ধামরাইয়ে স্কুলছাত্রীর গণধর্ষণের প্রধান আসামী গ্রেফতার

ধামরাই প্রতিনিধি: ধামরাইয়ে গণধর্ষণের প্রধান আসামী ইমরান হোসেন মুনকে মঙ্গলবার রাতে ময়মনসিংহের ত্রিশাল থানার দুঘুলিয়া গ্রামের নানা বাড়ী থেকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় অন্য আসামীরা হলো ধর্ষিতার প্রেমিক আলামিন হোসেন,তার বন্ধু নিলয় ও পাপ্পু। বাকী আসামীরা পলাতক রয়েছে। তাদেরকে আটকের অভিযান অব্যাহত আছে।

গত শনিবার পৌরসভার কুমড়াইল মহল্লার এক রিকশা চালকের মেয়ে স্থানীয় মর্ণিং ডিউ স্কুল এ্যান্ড কলেজের ষষ্ঠ শ্রেণির ছাত্রী স্কুলে আসার সময় তার প্রেমিক আলামিন হোসেন ডেকে নিয়ে তার বন্ধুদের দিয়ে প্রেমিকাকে ধর্ষণ করায়। ওইদিন ওই ছাত্রীকে ডেকে নেয় পৌরসভার পাঠানটোলা মহল্লার আবদুল হাকিম ভূঁইয়ার তিনতলা ভবনের ছাদে। এরপর সেখানে বাড়ির মালিকের পালক ছেলে ইমরান হোসেন মুন, বন্ধু নিলয় ও পাপ্পু ওই ছাত্রীকে হাত-পা বেধে ভয়ভীতি দেখিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। এরপর ধর্ষণের কথা বললে তাকে একেবারে মেরে ফেলার হুমকি দিয়ে ধর্ষণাকারীরা চলে যায়। এ অবস্থায় বাসায় গিয়ে ওই ছাত্রী তার মা ও নানীকে বিষয়টি জানায়। এরপর তাকে চিকিৎসা করিয়ে সোমবার রাতে থানায় এসে ধর্ষিতার বাবা বাদি হয়ে চারজনের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন। ধর্ষিতাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ওয়ান স্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে ডাক্তারি পরিক্ষা করানো হয়েছে।

এ বিষয়ে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ধামরাই থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) আশিকুজ্জামান জানান, প্রযুক্তি ব্যবহার করে প্রধান আসামীকে ত্রিশাল থেকে আটক করা হয়েছে। তাকে রিমান্ডের আবেদন জানিয়ে আদালতে প্রেরণ করা হবে। অন্য আসামীদের আটকের অভিযান অব্যাহত আছে।