এমপিওভুক্তির জন্য ৯৪৯৮ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের আবেদন

এমপিওভুক্তির জন্য ৯ হাজার ৪৯৮টি বেসরকারি স্কুল, কলেজ, মাদরাসা ও কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আবেদন অনলাইনে জমা পড়েছে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ। তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় মাঠ পর্যায়ে সরেজমিনে যাচাই-বাছাই চলছে। যাচাই-বাছাই করে নতুন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করা হবে। এছাড়া এমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষকদের বেতনে ৫ শতাংশ বার্ষিক প্রবৃদ্ধি ও বৈশাখী ভাতার বিষয়ে শিগগিরই প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা দেবেন।

বুধবার সচিবালয়ে দেশের মাধ্যমিক স্কুল, কলেজ, মাদরাসা ও কারিগরি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন সংগঠনের নেতাদের সঙ্গে এক বৈঠকে শিক্ষামন্ত্রী এসব কথা বলেন। আড়াই ঘণ্টাব্যাপী এ মতবিনিময় সভায় শিক্ষক নেতারা শিক্ষা সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন সমস্যা ও দাবি দাওয়ার বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রীকে অবহিত করেন। বেসরকারি শিক্ষক-কর্মচারীদের অবসর ও কল্যাণের জন্য থোক বরাদ্দ, শিক্ষা প্রতিষ্ঠান নতুন করে এমপিও এবং সরকারিকরণ বিষয় নিয়ে আলোচনা হয়। শিক্ষক নেতারা তাদের বক্তব্যে শিক্ষায় অভূতপূর্ব যুগান্তকারী উন্নয়ন হয়েছে বলে উল্লেখ করেন।

পর্যায়ক্রমে শিক্ষকদের সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দিয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, এবার নতুন প্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্ত করা হবে। ইতোমধ্যে নন-এমপিও স্কুল, কলেজ, মাদরাসা ও কারিগরি প্রতিষ্ঠান থেকে অনলাইনে আবেদন নেয়া হয়েছে। যাচাই-বাছাই করে নতুন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্ত করা হবে। প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনার আলোকে মাঠ পর্যায়ে সরেজমিনে যাচাই-বাছাই করা হবে বলে তিনি জানান।

সভায় মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. সোহরাব হোসাইন ও মাদরাসা ও কারিগরি বিভাগের সচিব মো. আলমগীর, শিক্ষক নেতাদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ কলেজ শিক্ষক সমিতির সভাপতি মো. আসাদুল হক, বাংলাদেশ শিক্ষক সমিতির সভপতি মো. আজিজুল ইসলাম ও আব্দুল আওয়াল সিদ্দিকি, বাংলাদেশ কারিগরি কলেজ শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যক্ষ এম এ সাত্তার, স্বাধীনতা শিক্ষক পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মো. শাহজাহান আলম সাজু, স্বাধীনতা মাদরাসা শিক্ষক পরিষদের সভাপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমান নাঈম, বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কর্মচারী ফেডারেশসের সভাপতি মো. শাহজাহান খান, বাংলাদেশ জমিয়তুল মোদার্রেছীনের মহাসচিব মাওলানা শাব্বির আহমদ মোমতাজী উপস্থিত ছিলেন।