ফের মা হতে চান কারিনা কাপুর

রিফিউজি চলচ্চিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে ২০০০ সালে বড় পর্দায় অভিষেক হয় কারিনা কাপুরের। ঐতিহাসিক নাট্যধর্মী অশোক এবং মেলোড্রামাধর্মী ব্লকব্লাস্টার কভি খুশি কভি গম… চলচ্চিত্র দিয়ে তিনি হিন্দি চলচ্চিত্রে শক্ত অবস্থান তৈরি করেন। শুরুর সাফল্যের পর তার কয়েকটি বাণিজ্যিকভাবে ব্যর্থ হয় এবং নেতিবাচক সমালোচনা অর্জন করে।

বলিউডের নবাব দম্পতি সাইফ আলি খান ও কারিনা কাপুর খানের ঘর এরই মধ্যে আলোকিত করেছে পুত্র তৈমুর আলি খান। ২০১২ সালের ১৬ অক্টোবর বিয়ে করেন এই জুটি। সম্প্রতি এ অভিনেত্রী ফের মা হওয়ার ইচ্ছা পোষণ করেছেন। এক টক শোতে এসে আবারও মা হওয়ার পরিকল্পনার কথা জানান তিনি।

কারিনা কাপুর জানান, মা হওয়ার পরিকল্পনা করছি। আগামী দুই বছর পর আবারও সন্তান নেব। সাইফের বোন সোহা আলি খানের মেয়ে ইনায়া নাউমির সঙ্গে তৈমুর সারাদিন খেলাধুলায় মেতে থাকে। ভাই বা বোন পেলে তাদের মজা আরও বাড়বে।

২০০৪ সালে নাট্যধর্মী চামেলি চলচ্চিত্রে একজন যৌনকর্মীর ভূমিকায় এবং দেব চলচ্চিত্রে দাঙ্গা কবলিত এক নারী আলিয়া ভূমিকায় অভিনয় করেন কারিনা। ২০০৬ সালে তিনি উইলিয়াম শেকসপিয়র রচিত ওথেলো নাটকের ছায়া অবলম্বনে নির্মিত ওমরকার চলচ্চিত্রে মূল নাটকের ডেসডিমোনা চরিত্রের সংকলিত ডলি মিশ্রা ভূমিকায় অভিনয় করেন। তার এই ভূমিকায় অভিনয়ের জন্য তিনি ফিল্মফেয়ার শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী সমালোচক পুরস্কার লাভ করেন।

তিনি ২০০৭ সালের জব উই মেট চলচ্চিত্রে গীত চরিত্রে অভিনয়ের জন্য জন্য ফিল্মফেয়ার শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী পুরস্কার এবং ২০১০ সালের উই আর ফ্যামিলি চলচ্চিত্রে তার ভূমিকার জন্য ফিল্মফেয়ার শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেত্রী পুরস্কার লাভ করেন।

কারিনা বলিউডের সর্বাধিক ব্যবসা সফল চলচ্চিত্র হাস্যরসাত্মক নাট্যধর্মী থ্রি ইডিয়টস (২০০৯) এবং সামাজিক নাট্যধর্মী বজরঙ্গী ভাইজান (২০১৫) চলচ্চিত্রে প্রধান নারী ভূমিকায় করে সাফল্য লাভ করেন। এছাড়া তার অভিনীত ২০০৯ সালে থ্রিলারধর্মী কুরবান এবং ২০১২ সালে হিরোইন চলচ্চিত্র দুটি সমালোচকদের প্রশংসা অর্জন করে।