োগের প্রস্তুতি নিতে পারে।

ব্রিটিশ রাজনীতিক চার্লস টানোক বলেন, বাংলাদেশে মানবাধিকার পরিস্থিতির অবনতি ঘটেছে। আরেক পার্লামেন্ট সদস্য টমাস জেকোভস্কি বলেন, বাংলাদেশে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতার অপব্যবহার হচ্ছে।