ফোনকলে আড়ি পেতে সরকার অনৈতিক কাজ করেছে : ডা. জাফরুল্লাহ

স্টাফ রিপোর্টার : ফোনালাপে আড়ি পেতে সরকার অনৈতিক কাজ করেছে। আর কিছু গণ্যমাধ্যম দায়িত্বশীল না হয়েই তা প্রচার করেছে বলে মন্তব্য করেছেন ঐক্যফ্রন্ট নেতা ও গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী।  বুধবার বিকেল ৩টায় আশুলিয়ায় গণ্যস্বাস্থ্য কেন্দ্রের পিএইচএ ভবনে সংবাদ সম্মেলন করে এসব কথা বলেন তিনি।

ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, ফোনালাপে নিজেদের অস্তিত্ব বাঁচাতে গণস্বাস্থ্যের শিক্ষার্থীসহ সংশ্লিষ্টদের পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। প্রতিষ্ঠান ক্ষতিগ্রস্ত হলে এর জন্য ফোনে পরামর্শ দেয়া দোষের কিছু নয়। আমাদের প্রতিষ্ঠান টিকিয়ে রাখতে আমরা এক সঙ্গে কথা বলতেই পারি। তা বিকৃতভাবে প্রকাশ করার কিছু নেই।

এসময় গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রকে উদ্দেশ্য করে হামলার ব্যাপারে তিনি বলেন, আমার ব্যক্তিগত কোনও অপরাধ না পেয়ে আমার গড়া এ সেবামূলক প্রতিষ্ঠানের ওপর হামলা মামলা চালাচ্ছে একটি অশুভ মহল। তবে আমি এই প্রতিষ্ঠানটির ট্রাস্টি বোর্ডের ৭ জন সদস্যের একজন মাত্র। আমি এখান থেকে কোন বেতন ভাতাও নেই না। কোন জমির মালিকানাও আমার নেই। আমার মৃত্যুর পর এ জমিতে আমার কবরও হবে না। তাই আমার জন্য এই প্রতিষ্ঠানটি যেন ধ্বংস না হয়ে যায় সেজন্য সরকারসহ সবার কাছে আহ্বান জানাই। তাছাড়া যারা এখন জমির মালিকানা দাবি করছেন তারা মিথ্যা ও ভিত্তিহীনভাবেই জমির মালিকানা দাবি করে দখলের চেষ্টা চালাচ্ছেন।

ঐক্যফ্রন্টে যোগদানের ব্যাপারে তিনি বলেন, একজন মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে নৈতিক দায়িত্ব থেকেই ঐক্যফ্রন্টে গিয়েছি। দেশকে ভালবেসে একটি স্থিতিশীল পরিবেশ তৈরির জন্যই এ উদ্যোগ নিয়েছি। এসময় সংবাদ সম্মেলনে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীর সাথে উপস্থিত ছিলেন গণ বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মীর মোর্তজা আলী বাবু ও গণস্বাস্থ্যের ট্রাস্টি বোর্ডের পরিচালক সাইফুল ইসলাম শিশিরসহ প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ।

উল্লেখ্য, ১০ বছর পূর্বেই গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র থেকে অবসর গ্রহণ করেন ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী। এরপর থেকে তিনি ঢাকাতেই বসবাস করছেন।