ধোনির পাতানো ফাঁদে ধরা দিলেন সাকিব

এশিয়া কাপে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ম্যাচেই দেখা গেল ধোনি এখনও ফুরিয়ে যাননি। নেতৃত্বের আর্মব্যান্ডটা এখন চলে গিয়েছে বিরাট কোহলির হাতে।

কে বলে মহেন্দ্র সিংহ ধোনি তাঁর ক্রিকেট-কেরিয়ারের উপান্তে এসে পৌঁছেছেন? বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়কের মস্তিষ্ক এখনও কম্পিউটারের মতো কাজ করে। উইকেটের পিছনে দাঁড়িয়ে তিনি দেখতে পান গোটা মাঠ। খুব দ্রুত সিদ্ধান্ত নিতে আজও সমান দক্ষ মাহি। মাঠের ভিতরে দাঁড়িয়ে চকিতে সিদ্ধান্ত নিতে পারতেন আগে। আজ হয়তো অধিনায়ক নন আর, তবু এখনও তা পারেন।

এশিয়া কাপে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে ম্যাচেই দেখা গেল ধোনি এখনও ফুরিয়ে যাননি। নেতৃত্বের আর্মব্যান্ডটা এখন চলে গিয়েছে বিরাট কোহলির হাতে। এশিয়া কাপে বিশ্রাম দেওয়া হয়েছে কোহলিকে। নেতৃত্বে এখন রোহিত শর্মা। মোক্ষম সময়ে অধিনায়ককে পরামর্শ দিলেন ধোনি। রাঁচির রাজপুত্রের কথামতো ফিল্ডিংয়ে পরিবর্তন আনেন রোহিত। আর ধোনির পরমার্শে ফিল্ডিং পরিবর্তন করতেই সাফল্য এল।

ঠিক কী করেছিলেন ধোনি? বোলার ছিলেন রবীন্দ্র জাদেজা। ব্যাটসম্যান সাকিব। জাদেজার প্রথম বল শর্ট ফাইন লেগে ঠেলে এক রান নেন সাকিব। পরের বল জাদেজা নো করেন। সেই বলেও মুশফিকুর রহিম এক রান নিয়ে সাকিবকে স্ট্রাইক দেন। পরের বল কভার অঞ্চল দিয়ে চার মারেন সাকিব। পরবর্তী বলেই স্কোয়ার লেগ দিয়ে চার মারেন বাংলাদেশের অলরাউন্ডার। সেই সময়ে স্লিপে দাঁড়িয়েছিলেন শিখর।

ধোনি দেখলেন সাকিবের মারা সুইপ কিছুক্ষণ শূন্যে ছিল। সঙ্গে সঙ্গে তাঁর মস্তিষ্কে যেন বিদ্যুৎ খেলে গেল। স্লিপ থেকে শিখরকে পাঠালেন স্কোয়ার লেগে। এই অঞ্চল দিয়েই আগের বলটা বাউন্ডারিতে পাঠিয়েছিলেন সাকিব। জাদেজার পরের বলেও সাকিব স্কোয়ার লেগ দিয়ে বাউন্ডারি মারতে গেলেন। আর ধোনির ছড়ানো জালে পা দিলেন সাকিব। জাদেজার বল সাকিব স্কোয়ার লেগ দিয়ে বাউন্ডারিতে পাঠাতে গিয়ে ধবনের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফেললেন। সাকিবও ফাঁদে পা দেওয়ার অনুশোচনায় ব্যাট শূন্যে ছুড়লেন।

ফিল্ডিং পরিবর্তনই বুঝিয়ে দিলো ধোনির মস্তিষ্কে এতটুকুও মরচে পড়েনি। তিনি রয়েছেন আগের মতোই।