ধামরাইয়ে এক পরিবারের তিনজনের অকাল মৃত্যু

ধামরাই প্রতিনিধি: ভাগ্যের নির্মম পরিহাসে প্রায় এক মাসের মধ্যে সকলকে কাঁদিয়ে ধামরাইয়ের একটি পরিবারের তিনজন না ফেরার দেশে চলে গেলেন। মানসিক ভারসাম্যহীন যুবক রায়হান উদ্দিন (২০) গতকাল রবিবার ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে মারা যায়। এর আগে শনিবার তার বাবা সাভারের এমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিৎিসাধীন অবস্থায় এক মাস আটদিন পর মারা যান। এর এক মাস আগে তার মাকে জবাই করে খুন করে ওই যুবক।

ধামরাইয়ে মানসিক ভারসাম্যহীন রায়হান উদ্দিন (২০) নামের এক যুবক ঘুমন্ত অবস্থায় তার মা জামিলা বেগমকে (৬০) জবাই করে হত্যা করে। বাবা বাছের উদ্দিন (৬৮) ও ভাই রতনকে (২৫) কুপিয়ে জখম করে। বাবা চিকিৎসাধীন অবস্থায় এক মাস নয়দিন মারা যান। আর ভারসাম্যহীন যুবক রবিবার ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায়। এতে এলাকায় শোকের মাতম বয়ে চলছে।

ধামরাইয়ে রোয়াইল ইউনিয়নের খড়ারচড় পশ্চিমপাড়া গ্রামের মানিসক ভারসাম্যহীন যুবক রায়হান উদ্দিন গত ২৯ জুলাই রাতে তার মাকে ঘুমন্তাবস্থায় ধারালো দা দিয়ে জবাই করে হত্যা করে।  বাবা ও ভাইকে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে। আহতাবস্থায় তাদেরকে ওই রাতেই সাভারের এনাম মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে। ওইদিন এলাকাবাসী রায়হানকে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করে। পুলিশ আদালতে মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরন করে রায়হানকে। জেলহাজতে রায়হান অসুস্থ্য হয়ে পড়লে তাকে ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের প্রিজনসেলে ভর্তি করে। চিকিৎসাধীন অবস্থায় গতকাল রবিবার রায়হান না ফেরার দেশে চলে যায়। রায়হানের মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন, ধামরাই থানার অফিসার ইনচার্জ দীপক চন্দ্র সাহা।