আশুলিয়ায় নারী পাচারকারী দলের ৪ সদস্য আটক

আশুলিয়া ব্যুরো : আশুলিয়ায় নারী পাচারের ঘটনায় ৪ জনকে আটক করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় থানায় মামলা হয়েছে।
বুধবার আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক সাজ্জাদ হোসেনের নেতৃত্বে অভিযান চালিয়ে নারী পাচারকারি দলের ৪ সদস্যদের আটক করে পুলিশ। বুধবার দুপুর ১২টারদিকে আশুলিয়ার নবীনগর এলাকায় একটি কাউন্টারে টিকেট কেটে ভারতে মরিয়ম (২০) নামের এক নারীকে পাচারের উদ্দেশ্যে নিয়ে যাচ্ছিল তারা।
এ ব্যাপারে  বৃহস্পতিবার দুপুরে এক সংবাদ ব্রিফিংয়ে আশুলিয়া থানার ইন্সপেক্টর (তদন্ত) জাভেদ মাসুদ বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে পুলিশ জানতে পারে ভারতে পতিতাবৃত্তি কাজে পাচারের উদ্দেশ্যে নবীনগরে একটি বাস কাউন্টারে কতিপয় পাচারকারি এক নারীকে নিয়ে যাচ্ছে। পুলিশ ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয়ে ওই নারীকে উদ্ধার করে। এ ঘটনায় ৪ পাচারকারিকে আটক করে পুলিশ।
এ বিষয়ে ভুক্তভোগি মরিয়ম বলেন, সে একমাস আগে মাদারীপুর থেকে আশুলিয়ার গাজীরচট এলাকার একটি বাড়িতে ভাড়া থাকেন। এ সুবাধে গাজীরচট ইউনিক এসবি পোশাক কারখানায় হেলপার পদে চাকুরি নেন। কারখানায় চাকুরি করে তাসলিমা (২৬) নামে এক নারীর সাথে তার পরিচয় ও বান্ধুত্ব হয়। একপর্যায়ে তাসলিমা তাকে জানায়, তার বোনের বাড়ি ভারতে। সে অসুস্থ। তাকে দেখতে যাবে সে। তার সাথে তাকেও যেতে আহ্বান জানায়। তাসলিমার অনুরোধে ৩দিনের জন্য সে ভারতে যেতে সম্মত হন। বুধবার বেলা ১২টায় মরিয়ম ও তাসলিমা মিলে রওয়ানা হয়ে নবীনগর বাস কাউন্টারে গিয়ে টিকেট কাটেন। এসময় আরো ৪ জনের সাথে তাসলিমা তাকে পরিচয় করে দেন এবং বাসে ওঠেন। এমন সময় পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে তাসলিমা সড়ে পড়েন। পুলিশ মরিয়মকে উদ্ধার করে এবং ওই ৪ নারী পাচারকারি দলের সদস্যকে আটক করে। এদের মধ্যে একজন আলী হোসেন। তার কাছে ভারতীয় নির্বাচন কমিশনের পরিচয়পত্র নম্বর এনআরসি-১০১৫৮৯০ পাওয়া গেছে।
নারী পাচারকারি দলের আটককৃতরা হলো-মানিকগঞ্জ জেলার দৌলতপুর থানাধীন চরকাটারী এলাকার কানিজ মোল্লার ছেলে আহম্মদ আলী (৩৫), একই জেলা ও থানার বাকুটিয়া এলাকার আদম আলী শেখের ছেলে জব্বার শেখ (৩২), একই এলাকার ইউছুফ মোল্লার ছেলে সুরুজ মোল্লা(২৮) ও ওই এলাকার চরকৃষ্ণপুর এলাকার নুর হাদির ছেলে আলী হোসেন (৫০)।
আটককৃতদের বিরুদ্ধে ৭দিনের রিমান্ড চেয়ে নারী পাচার অভিযোগে মামলা দায়ের করে বৃহস্পতিবার দুপুরে আদালতে পাঠিয়েছে পুলিশ।