গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হলেই উল্টো যে বিপদ টাইগারদের

গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয়ে পরের রাউন্ডে গেলে মেলে বাড়তি পয়েন্ট, বাড়তি সুবিধা। প্রায় সব টুর্নামেন্টেই এমন নিয়ম । কিন্তু এবার এশিয়া কাপে ঠিক যেন তার বিপরীত চিত্র। বাড়তি পয়েন্ট নেইই। গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হলে উল্টো পড়তে হবে ঠাসা সূচি, ভ্রমণের ধকল সামলানোর যন্ত্রণায়।

সংযুক্ত আরব আমিরাতের দুবাই আর আবুধাবিতে হচ্ছে এশিয়া কাপের সব ম্যাচ। দুবাই থেকে আবুধাবির দূরত্ব ১৪০ কিলোমিটার। কিন্তু সবগুলো দলের অবস্থান দুবাইতে। অর্থাৎ আবুধাবিতে খেলা হলেও যেতে আসতে হবে দুবাই থেকে। যদিও উন্নত সড়ক ব্যবস্থা থাকায় দু’ঘণ্টার মধ্যেই যাওয়া যায়।

কিন্তু সমস্যা হয়েছে এখানেই। বৃহস্পতিবার আবুধাবিতে যদি আফগানিস্তানকে হারিয়ে বাংলাদেশ গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হয় তাহলে পরদিনই সুপার ফোরের ম্যাচে আবার আবুধাবি যেতে হবে বাংলাদেশকে। গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হোক বা না হোক একদিন মাঝে বিরতি রেখে ২৩ সেপ্টেম্বর আবার বাংলাদেশকে যেতে হবে আবুধাবিতে।

গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন হলে দম ফেলারই ফুরসত নেই। চারদিনে তিনটা ওয়ানডে ম্যাচ খেলতে হবে। তাও দুবাই-আবুধাবি-দুবাই ভ্রমণ করে। বিস্ময়করভাবে গ্রুপ রানার্সআপ হলে এতসব যন্ত্রণা নেই। সুপার ফোরের প্রথম ম্যাচ ২১ তারিখ খেলা পড়বে দুবাইতেই। একদিন বিরতি দিয়ে ২৩ সেপ্টেম্বর আবুধাবি ও দুদিন বিরতি দিয়ে ২৬ সেপ্টেম্বর খেলা পড়বে আবুধাবিতে।

এশিয়া কাপের মতো বড় আসরে সূচিই এই বেহাল দশায় বিরক্তি লুকোননি বাংলাদেশ কোচ স্টিভ রোডসও, ‘হ্যাঁ আমরা এটা দেখেছি। এটা খুবই ঠাসা সূচি, খুব কম সময়ের মধ্যে অনেক ক্রিকেট খেলতে হবে তাও আবার কঠিন কন্ডিশনে। আবার অনেক ছুটোছুটিও আছে।

‘এটা খুবই নায্য প্রশ্ন (এমন সূচি কেন করা হলো)। কিন্তু আমি এই সময়ে এশিয়া কাপ কমিটির সমালোচনা করতে চাচ্ছি না। যারা এটা বানিয়েছে তাদের প্রশ্নটা করতে হবে।’