ঢাকায় ওএমএসের ২১৫ টন চাল ও গম জব্দ

রাজধানীর তেজগাঁওয়ের কেন্দ্রীয় খাদ্যগুদাম থেকে পাচার হওয়া ২১৫ টন চাল, আটা ও গম জব্দ করেছে র‌্যাব পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ আদালত। গোপন তথ্যের ভিত্তিতে পাওয়া তথ্যে গত শনিবার এ অভিযান চালায় র‌্যাব-৩।

তেজগাঁও কেন্দ্রীয় খাদ্যগুদামের সামনে মোট আটটি ট্রাকে করে পাচারকালে ১১৫ টন চাল গম ও আটা জব্দ করা হয়। পরে তথ্যের ভিত্তিতে মোহাম্মদপুর কৃষি মার্কেটে গিয়ে আরও ১০০ টন জব্দ করা হয়।

র‍্যাব সূত্র জানায়, ওএমএসের এসব চাল সরকার কিনে ৩৯ টাকা কেজিতে এবং বিক্রি করে ২৮ টাকায়। আর ৩২ টাকা কেজি দরে আটা কিনে ১৬ টাকায় বিক্রি করে।

র‌্যাব জানিয়েছে, সরকারি এ খাদ্য গুদামে খাদ্যপণ্য পাচারের দুর্নীতির বিষয়ে দুদককে লিখিতভাবে অভিযোগ করা হবে। অভিযানের বিষয়ে র‌্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার আলম  বলেন, অভিযানে শনিবার রাতে তেজগাঁওয়ের কেন্দ্রীয় খাদ্যগুদাম থেকে পাচারকালে ১১৫ টন চাল, গম ও আটা জব্দ করা হয়।

তিনি আরও বলেন, আটটি ট্রাকে করে এসব খাদ্যপণ্য পাচার করে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। ওএমএসের এসব চাল, গম ও আটা ঢাকার ১৪০ স্থানে বিতরণের জন্য রাখা হয়েছিল। সেখান থেকে র‍্যাবের অভিযানে গুদামের ব্যবস্থাপক হুমায়ুন কবির ও গোডাউন ইনচার্জ মনিয়ার হোসেন আটক করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

সারওয়ার আলম বলেন, দীর্ঘদিন থেকে কেন্দ্রীয় খাদ্যগুদামের কিছু কর্মকর্তা-কর্মচারীর সংশ্লিষ্টতায় চাল, গম পাচার করে আসছিল একটি চক্র। জব্দ করা খাদ্যপণ্য চুয়াডাঙ্গা, শ্রীমঙ্গল ও মাওনায় পাচারের কথা ছিল।

র‌্যাবের এ নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বলেন, তেজগাঁওয়ের কেন্দ্রীয় খাদ্যগুদামের আটক দুই কর্মকর্তাকে খাদ্য অধিদফতরের জিম্মায় দেয়া হয়েছে। আমরা এ দুর্নীতির বিষয়ে দুর্নীতি দমন কমিশনকে আনুষ্ঠানিকভাবে অবহিত করব। যাতে করে দুদক এ ব্যাপারে শক্ত ব্যবস্থা নিতে পারে। এর আগেও খাদ্য গুদামে দুর্নীতি ও খাদ্যদ্রব্য পাচারের অভিযোগে অভিযান পরিচালনা করেছিল র‌্যাব।