এক্ষেত্রে বিএনপি ও আওয়ামী লীগের একই দশা: মাহবুব তালুকদার

 আসন্ন একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রার্থী মনোনয়ন প্রক্রিয়ায় রাজনৈতিক দলগুলো তাদের তৃণমূল পর্যায়ের মতামত উপেক্ষা করে থাকতে পারে বলে মনে করছেন নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার।

তিনি বলেছেন, গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশে বলে দেওয়া আছে মনোনয়ন হবে তৃণমূলের মতামতের ভিত্তিতে। কিন্তু এক্ষেত্রে তৃণমূলের ক্ষমতা গুরুত্ব পেয়েছে বা পাচ্ছে বলে আমার মনে হচ্ছে না। এক্ষেত্রে, ‘বিভিন্নতা পরিলক্ষিত হচ্ছে’ বলেও তিনি মন্তব্য করেন। এক্ষেত্রে বিএনপি ও আওয়ামী লীগের একই দশা।

বৃহস্পতিবার ঢাকায় আগারগাঁওয়ে নির্বাচন কমিশনের কার্যালয়ে সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তাদের নিয়ে এক অনুষ্ঠানে মাহবুব তালুকদার এসব কথা বলেন।

এই নির্বাচন কমিশনার আরও বলেন, আমরা চাই সংসদে জ্ঞানী ও দেশপ্রেমিক মানুষ আসুক। আর এটা হতে হবে নির্বাচনের মাধ্যমে। তার মতে, এ কারণেই মনোনয়ন প্রক্রিয়ায় তৃণমূল পর্যায়ের মতামত গুরুত্বপূর্ণ।

গণপ্রতিনিধিত্ব আদেশ (আরপিও) ৯০খ (৪) ধারা সংসদ নির্বাচনের প্রার্থী বাছাইয়ে সকল নিবন্ধিত রাজনৈতিক দলের তৃণমূলকে ক্ষমতা প্রদান করে।

ওই ধারা অনুযায়ী, তৃণমূল প্রতিটি নির্বাচনী এলাকার সম্ভাব্য প্রার্থীদের তালিকা তৈরি করে দলের কেন্দ্রীয় সংসদীয় বোর্ডে পাঠাবে এবং এই তালিকা বিবেচনায় নিয়ে প্রার্থীদের মনোনয়ন চূড়ান্ত করতে হবে। ২০০৮ সালের জাতীয় নির্বাচনের আগেই বিধানটি যুক্ত করা হয়েছিল।

রাজনৈতিক দলগুলোর মনোনয়ন বাণিজ্য বন্ধ করতে ও দলের মধ্যে গণতান্ত্রিক চর্চাকে শক্তিশালী করার জন্য এই নিয়ম চালু করা হয়েছিল তখন।