শরীরে পানির ঘাটতি, বুঝবেন যেভাবে?

শরীরকে চাঙ্গা এবং সুস্থ রাখতে প্রচুর পানি পান করা দরকার। কেননা শরীরকে সুস্থ রাখতে প্রচুর পানি পান করার কোনো বিকল্প হতে পারে না। শরীরে পানির ঘাটতি দেখা দিলে নানান সমস্যা হতে পারে। কেননা পর্যাপ্ত পানি পানে শরীর থেকে টক্সিন বের হয়ে আমাদের সুস্থ থাকতে সাহায্য করে। শরীরে পানির ঘাটতি দেখা দিলো কিনা তা কিছু উপসর্গের মাধ্যমে জানা যায়। সেগুলো নিচে তুলে ধরা হলোঃ

১. যদি মাথার পেছনে বা সামনে ব্যথা দেখা দেয় তাহলে এটা দুশ্চিন্তার কারণে হতে পারে। আবার পর্যাপ্ত পানি পান না করলেও এই ধরনের ব্যথা হয়। যদি মাথায় হঠাৎ হঠাৎ চক্কর দেয় তাহলেও বুঝতে হবে আপনার শরীরে তরলের ঘাটতি হয়েছে। এই সময় বেশি পরিমাণে পানি পান করা উচিত। তা না হলে মস্তিষ্কও ঠিকমতো কাজ করতে পারবে না।

২. যদি শরীরে পর্যাপ্ত পানির ঘাটতি হয় তাহলে চমড়া শুষ্ক হতে শুরু করে। চামড়া যেহেতু শরীরের সবচেয়ে বড় অঙ্গ এ কারণে এটি আর্দ্রতাময় থাকা দরকার। এজন্য দিনে অন্তত ৮ গ্লাস পানি পান করা উচিত। শুষ্ক ত্বকই জানিয়ে দেয় আপনার শরীরে পানির ঘাটতি আছে কি-না।

৩. যদি মুখ শুষ্ক থাকে তাহলে বুঝবেন আপনার শরীরে পর্যাপ্ত তরল যাচ্ছে না। প্রয়োজন অনুযায়ী পানি না পেলে লালাগ্রন্থি মুখ ভেজা রাখতে পারে না। এতে ব্যাকটেরিয়া ঢুকে নিঃশ্বাসে খারাপ গন্ধ তৈরি করে। তখন কথা বলার সময়ও বাজে গন্ধ বের হয় মুখ থেকে। পর্যাপ্ত পানি পান আপনাকে এই সমস্যা থেকে মুক্তি দিতে পারে।

৪. ঠিক মতো পানি না পান করলে মাংসপেশীও দুর্বল হয়ে পড়ে। এ কারণে বিশেষজ্ঞরা শক্তিশালী মাংসপেশীর জন্য পর্যাপ্ত পানি পানের পরামর্শ দেন।

৫. যদি কারও বমি বা ডায়রিয়া হয় তাহলে এরপরই কোষ্টকাঠিন্যের সম্ভাবনা দেখা দেয়। কারণ ডায়রিয়া বা বমির কারণে শরীর থেকে যে পানি বের হয়ে যায় তা পূরণের জন্য প্রচুর পরিমাণে পানি পান করা উচিত। তা না হলে শরীরে পানিশূন্যতা দেখা দেবে, কোষ্টকাঠিন্যেরও ঝুঁকি বাড়বে।।